• সোমবার, ২৩ মে ২০২২, ০২:১৫ অপরাহ্ন |

সৈয়দপুরে জোড়া খুনের ঘটনা পিআইবি কর্তৃক তদন্তের দাবি

সিসি নিউজ, ১৯ ফেব্রুয়ারী।। নীলফামারীর সৈয়দপুরের জোড়া খুনের ঘটনায় খামারের কেয়ারটেকার ছাড়াও অন্য কেউ জড়িত ছিলো বলে অভিযোগ করেছেন নিহত দম্পতির তিন ছেলে। আজ মঙ্গলবার বিকেলে নীলফামারীর মিডিয়া হাউজে সংবাদ সম্মেলণ করে এ অভিযোগ করা হয়।
সংবাদ সম্মেলণে নিহত দম্পতির ছোট ছেলে সারওয়ার মোর্শেদ জানান, গত ৫ ফেব্রুয়ারী সৈয়দপুর থানায় এক প্রেস ব্রিফিংয়ে অতিরিক্ত পুলিশ সুপার অশোক কুমার পাল জানান, খামারের কেয়ারটেকার আব্দুর রাজ্জাক এ হত্যাকান্ড ঘটিয়েছেন বলে আদালতে ১৬৪ ধারায় জবানবন্দী দিয়েছেন। কিন্তু কেয়ারটেকার রাজ্জাকের একার পক্ষে দুজনকে এভাবে হত্যা করা সম্ভব নয়।
তিনি আরো দাবি করেন, ঘটনাটি পিআইবি বা অন্য কোন তদন্তকারী সংস্থার মাধ্যমে তদন্ত করা গেলে হত্যাকান্ডের সাথে আর কারা জড়িত ছিলো তা বের হয়ে আসতো। এছাড়াও দ্রুত মামলার চার্জশীট দেয়ার দাবি জানানো হয় সংবাদ সম্মেলণ থেকে। সংবাদ সম্মেলণে আরো দুই ছেলে আবু সাইদ ও সোহেল রানা উপস্থিত ছিলেন।
এ বিষয়ে অতিরিক্ত পুলিশ সুপার অশোক কুমার পাল জানিয়েছেন, আদালতের ১৬৪ ধারায় জবানবন্দী ও ঘটনার পারিপার্শ্বিক তদন্তে হত্যাকান্ডের সাথে কেয়ারটেকার জড়িত থাকার প্রমান পাওয়া গেছে। থানা পুলিশের ওপর আস্থা না থাকলে বাদী পক্ষ আদালতে পুলিশের অন্য কোন সংস্থার মাধ্যমে তদন্তের আবেদন করতে পারেন। এক প্রশ্নের জবাবে তিনি জানান, বাদীর কথা মতো নিরীহ কোন ব্যাক্তিকে হয়রানী করার প্রশ্নই উঠে না। কারণ আমরা তদন্তে একজনই ওই হত্যাকান্ডের সাথে জড়িত থাকার যথেষ্ট প্রমান পেয়েছি।
উল্লেখ্য, গত ২৭ জানুয়ারী ভোর রাতে জানুয়ারী নীলফামারীর সৈয়দপুর উপজেলার খাতামধুপুর ইউনিয়নের বালাপাড়া গ্রামের নিজ খামারে পানি উন্নয়ন বোর্ডের অবসরপ্রাপ্ত কর্মচারী নজরুল ইসলাম ও তার স্ত্রী সালমা বেগমকে কুপিয়ে হত্যা করে দুবৃত্তরা। এসময় কেয়ারটেকার আব্দুর রাজ্জাক গুরুতর আহত হন। ঘটনার রাতেই নিহত দম্পতির মেজো ছেলে সোহেল রানা বাদী হয়ে কেয়ারটেকার রাজ্জাকসহ চারজনকে আসামী করে একটি হত্যা মামলা দায়ের করেন।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ