মালয়েশিয়ার ১৬তম রাজা নির্বাচিত

 
 

আন্তর্জাতিক ডেস্ক।। মালয়েশিয়ার নতুন নির্বাচিত হয়েছেন আল সুলতান আব্দুল্লাহ রিয়াতউদ্দীন আল মুস্তফা বিলাহ শাহ ইবনে সুলতান হাজী আহমদ শাহ আল মুস্তিন বিলাহ। তিনি দেশটির ১৬তম রাজা হিসেবে দায়িত্ব পালন করবেন।

বৃহস্পতিবার সকালে দেশটির নয় প্রদেশের সুলতানদের বৈঠকে নতুন রাজা নির্বাচিত হয়েছেন তিনি। নতুন রাজা মালয়েশিয়ার পাহাং প্রদেশর সুলতান। আর তার ডেপুটি নির্বাচিত হয়েছেন পেরাক প্রদেশর সুলতান নাজরিন শাহ। আগামী ৩১ জানুয়ারি তারা সিংহাসনে আরোহন করবেন।

রাজা পঞ্চম মোহাম্মাদ সম্প্রতি পদত্যাগ করায় তার স্থানে নতুন রাজা নির্বাচিত করেছে দেশটি। দুই মাস চিকিৎসা ছুটিতে দেশের বাইরে থাকার সময় এক রুশ নারীর সাথে তার বিয়ের গুজব ওঠে। এই গুজবের রেশ ধরেই শেষ পর্যন্ত পদত্যাগ করেন তিনি।

রাশিয়ার রাজধানী মস্কোতে সাবেক মিস মস্কোর সঙ্গে তার বিয়ের ছবি প্রকাশ্যে আসে। মাত্র ৪৭ বছর বয়সে দেশটির রাজা নির্বাচিত হয়েছিলেন মুহাম্মদ পঞ্চম। তবে পাঁচ বছর মেয়াদ পূর্তির আগে পদত্যাগ করার ঘটনাও এই প্রথম দেশটির ইতিহাসে। তার স্থানেই নির্বাচিত করা হলো নতুন রাজা। রাজা ৫ বছরের জন্য রাষ্ট্রপ্রধান ও সশস্ত্র বাহিনীর কমান্ডার ইন চিফ হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন।

যেভাবে নির্বাচিত করা হয় রাজা

গণতান্ত্রিক রাষ্ট্র মালয়েশিয়ায় রাজা হলেন রাষ্ট্রপ্রধান। পদটি অনেকটাই প্রতীকী। তবে দেশের সর্বোচ্চ সম্মানিত ব্যক্তি তিনি। দেশটিতে রাজা নির্বাচনের প্রক্রিয়াটি ব্যতিক্রমী। সেখানে রাজাকে বলা হয় ‘অ্যাগোং’ যার অর্থ ‘কিং অব দ্য কিং’ বা রাজাদের রাজা। মালয়েশিয়ায় প্রশাসনিকভাবে ১৩টি প্রদেশ রয়েছে, তবে এর মধ্যে নয়টি প্রদেশে রয়েছেন নয়জন সুলতান। (বাকি চারটি প্রদেশে রাজশাসন নেই, সেখানে প্রাদেশিক প্রধান হলেন গভর্নর)। এই সুলতানদের মধ্য থেকেই পালাক্রমে সবাই রাজা হবেন।

ধারবাহিকভাবে তাদের মধ্য থেকে পাঁচ বছরের জন্য একজন রাজা নির্বাচিত হন। গতমাসে পদত্যাগ করা রাজা পঞ্চম মোহাম্মাদ ছিলেন কেলানতান প্রদেশের সুলতান।

রাজা নির্বাচনের জন্য মালয়েশিয়ার নয় প্রদেশের সুলতানগণ বৈঠকে বসেন (এবার সেটি ছিল বৃহস্পতিবার)। এই বৈঠক থেকেই তাদের মধ্য থেকে একজন রাজা নির্বাচিত হন। এক্ষেত্রে সাধারণ নিয়ম হলো- জৈষ্ঠতার ভিত্তিতে তারা রাজা নির্বাচিত হন। তবে কেউ নিজ থেকে রাজা নির্বাচিত হতে না চাইলে কিংবা অন্য কিছু কারণে ব্যতিক্রম হতে পারে।

১৯৫৭ সালে ব্রিটেন থেকে স্বাধীনতা পাওয়ার পর দেশটিতে এই নীতি গ্রহণ করা হয়। সমালোচকরা বলেন, মালয় জাতীয়দের আধিপত্য বজায় রাখতে এটি ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়েছিল। পর্যায়ক্রমে সব সুলতানই রাজা হবেন- এর দ্বারা বোঝানো হয় কেউ কারো চেয়ে শ্রেষ্ঠ নন। নেগরি সিমবিলান প্রদেশের সুলতান টেঙ্কু আবদুর রহমান ছিলেন মালয়েশিয়ার প্রথম রাজা।

রাজা নির্বাচনের দিন সব প্রাদেশিক সুলতানরা বৈঠকে বসেন। জৈষ্ঠতা অনুযায়ী রাজা নির্বাচিত হলেও সেখানেও ভোটাভুটির ব্যবস্থা আছে। সুলতানদের প্রত্যেককে একটি করে ব্যালট পেপার ও একই ধরনের কলম দেয়া হয়। জেষ্ঠতার ভিত্তিতে নয় জনের মধ্যে সবচেয়ে সিনিয়র সুলতানের বিষয়ে তারা ব্যালটে ‘হ্যাঁ’ অথবা ‘না’ ভোট দিবেন। ৯ জনের মধ্যে ৫ জন পক্ষে ভোট দিলে ওই সুলতান রাজা নির্বাচিত হবেন। দুর্বল স্বাস্থ্যসহ বেশ কয়েকটি কারণে তার বিপক্ষে ভোট দিতে পারেন সুলতানরা। অথবা তিনি নিজে থেকে রাজা হতে অনিচ্ছুক হলেও ‘না’ ভোট দিতে পারেন।

এমন ভোটাভুটিতে প্রথম জন রাজা নির্বাচিত হতে ব্যর্থ হলে, তালিকার দ্বিতীয় জনের বিষয়ে ভোটাভুটি হবে। তিনিও নির্বাচিত না হতে পারলে তৃতীয়জন। এভাবেই মালয়েশিয়ার জন্য রাজা নির্বাচিত করেন নয় প্রদেশের সুলতানরা।

সূত্র: স্টার অনলাইন

Print Friendly, PDF & Email

 
 
 
 
 
 
 
 

error: Content is protected !!