জয়পুরহাটে মিথ্যা মামলায় ভূক্তভোগী পরিবারের সংবাদ সম্মেলন

 
 

জয়পুরহাট,  ২৫ জানুয়ারী।। মোটা অংকের দায় দেনা থেকে রক্ষা পেতে অহেতুক একটি হত্যা মামলায় স্বামীকে ফাঁসানোর অভিযোগ করেন নওগাঁর ধামুইরহাট উপজেলার জগৎনগর গ্রামের আখতার হোসেনের স্ত্রী ও জয়পুরহাট জেলা আধুনিক হাসপাতালের সিনিয়ার ষ্টাফ নার্স মেরিনা পারভিন। শুক্রবার বেলা ১১টায় জয়পুরহাট জেলা প্রেসক্লাবে সংবাদ সম্মেলনে তিনি এ লিখিত অভিযোগ করেন। এ সময় উপস্থিত ছিলেন ভূক্তভোগী পরিবারের আইনজীবি এ্যাডভোকেট মানিক হোসেন, মেরিনার শ্বাশুরী উম্মে কুলসুম, দেবর উজ্জল হোসেন, ৩ নাবালক কন্যা সহ এলাকার গন্যমান্য ব্যাক্তিগন।
মেরিনা তার লিখিত অভিযোগে জানান, তার স্বামী আবু আখতার হোসেন নওগাঁর ধামুইরহাট উপজেলার “জগদল আদিবাসী স্কুল ও কলেজের” রষায়ন বিভাগের প্রদর্শক হিসেবে দীর্ঘ দিন যাবত কর্মরত আছেন। একই শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের বাংলা বিভাগের প্রভাষক ও একই উপজেলার সাহাপুর গ্রামের কায়েম উদ্দিন ছেলে জামাল উদ্দিন তার স্বামীর নিকট থেকে গত ২০১৭ সালের ২ জানুয়ারী ১০ লাখ টাকা ব্যাক্তিগত ঋন গ্রহন করে তার স্বামীকে সমপরিমান অর্থের বিপরীতে সোনালী ব্যাংক ধামুইরহাট শাখার সঞ্চয়ী হিসাব ৩৪০৩৯৯৮৩ নম্বরের একটি চেক প্রদান করেন। নিধারিত সময়ের পরও জামাল উদ্দিন টাকা পরিশোধ না করলে মেরিনার স্বামী আখতার হোসেন উক্ত চেকটি নগদায়নের জন্য সংশ্লিষ্ট ব্যাংকে জমা প্রদান করলে ব্যাংক “অপর্যাপ্ত তহবিল” দেখিয়ে চেকটি প্রত্যাখ্যান করে।
এরপর দীর্ঘ দিনেও ঋন পরিশোধ না করায় তার স্বামী আখতার হোসেন ঋন গ্রহিতা জামাল উদ্দিনকে আসামী করে জয়পুরহাট অতিরিক্ত চীফ জুডিসিয়াল ম্যাজিষ্ট্রেট আদালতে গত ২০১৭ সালের ২২ মার্চ মামলা দায়ের করেন ( মামলা নং-৪৮৫/১৭ দায়রা)। মেরিনা পারভীন সংবাদ সম্মেলনে আরো জানান, ‘ পরবর্তীতে আমরা জানতে পারি অভিযুক্ত জামাল উদ্দিন আরো অনেকের কাছে মোটা অংকের টাকা ঋন নিয়ে অবৈধ্য মূর্তি ব্যবসায় তা বিনিয়োগ করতেন। ওই ঋনের টাকা পরিশোধে নানা ভাবে মানষিক চাপে থাকায় আমার স্বামীকে সহকর্মী হিসেবে অনুরোধ করলে তিনি জামাল উদ্দিনকে ১০ লাখ টাকা ধার দেন।’
‘ এরপর গত ১৭ জানুয়ারী ধামুইরহাট উপজেলার ঘুখশি খালে হাত-পা বাধা অবস্থায় জামাল উদ্দিনের মৃতদেহ পাওয়া গেলে তার স্ত্রী পরিবানু বাদী হয়ে আমার স্বামী আখতার হোসেনসহ ৭ জনের বিরুদ্ধে একটি হত্যা মামলা দায়ের করেন। মেরিনা তার অভিযোগে জানান, জামাল উদ্দিনের বিরুদ্ধে অর্থ আত্মসাতের বিভিন্ন জনের মামলা ও অভিযোগ রয়েছে। এ ছাড়া আমার স্বামীও পাওনা টাকা আদায়ের জন্য জামাল উদ্দিনের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করেন। এ পাওনা টাকা থেকে পরিত্রান পেতে আমার স্বামীকে ওই হত্যা মামলায় ফাঁসানো হয়েছে। এ ব্যাপারে সুষ্ঠু তদন্তের জন্য তিনি স্বরাষ্ট্র মন্ত্রী, পুলিশের আইজিপি, ডিআইজিপি, পুলিশ সুপার ও স্থানীয় র‌্যাব অধিনায়কের কাছে আবেদন করেন বলেও জানান মেরিনা।

Print Friendly, PDF & Email

 
 
 
 
 
 
 
 

error: Content is protected !!