নিহত শ্রমিকদের পরিবার পাবে ১ লাখ, আহত ৫০ হাজার

 
 

সিসি নিউজ, ২৬ জানুয়ারী।। কুমিল্লায় ট্রাকচাপায় ১৩ শ্রমিকের মৃত্যুর ঘটনায় ট্রাকচালক ও সহকারীকে আসামি করে হত্যা মামলা হয়েছে। সকালে চৌদ্দগ্রাম থানায় মামলা করেন নিহত শ্রমিক রঞ্জিত চন্দ্র রায়ের ভাই সঞ্জিত চন্দ্র রায়। এদিকে, আজ শনিবার নীলফামারিতে মরদেহ পৌঁছলে তৈরি হয় শোকের আবহ। এরই মধ্যে নিহত শ্রমিকের পরিবারকে অনুদান দিয়েছে প্রশাসন। দুপুর ২টার মধ‌্যে শেষ হয়েছে নিহতদের শেষকৃত অনুষ্ঠান।
অপরদিকে, নীলফামারীর জলঢাকার মীরগঞ্জ হাট বহুমুখী উচ্চ বিদ্যালয়ে ক্লাস হয়নি। ফিরে গেছে সব শিক্ষার্থী। কারণ কুমিল্লায় ট্রাকচাপায় নিহত হয়েছে এই স্কুলেরই পাঁচ শিক্ষার্থী। শংকর, দীপু, তরুণ, বিপ্লব ও সেলিম দশম শ্রেণীতে পড়তো। দরিদ্রতা তাদের শ্রমিক হতে বাধ্য করেছিল।
সকালে নিহত ১৩ শ্রমিকের মরদেহ নেয়া হয় শিমুলবাড়ির কর্ণময়ী সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় মাঠে। সেখানে জড়ো হয় কুড়ারপাড়, পাঠানপাড়া ও দোলাপাড়া গ্রামবাসী। চলে স্বজনের আহাজারি।
মরদেহ স্বজনের কাছে হস্তান্তর করেন জেলা প্রশাসক নাজিয়া শিরিন। নিহতের পরিবারকে জেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে ২০ হাজার টাকা করে দেয়া হয়েছে। এছাড়া, নিহতদের প্রত্যেক পরিবারকে ১ লাখ এবং আহতদের ৫০ হাজার টাকা দেয়ার ঘোষণা দিয়েছে শ্রম মন্ত্রণালয়। স্থানীয় সংসদ সদস‌্য রানা মোহাম্মদ সোহেল নিহতদের পরিবারকে তাৎক্ষনিক অনুদান প্রদান করেছেন।
এদিকে, কুমিল্লার অতিরিক্ত পুলিশ সুপার আব্দুল্লাহ আল মামুন জানান, ট্রাকচালক ও সহকারীর বিরুদ্ধে অবহেলাজনিত হত্যা মামলা দায়ের করা হয়েছে।
পুলিশ জানিয়েছে, দুর্ঘটনায় ইটভাটা কর্তৃপক্ষের কোন গাফিলতি থাকলে তাদের মামলার আওতায় আনা হবে। ট্রাকচালক ও সহকারীকে ধরতে অভিযান চলছে বলে জানান তিনি। এরই মধ্যে কাজ করু করেছে তদন্ত কমিটি। গতকাল শুক্রবার কুমিল্লার চৌদ্দগ্রামে একটি ইটভাটার মেসে কয়লাবাহী ট্রাক উল্টে পড়ে ঘুমন্ত ১৩ জন শ্রমিক নিহত হয়। এ ঘটনায় আহত হয় আরও দুজন। ভোর সাড়ে ৫টার দিকে উপজেলার গোলপাশা ইউনিয়নের করিমপুরের (দোসরী) কাজী অ্যান্ড কোং ইটভাটায় এ দুর্ঘটনা ঘটে।

 

Print Friendly, PDF & Email

 
 
 
 
 
 
 
 

error: Content is protected !!