সৈয়দপুরে মেধাবী ক্রিকেটার অন্বেষনে টুর্ণামেন্টের আয়োজন

 
 

সিসি নিউজ, ২৮ ডিসেম্বর।। ক্লেমন এর সৌজন্যে মেধাবী ক্রিকেটার অন্বেষনে আগামি ইংরেজী নববর্ষের প্রথম মাসে স্থানিয় ৩২ দলের টি-২০ ক্রিকেট টুর্ণামেন্টর আয়োজন করবে সৈয়দপুর ক্রিকেটার্স ওয়েলফেয়ার এসোসিয়েশন। সোমবার রাত ১০টায় শহরের আদিবা কনভেনশনে বাংলাদেশ এ দলের সাবেক ক্রিকেটার হুমায়ুন কবীরের সভাপতিত্বে এক আলোচনা সভায় এমন ঘোষনা দেওয়া হয়।
এ সময় সৈয়দপুরের বাংলাদেশ জাতীয় অনুর্ধ্ব-১৯ দলের ক্রিকেটার মোঃ কলিম, মোঃ রবিউল ইসলাম রুবেল, বাংলাদেশ হাইপারফরমেন্স দলের নুর আলম সাদ্দামসহ ঢাকা প্রিমিয়ার, প্রথম বিভাগ ও স্থানিয় বিভিন্ন ক্রিকেট একাডেমির কর্মকর্তা এবং খেলোয়াররাসহ স্থানিয় গণমাধ্যমকর্মীরা বক্তব্য রাখেন।
অনুর্ধ্ব ১৯ নিউজিল্যান্ড বিশ্বকাপে বাংলাদেশ জাতীয় অনুর্ধ্ব ১৯ দলের হয়ে প্রতিনিধিত্ব করা স্ট্রাইক বোলার রবিউল ইসলাম বলেন, এখানে অনেক ট্যালেন্ট আছে। আমি ছুটিতে বাড়িতে আসলেও ইচ্ছে করেই তাদের বিরুদ্ধে মাঠে নামি না। কারণ, তারা অনেক বিগ হিট নিতে পারে। এ আতংকে আমি ঢাকা ডায়নামাইটের খেলোয়ার নুর আলম সাদ্দামকে বল করতে নিষেধ করেছি। এখন ওই মেধাবীদেও তুলে আনার প্লাটফর্ম তৈরীর জন্য একটি টুর্ণামেন্ট। ভালো আউট ফিল্ড, পিচ ও খেলার সরঞ্জাম দরকার। প্রয়োজনে আমরা ব্যাক্তিগত ভাবে সহায়তা করব।
সংগঠনটির সাধারন সম্পাদক সাবদার বলেন, কোয়াব অন্তভুক্ত আমাদের সংগঠন শুধু খেলা ছাড়াও জনহিতকর কাজেও অবদান রাখছে। এবার খেলোয়ার তৈরী করতে চাই। যারা আগামিতে টিম বাংলাদেশের প্রনিধিত্ব করবে।
সভাপতি হুমায়ন কবীর বলেন, বাংলাদেশ ক্রিকেটের উজ্জল সুচনা লগ্নে আইসিসি চ্যাম্পিয়ন ট্রফির স্কোয়াডের সদস্য ছিলেন এ জনপদের সন্তান উইকেট কিপার মুখতার সিদ্দিকী। এতে আমাদের স্থানিয় ক্রিকেট অনেক এগিয়ে ছিলে। যার ফলশ্রুতিতে ঢাকার মাঠে প্রিমিয়ার কিংবা প্রথম বিভাগের যে কোন দলে সৈয়দপুরের ক্রিকেটারদের ধারাবহিক আধিপত্য ছিল। অথচ আমাদেও কোন একাডেমি ছিলনা। শুধু মেধার কারণে সুযোগ এ উত্তরণ ঘটেছিল। আর এ মেধার পরিস্ফুটনের ক্ষেত্র ছিল ধারাবাহিক টুর্ণামেন্ট।
আজ নিয়মিত খেলা না হওয়ায় মেধাবীরা উঠে আসছেনা। তাই টুর্ণামেন্টের এ ব্যবস্থা।
এ সময় ঢাকা লালমাটিয়ার সাবেক অধিনায়ক ও বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ড নিযুক্ত নীলফামারী জেলা দলের কোচ মোঃ জামিউল ইসলাম বাবলুকে সংবর্ধনা প্রদান করা হয়।

Print Friendly, PDF & Email