চিলাহাটিতে স্থলবন্দরের কাজ এ বছরই শুরুর আশা রেলমন্ত্রীর

 
 

সিসি নিউজ, ৮ ফেব্রুয়ারী।। নীলফামারীর চিলাহাটিতে স্থলবন্দর চালুর উদ্যোগ নিয়েছে সরকার। এ বছরই প্রকল্পের কাজ শুরুর আশা করা হচ্ছে। এ বিষয়ে ভারতের উচ্চ পর্যায়ের কর্মকর্তাদের সঙ্গে এরই মধ্যে বৈঠক হয়েছে। উত্তর জনপদের এই স্থলবন্দরটি চালু হলে প্রতিবেশী ভারত, নেপাল ও ভুটান থেকে পণ্য আমদানি-রপ্তানিতে খরচ কমবে।
ব্রিটিশ আমলের প্রসিদ্ধ ব্যবসাকেন্দ্র নীলফামারীর ডোমার উপজেলার চিলাহাটি। ১৯৬৫ সাল পর্যন্ত চিলাহাটির শুল্ক স্টেশন দিয়ে ভারতের সঙ্গে বাংলাদেশের রেল সংযোগ ছিল। পাক-ভারত যুদ্ধের সময় এটি বন্ধ হলেও চালু ছিল শুল্ক স্টেশন ও ইমিগ্রেশন চেকপোস্ট। ২০০২ সালে বন্ধ হয়ে যায় সেটিও।
২০১১ সালে চিলাহাটি শুল্ক স্টেশনকে পূর্ণাঙ্গ স্থলবন্দর করার ঘোষণা দেয় সরকার। কিন্তু এতদিনেও শুরু হয়নি কাজ। ব্যবসায়ীরা জানান, বন্দরটি চালু হলে পণ্য আমদানি-রপ্তানি ব্যয় কমার পাশাপাশি হবে কর্মসংস্থান।
কাগজে-কলমে দেশে বর্তমানে ২৩টি স্থলবন্দর থাকলেও চালু রয়েছে মাত্র ১০টি। বেশিরভাগ ক্ষেত্রে অবকাঠামো সুবিধার অভাব থাকলেও চিলাহাটি সেদিক থেকে অনেক বেশি সম্ভাবনাময়। বাংলাদেশ অংশে মাত্র ৭ কিলোমিটার রেললাইন সচল হলেই ভারতের সাথে রেল যোগাযোগ চালু সম্ভব।
রেলমন্ত্রী নূরুল ইসলাম সুজন বলেন, এটিও প্রকল্প হাতে নেয়া হয়ছে। আশা করছি এ অর্থবছরের মধ্যে এ প্রকল্প শুরু করতে পারবো। অচিরেই এটা অন্য কিছু তো নয়, লাইন তো আছেই, শুধু লাইনটা পুর্ননির্মাণ করে এবং এখনকার মতো যুগোপযোগী করে তৈরি করতে বেশি সময় লাগবে না। মাত্র কয়েক কিলোমিটার মনে হয়। বেশি না। আমি যেটুকু খবর পেয়েছি, তারা এটি রেডি করেছে। কাজেই আমাদের অংশটুকু আমরা দ্রুতই করে ফেলবো। এদিক থেকে নতুন করে ভারতের সাথে যোগাযোগ শুরু হবে।
এরই মধ্যে হলদিবাড়ি সীমান্ত পর্যন্ত রেললাইন বসানোর কাজ শেষ করেছে ভারত।

Print Friendly, PDF & Email