সৈয়দপুর পুলিশের ভালবাসা!

 
 

সাব্বির আহমেদ সাবের : পুলিশী পোষাক পড়লেই নাকি পুলিশ হয়ে ওঠেন ক্ষিপ্র। ব্যতিব্যস্ত হন মামলা-মোকদ্দমা আর চোর-ডাকাত ধর-পাকরে। তেজ্বসী কন্ঠ, রক্তলাল চোখ আর সন্দেহবাতিক চাহনি এটাই যেন পুলিশের চিরাচরিত পরিচয়। কিন্তু নিরেট কালো চশমা, শক্ত বুট আর চ্যাপ্টা বেল্টে আঁটসাট পরিপাটি পোষাকি ওই মানুষগুলোর ভিতরেও যে কোমল হৃদয় আছে, জীবের প্রতি মমত্ববোধ আর ভালবাসা আছে এটা অনেকের কাছেই অজানা। পুলিশ সম্পর্কে আমজনতার সাদামাটা ধারণাটি পাল্টে গেছে সৈয়দপুর থানা ক্যাম্পাসের একটি ছোট্ট ঘটনায়।
৭ জানুয়ারি সকালে থানা কোয়ার্টারের বাসা থেকে বের হওয়ার সময় ৩’টি কুকুরের হাঁকডাকে থমকে দাঁড়ান থানার অফিসার ইনচার্জ শাহজাহান পাশা। লক্ষ্য করেন, ঢাকনা খোলা পরিত্যক্ত একটি সেপটি ট্যাংকের চতুর্দিকে মা কুকুর ঘুরছে আর আর্তনাদ করছে। মাঝে মধ্যে সেপটি ট্যাংকের ভেতর থেকেও শব্দ আসছিল। প্রাণপ্রিয় সন্তানকে বাঁচাতে মা কুকুর আকুতি জানাচ্ছে, এটা বুঝতে বাকি থাকলো না থানার ওই বড়কর্তার। তিনি তাৎক্ষণিক খবর দেন ফায়ার সার্ভিসকে। মুহুর্তের মধ্যে সাঁইরেন বাঁজিয়ে থানায় ছুটে আসে ফায়ার সার্ভিসের গাড়ি। থানার ভেতরে দমকল বাহিনীর গাড়ি ঢুকতে দেখে অনেকে আতংকিত হয়ে পড়েন। সাঁইরেন থামিয়ে গাড়ি সোজা গিয়ে থামলো ওই ম্যানহোলের পাশে। হাতে দ্রুত গ্লোভস্ লাগিয়ে ফায়ার সার্ভিসের জোয়ানরা ম্যানহোলে নামার চেষ্টা করলো। কিন্তু স্বল্পায়তনের মুখ দিয়ে সেপটি ট্যাংকে নামা কষ্টকর হচ্ছিল। একাধিক চেষ্টার পর সফল হন দমকল জোয়ানরা। পরম আন্তরিকতায় ঘুটঘুটে অন্ধকার সেপটি ট্যাংক থেকে তুলে আনেন আটকে থাকা ৩টি কুকুর ছানাকে। অনেক লোকের ভিড়েও মা কুকুর নির্ভয়ে ছুটে এসে পরম মমতায় আগলে ধরলো উদ্ধার হওয়া ছানা দু’টিকে।
সেলফি, ম্যাসেঞ্জিং আর ফেসবুকের কল্যাণে মুহুর্তেই যেন ভাইরাল হয়ে পড়লো বিপদে পড়া কুকুর ছানাকে উদ্ধার ঘটনাটি। সাধারণ মানুষের বাহবা আর সাধুবাদে সিক্ত হলেন সৈয়দপুর থানার অফিসাস ইনচার্জ শাহজাহান পাশাসহ ফায়ার সার্ভিস দল ও স্থানীয় মিডিয়াকর্মীরা।

এ প্রসঙ্গে কথা হয়, সৈয়দপুর ফায়ার সার্ভিস বিভাগের সিনিয়র স্টেশন অফিসার মাহমুদুল হাসানের সাথে। তিনি জানান, সৈয়দপুর থানার অফিসার ইনচার্জের দেয়া সংবাদের ভিত্তিতে আমাদের কর্মীরা ঘটনাস্থলে যায়। এবং পরিত্যক্ত সেফটি ট্যাংকি থেকে তিনটি কুকুরছানা উদ্ধার করা হয়।

কথা হয় সৈয়দপুর থানার অফিসার ইনচার্জ শাহজাহান পাশার সাথে। তিনি জানান, মা কুকুরের আর্তনাদ আমার মনকে নাড়া দিয়েছিল ওই সময়। প্রথমে কুকুরছানাগুলোকে নিজেই উদ্ধার করতে গিয়ে ব্যর্থ হই। পরে ফায়ার সার্ভিসকে সংবাদ দিয়ে উদ্ধার কাজ সম্পন্ন করি।

নীলফামারী জেলা পুলিশ সুপার আশরাফ হোসেন সংবাদকর্মীকে জানান, মানুষই পুলিশ। ওই কর্মকর্তা প্রানীর প্রতি এমন মমত্ববোধ দেখিয়ে পুলিশের ইতিবাচক মনোভাব ফুটিয়ে তুলেছে।

Print Friendly, PDF & Email

 
 
 
 
 
 
 
 

error: Content is protected !!