পুলিশের তৎপরতায় অপহৃত স্কুল ছাত্র উদ্ধার

 
 

চট্টগ্রাম, ২৫ জানুয়ারী।। চট্টগ্রাম নগরীর কোতোয়ালি থানা পুলিশের দুঘন্টার তৎপরতায় উদ্ধার হয় অপহৃত স্কুল ছাত্র শামীম। বৃহস্পতিবার বিকালে নগরীর ঘাটফরহাদবেগ এলাকা থেকে তাকে উদ্ধার করে পুলিশ। এর আগে দুপুরে স্কুল ছুটির পর স্কুলের সামনে থেকে দুজন লোক তাকে গাড়িতে করে তুলে নিয়ে যায়। উদ্ধার হওয়া ছাত্র সাইদুল ইসলাম শামীম (১১) নগরীর কোতোয়ালি থানা সরকারি মুসলিম হাই স্কুলের ষষ্ঠ শ্রেণীর ছাত্র। তার বাবা রেয়াজউদ্দিন বাজারের ব্যবসায়ি শামসুল ইসলাম বলে জানায় পুলিশ।

নগর পুলিশের অতিরিক্ত উপ-কমিশনার (দক্ষিণ) শাহ মো. আব্দুর রউফ জানায়, অপহরণকারীরা স্কুল ছাত্র সাইদুলকে অপহরণ করে আটকে রেখে তার পরিবারের কাছ থেকে ৪০ লাখ টাকা মুক্তিপন দাবী করে। সাইদুলের পরিবার বিষয়টি কোতোয়ালি থানায় জানালে পুলিশি তৎপরতায় অপহরণের দু’ঘন্টার মধ্যে মুক্ত হয় স্কুল ছাত্র সাইদুল।
তিনি বলেন, ডিজিটাল প্রযুক্তি ব্যবহার করে পুলিশ অপহরণকারীদের অবস্থান শনাক্ত করে অভিযানে নামলে অপহরণকারীরা বিষয়টি বুঝতে পারে। বিকালের দিকে অপহৃত স্কুল ছাত্র সাইদুলকে ঘাট ফরহাদবেগ এলাকায় ছেড়ে দিয়ে পালিয়ে যায়।সন্ধ্যায় সংবাদ সম্মেলন করে শামীমকে উদ্ধারের বিষয়টি জানান, চট্টগ্রাম মেট্রোপলিটন পুলিশের উপ-কমিশনার (দক্ষিণ) এস এম মেহেদী হাসান। তিনি উদ্ধার হওয়া ছাত্র সাইদুলের বরাতে বলেন, অপহরণকারীরা স্কুল ছুটির পর স্কুল গেইটে সাইদুলের সাথে দেখা করে।  এসময় তারা বলেন আজ তাদের ড্রাইভার আসেনি। তার বাবা তাদের পাঠিয়েছে বাসায় নিয়ে যেতে। এ কথা শুনে সাইদুল দুজন অপরিচিত লোকের সাথে প্রাইভেট কারে উঠে নন্দনকানন বাসায় যাওয়ার জন্য রওনা হয়। কিন্তু অপহরণকারীরা তার বাসার রাস্তায় না গিয়ে আন্দরকিল্লাহর পাশের সড়কে গেলে সাইদুল চিৎকার করার চেষ্টা করে। এসময় তার গলায় ছুঁরি ধরে তাকে কিছুক্ষণ সিটের নিচে লুকিয়ে রেখে বেশ কিছুক্ষণ গাড়ি নিয়ে ঘুরতে থাকে অপহরণকারীরা। একপর্যায়ে সাইদুলের বাবার সাথে কথা বলতে দেন অপহরণকারীরা। এসময় তারা ৪০ লক্ষ টাকা দাবী করে ছেলের মুক্তির জন্য। সাইদুলের বাবা রেয়াজউদ্দিন বাজারের ব্যবসায়ি শামসুল ইসলাম টাকা দিতে অপরাগত প্রকাশ করে বিষয়টি থানায় জানায়। পরে ডিজিটাল টেকনোলজি ব্যবহারে অপরাধীদের শনাক্ত করা হলে তারা অপহৃত সাইদুলকে ছেড়ে দিয়ে পালিয়ে যায়।এ বিষয়ে তদন্ত করে অপরাধীদের গ্রেফতারের চেষ্টা চলছে বলে জানান কোতোয়ালি থানার ওসি মোহাম্মদ মোহসীন।

Print Friendly, PDF & Email

 
 
 
 
 
 
 
 

error: Content is protected !!