• মঙ্গলবার, ২৪ মে ২০২২, ০১:৪৩ পূর্বাহ্ন |

‘বিমানবন্দরে সেবার মান উন্নত হবে’

সিসি ডেস্ক।। বিমানবন্দরে গ্রাউন্ড হ্যান্ডলিং সেবার একক আধিপত্য হারাচ্ছে বাংলাদেশ বিমান। এ খাতে তিন ক্যাটাগরিতে লাইসেন্স দেয়ার বিধান রেখে খসড়া নীতিমালা তৈরি করেছে বেসামরিক বিমান চলাচল মন্ত্রণালয়। এর বাস্তবায়ন হলে বিমানবন্দরে সেবার মান উন্নত হবে বলে মনে করছেন প্রতিমন্ত্রী মো. মাহবুব আলী।
সেবার মান যাই হোক না কেন, এই ভূখণ্ডে অবতরণ বা উড্ডয়ন, সবক্ষেত্রেই দেশ-বিদেশের এয়ারলাইন্সকেই নির্ভর করতে হয় বিমান বাংলাদেশের গ্রাউন্ড হ্যান্ডলিং সেবার ওপর। রাষ্ট্রীয় পতাকাবাহী সংস্থা বিমানের সবচেয়ে বড় আয়ের উৎসও এই খাত।
তবে বিমানের এই একক আধিপত্ত আর থাকছে না। এখাতে আসার সুযগ পাচ্ছে বেসরকারি প্রতিষ্ঠানও। খসড়া নীতিমালায়, অভ্যন্তরীণ ও আন্তর্জাতিক ফ্লাইটে এ ক্যাটাগরির লাইসেন্স পেতে পরিশোধিত মূলধন নূন্যতম দুইশ কোটি আর বি ক্যাটাগরিতে মূলধন হতে হবে নূন্যতম ৫০ কোটি টাকা। এছাড়া, মাসিক রাজস্ব আয়ের ৫ শতাংশ দিতে হবে বেসামরিক বিমান চলাচল কর্তৃপক্ষকে।
দেশের বিমানবন্দরগুলোতে সেবার মান উন্নয়ন ও আধুনিক করতেই এ উদ্যোগ নেয়া হচ্ছে বলে জানিয়েছেন বেসামরিক বিমান চলাচল প্রতিমন্ত্রী।
গ্রাউন্ড হ্যান্ডলিং ব্যবস্থাপনায় একাধিক প্রতিষ্ঠান যুক্ত থাকলে তা প্রতিযোগিতামূলক হবে বলে মত বিশেষজ্ঞদেরও।
২০১৬-১৭ অর্থবছরে শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে নিজেদের ১৬ হাজার ৪৭৩টি এবং ২৬টি বিদেশি এয়ারলাইনসের ৪৮ হাজার ৫০২টি ফ্লাইটকে গ্রাইন্ড হ্যান্ডলিং সেবা দিয়েছে বিমান। এতে তাদের বার্ষিক আয় দাঁড়িয়েছে প্রায় ৫০০ কোটি টাকা।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ