ডিমলায় বোমা মেশিনে অবৈধ পাথর উত্তোলন

 
 

সিসি ডেস্ক, ৯ জানুয়ারী॥ নীলফামারীর ডিমলা উপজেলার তিস্তা নদীর আশপাশে এলাকায় অবৈধ বোমা মেশিন (ড্রেজার) দিয়ে অবাধে পাথর উত্তোলন চলছে। দিন-রাত সব সময় ভারী মেশিন দিয়ে পাথর উত্তোলন করা হচ্ছে। প্রতিনিয়ত অবৈধভাবে পাথর উত্তোলন করা হলেও প্রশাসন নিরর ভুমিকা পালন করার অভিযোগ উঠেছে।
অবৈধভাবে পাথর উত্তোলন বন্ধ ও পাথর উত্তোলনকারীদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহনসহ চার দফা দাবীতে আজ বুধবার (৯ জানুয়ারী) বিকেলে ডিমলা প্রেস ক্লাবের উদ্দ্যেগে মানববন্ধন করা হয়। ডিমলা সদরের সুটিবাড়ী মোড়ে স্মৃতি অম্লান চত্তরে ঘন্টাব্যাপি এ মানববন্ধনে সাংবাদিক ছাড়াও সর্বস্তরের জনসাধারন অংশগ্রহণ করেন। তারা অবৈধভাবে পাথর উত্তোলনকারীদের বিরুদ্ধে প্রশাসনকে দ্রুত সময়ে ব্যবস্থা গ্রহনের দাবী জানান। মানববন্ধন শেষে একটি স্মারকলিপি উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ও ডিমলা থানার ওসিকে দেয়া হয়। মানববন্ধনে অংশ গ্রহনকারীরা অবিলম্বে তাদের দাবী বাস্তবায়ন করা না হলে আন্দোলন অব্যাহত রাখার ঘোষনা দেন।
আন্দোলনকারীরা জানান, অবৈধভাবে পাথর উত্তোলন ও স্থান্তরিত করার মেশিন ও ট্রাক্টরের শব্দে পরিবেশের জন্য মারাত্মক ঝুঁকিপূর্ণ হলেও আইন মানছেন না কেউ। এতে দেশের সর্ব বৃহৎ সেচ প্রকল্প তিস্তা ব্যারাজ কমান্ড এলাকা ও নদীর বিভিন্ন স্থানে অনুমতিহীন অবৈধভাবে বোমা মেশিন বসিয়ে মাটির তলদেশ থেকে পাথর উত্তোলনে তিস্তা ব্যারাজ ও নদী সংরক্ষনের নির্মিত কোটি কোটি টাকার অবকাঠামো হুমকীর মুখে পড়েছে।
তারা বলেন, গয়াবাড়ী ইউনিয়নের ইউপি চেয়ারম্যান সামসুল হকের নেতৃত্বে শতাধিক বোমা মেশিন বসিয়ে পাথর উত্তোলন করা হচ্ছে। ইউপি চেয়ারম্যানের ছেলে আলম ও রাজা এসব মেশিনে চালিয়ে যাচ্ছেন। অভিযোগ উঠেছে ইউপি চেয়ারম্যান সামসুল হক প্রতিটি মেশিন বাবদ ১৫ হাজার করে টাকা উত্তোলন করে প্রশাসনকে ম্যানেজ করেন।
ডিমলার পূর্ব ছাতনাই ইউনিয়নের গোলাম মোস্তফা জানান অবৈধভাবে বোমা মেশিন দিয়ে এসব পাথর উত্তোলনের বিরুদ্ধে আমি গত বছর হাইকোটে মামলা করি। হাইকোট আমার মামলা আমলে নিয়ে বোমা মেশিন দিয়ে পাথর উত্তোলনে নিষেজ্ঞাধা জারী করে দেয়। কিন্তু এখন দেখছি হঠাৎ করে কয়েকটি প্রভাবশালী মহল জোট বেধে সামসুল চেয়ারম্যানের নেতৃত্বে প্রশাসনকে ম্যানেজ করে পুনরায় বোমা মেশিন বসিয়ে অবৈধভাবে পাথর উত্তোলন শুরু করেছে। যা উচ্চ আদালতের নিষেজ্ঞাধাকে অবজ্ঞা করা হচ্ছে।
ডিমলা উপজেলা চেয়ারম্যান তবিবুল ইসলাম বলেন, খনিজ সম্পদ মন্ত্রণালয় থেকে এখানে কোন কোয়াড়ি দেওয়া হয়নি। অথচ ভারী মেশিন ব্যবহার করে পাথর উত্তোলন চলছে। এতে করে পরিবেশ বিপর্যয় ঘটছে, হুমকির মুখে পড়েছে তিস্তা ব্যারাজ সেচ প্রকল্প, নষ্ট হচ্ছে ফসলি জমি।
গয়াবাড়ী বোমা মেশিন মালিক আবদুর রাজ্জাক রাজা বলেন, আমরা গয়াবাড়ী সামসুল চেয়ারম্যানকে দিয়ে বিভিন্ন সাইড ম্যানেজ করে মেশিন বসিয়ে পাথর তুলছি। গয়াবাড়ি ইউনিয়নের চেয়ারম্যান সামছুল ইসলামের সঙ্গে কথা বলার চেষ্টা করা হলে তাকে পাওয়া যায়নি। তবে এলাকাবাসী জানায় তার দুই ছেলের নেতৃত্বে ১০টি বোমা মেশিন চলছে। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এক ব্যক্তি জানান গত দুই দিন ধরে শতাধীক বোমা মেশিন চলছে।
এ বিষয়ে ডিমলা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা নাজমুন নাহার বলেন, ডিমলা অবৈধভাবে পাথর উত্তোলনের বিষয়টি আমার জানা নেই। তদন্ত করে দোষীদের বিরুদ্ধে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে।
তবে গয়াবাড়ী ইউনিয়ন সহকারী ভূমি কর্মকর্তা আবুল হোসেন বলেন, আমার ইউনিয়নের বেশ কিছুদিন যাবত সামসুল চেয়ারম্যানের নেতৃত্বে বোমা মেশিন দিয়ে পাথর উত্তোলন করা হচ্ছে। এখানে সামসুল চেয়ারম্যানের দুই ছেলে আলম ও রাজা পাথর উত্তোলন করছে। বিষয়টি নিয়ে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তাকে ৫ দফা লিখিত প্রতিবেদন দেয়া হয়েছে।
ডিমলা থানার ওসি মফিজ উদ্দিন শেখের সঙ্গে কথা বললে তিনি বোমা মেশিনে পাথর উত্তোলন বিষয়ে কিছুই জানেন না বলে জানান।
মানববন্ধনে বক্তব্য রাখেন, ডিমলা প্রেসক্লাবের সভাপতি মাজহারুল ইসলাম লিটন, সাধারন সম্পাদক সহিদুল ইসলাম, তিস্তা নিউজের সম্পাদক সরদার ফজলুল হক, সাংবাদিক জাহেদুল ইসলাম, আলতাফ হোসেন চৌধূরী, উপজেলা যুবলীগের সাবেক সাধারন সম্পাদক আনোয়ারুল হক সরকার মিন্টু, বাসদ ইয়াছিন এ্যাড শ্যামল গ্রুপ কেন্দ্রীয় কার্যকরী সভাপতি ও তেল গ্যাস খনিজ সম্পদ বিদ্যুৎ বন্দর রক্ষা জাতীয় কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য ডাঃ সৈয়দ লিটন মিয়া তালুকদার প্রমুখ।

Print Friendly, PDF & Email