সৈয়দপুর প্লাজার প্রকল্প পরিচালকের বিরুদ্ধে গ্রেফতারি পরোয়ানা

 
 

সিসি নিউজ, ২৯ জানুয়ারী।। প্রতারণা ও চাঁদা দাবির মামলায় আদালতের ধার্য‌্য তারিখে হাজির না হওয়ায় সৈয়দপুর প্লাজার প্রকল্প পরিচালক আলহাজ্ব গুলজার আহম্মেদ সহ ৬ জনের বিরুদ্ধে গ্রেফতারি পরোয়ানা জারি করেছে আদালত। গত রোববার (২৭ জানুয়ারী) নীলফামারীর সিনিয়র জুডিশিয়াল ম‌্যাজিস্টেট আদালতের বিচারক ওই আদেশ প্রদান করেন। আলহাজ্ব গুলজার আহম্মেদ (৫৯) শহরের বাঁশবাড়ী এজাহার রোডের মৃত শরীফ উদ্দিনের পুত্র।

মামলার অন‌্যান‌্য আসামীরা হলেন, সৈয়দপুর শহরের নতুন বাবুপাড়ার আশরাফ আলী রোডের মৃত আব্দুর রাজ্জাকের পুত্র মনসুর আলী (৫৫), তার দুই পুত্র শাহজাহান আলী কাজল (৩৩) ও আশরাফুল ইসলাম বাবলু (৩৫) এবং  লক্ষণপুর বাড়াইশাল পাড়ার মৃত দলিল উদ্দিনের পুত্র আফজাল হোসেন (৪৫) ও তার স্ত্রী হেলেনা আফজাল (৪০)।

সূত্র মতে, সৈয়দপুর উপজেলার ধলাগাছ ওয়াপদা পাড়ার নজরুল ইসলামের পুত্র ব‌্যবসায়ী মমিনুল ইসলাম মিঠু ২০১৮ সালের ২৭ জুন নিজে বাদী হয়ে সৈয়দপুর থানায় উল্লেখিত ব‌্যাক্তিদের বিরুদ্ধে ৪০৬/৪২০/৪৬৫/৩৮৫/১০৯ পেনাল কোড (নিয়ন্ত্রণ নং ২৭২) ধারায় একটি মামলা দায়ের করেন।

মামলার আরজি মতে, শাহজাহান আলী কাজলের নিকট থেকে ২০১৭ সালের ৫ আগষ্ট বাদী মমিনুল ইসলাম মিঠু সৈয়দপুর প্লাজার নীচতলার আই ব্লকের ১২০ বর্গফুট আয়তনের ১৫ নং দোকানটি ২৬ লাখ ৫০ হাজার টাকায় ক্রয় করেন। এ সময় প্লাজা পরিচালনার নীতিমালা মোতাবেক প্রকল্প পরিচালক আলহাজ্ব গুলজার আহম্মেদের উপস্থিতিতে তিনটি ১০০ টাকা মূল‌্যের ননজুডিশিয়াল স্টাম্পে ‘দোকানের পজেশন বিক্রির চুক্তিপত্র’ সম্পাদন করা হয়। কদিনের মধ‌্যে শাহজাহান আলী কাজল ক্রেতার মমিনুল ইসলাম মিঠুর কাছে ক্রয়কৃত দোকানটি হস্তান্তর করার সিদ্ধান্ত হয়।  এরপর মামলায় উল্লেখিত আসামীদ্বয় বাদীকে দোকান হস্তান্তর না করিয়া প্রতারণা উদ্দেশ‌্যে নানা তালবাহানা করিতে থাকে।

সৈয়দপুর থানার অফিসার ইনচার্জ শাহজাহান পাশা আদালত থেকে গ্রেফতারি পরোয়ানার নির্দেশ প্রাপ্তির কথা নিশ্চিত করে বলেন, আসামীদের গ্রেফতারে জোর প্রচেষ্টা চলছে।

 

Print Friendly, PDF & Email