• শুক্রবার, ২০ মে ২০২২, ১২:২০ পূর্বাহ্ন |

৯২০ কোটি টাকা পাচার: ক্রিসেন্টের কাদের গ্রেপ্তার

সিসি ডেস্ক, ৩১ জানুয়ারী।। পণ্য রপ্তানির নামে প্রায় ৯২০ কোটি টাকা পাচারের অভিযোগে ক্রিসেন্ট গ্রুপের তিন প্রতিষ্ঠানের বিরুদ্ধে মানি লন্ডারিং আইনে মামলা করেছে জাতীয় রাজস্ব বোর্ড (এনবিআর)। মামলায় জনতা ব্যাংকের তৎকালীন ও বর্তমান ১৩ কর্মকর্তা এবং ক্রিসেন্ট লেদার, রিমেক্স ফুটওয়্যার ও ক্রিসেন্ট ট্যানারিজের চার কর্মকর্তাসহ মোট ১৭ জনকে আসামি করা হয়েছে। এর মধ্যে গতকাল ক্রিসেন্ট লেদার ও ক্রিসেন্ট ট্যানারিজের চেয়ারম্যান এম এ কাদেরকে গ্রেপ্তার করেছে এনবিআরের শুল্ক গোয়েন্দা ও তদন্ত অধিদপ্তর।

ঢাকার চকবাজার থানায় ক্রিসেন্ট গ্রুপের বিরুদ্ধে দায়ের করা তিনটি মামলার মধ্যে দুটিতে এম এ কাদেরকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে বলে জানিয়েছেন এনবিআর চেয়ারম্যান ও অভ্যন্তরীণ সম্পদ বিভাগের জ্যেষ্ঠ সচিব মো. মোশাররফ হোসেন ভূঁইয়া। তিনি জানান, কাদেরকে পুলিশের কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে। আজ বৃহস্পতিবার আদালতে হাজির করা হবে। পাশাপাশি বাকি ১৬ আসামিকেও শিগগিরই গ্রেপ্তার করা হবে।

গতকাল বুধবার রাজধানীর সেগুনবাগিচায় এনবিআরের সম্মেলনকক্ষে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে মো. মোশাররফ হোসেন ভূঁইয়া বলেন, ক্রিসেন্ট লেদার ৪২২ কোটি ৪৬ লাখ, রিমেক্স ফুটওয়্যার ৪৮১ কোটি ২৬ লাখ টাকা ও ক্রিসেন্ট ট্যানারিজ ১৫ কোটি ৮৪ লাখ টাকা বিদেশে পাচার করেছে। শুল্ক গোয়েন্দার তদন্তে বিষয়টি প্রমাণিত হয়েছে। এ ঘটনায় ক্রিসেন্ট গ্রুপের চার পরিচালক ও তিনটি ব্যাংকের ১৩ কর্মকর্তার বিরুদ্ধে চকবাজার থানায়  আলাদা তিনটি মামলা হয়েছে।

মামলার আসামি ক্রিসেন্ট গ্রুপের কর্মকর্তারা হলেন রিমেক্স ফুটওয়্যারের চেয়ারম্যান আব্দুল আজিজ, ব্যবস্থাপনা পরিচালক লিটুল জাহান মিরা, ক্রিসেন্ট লেদার প্রডাক্টস ও ক্রিসেন্ট ট্যানারিজের চেয়ারম্যান এম এ কাদের এবং ব্যবস্থাপনা পরিচালক সুলতানা বেগম মনি।

ব্যাংক কর্মকর্তারা ঋণ দেওয়ার ক্ষেত্রে ও এলসি খোলার ক্ষেত্রে সতর্ক না থাকায় তাঁদেরও আসামি করা হয়েছে উল্লেখ করে এনবিআর চেয়ারম্যান বলেন, টাকা পাচারের এলসি ও অন্যান্য কাগজপত্রে স্বাক্ষর থাকায় ১৩ জন ব্যাংক কর্মকর্তাকে আসামি করা হয়েছে। তবে চূড়ান্ত তদন্তে তাঁদের সংশ্লিষ্টতা আরো সূক্ষ্মভাবে পর্যালোচনা করা হবে।

আসামির তালিকায় থাকা ব্যাংক কর্মকর্তারা হলেন—জনতা ব্যাংকের (সাময়িক বরখাস্ত) সিনিয়র অফিসার আব্দুল্লাহ আল মামুন, মো. মনিরুজ্জামান, সাইদুজ্জামান, (সাময়িক বরখাস্ত) প্রিন্সিপাল অফিসার মো. রুহুল আমিন, সিনিয়র প্রিন্সিপাল অফিসার মো. মগরেব আলী, মো. খায়রুল আমীন, সহকারী মহাব্যবস্থাপক মো. আতাউর রহমান সরকার, উপমহাব্যবস্থাপক মো. ইকবাল, এ কে এম আসাদুজ্জামান, কাজী রইস উদ্দিন আহমেদ, মহাব্যবস্থাপক মো. রেজাউল করিম, কৃষি ব্যাংকের উপব্যবস্থাপনা পরিচালক ফখরুল আলম ও সোনালী ব্যাংকের উপব্যবস্থাপনা পরিচালক মো. জাকির হোসেন। শেষের দুজন ঘটনার সময় জনতা ব্যাংকের মহাব্যবস্থাপক (জিএম) ছিলেন।

সম্প্রতি প্রকাশিত গ্লোবাল ফিন্যানশিয়াল ইন্টেগ্রিটি (জিএফআই) প্রতিবেদনে ২০১৫ সালে দেশ থেকে অর্থপাচারসংক্রান্ত সংবাদের বিষয়টি উল্লেখ করে এনবিআর চেয়ারম্যান বলেন, ‘গণমাধ্যমে দেশ থেকে ৫০ হাজার কোটি টাকা পাচারের তথ্য এসেছে। টাকার অঙ্ক বেশি না কম সে দিকে যাচ্ছি না। তবে পাচার যে হচ্ছে, এ বিষয়ে সন্দেহ নেই। এই টাকা পাচার রোধে এনবিআর, বাংলাদেশ ব্যাংক, দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক) ও আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর দায়িত্ব রয়েছে।’ তিনি আরো বলেন, আরো ১০-১২টি প্রতিষ্ঠানের বিরুদ্ধে অর্থপাচারের তথ্য আছে। এগুলোর অনুসন্ধান চলছে। অর্থপাচার প্রমাণিত হলে বাংলাদেশ ফিন্যানশিয়াল ইন্টেলিজেন্স ইউনিট (বিএফআইইউ), দুদক ও এনবিআর একত্রে মানি লন্ডারিং আইনে মামলা করবে।

টাকা পাচারকারীদের উদ্দেশে এনবিআর চেয়ারম্যান বলেন, ‘এখন দেশে বিনিয়োগ অনুকূল পরিবেশ রয়েছে। তার পরও বিদেশি টাকা পাচার করে লাভ কি? সবাই এ টাকা ভোগও করতে পারে না। সুইস ব্যাংকও টাকা ফেরত দেয় না—এমন খবরও বের হচ্ছে। ব্যাংকের টাকা উধাও করে, বিদেশে টাকা পাচার করলে কাউকে ছাড় দেওয়া হবে না।’


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ