• মঙ্গলবার, ০৭ জুলাই ২০২০, ০১:১৯ পূর্বাহ্ন |

উড়োজাহাজ ছিনতাই মামলা কাউন্টার টেরোরিজমে হস্তান্তর

Red Chilli Saidpur

সিসি ডেস্ক, ২৭ ফেব্রুয়ারী।। রোববার বাংলাদেশ বিমানের উড়োজাহাজ ছিনতাই চেষ্টার ঘটনায় মামলাটি কাউন্টার টেরোরিজম ইউনিটে হস্তান্তর করা হয়েছে। আর তদন্ত কর্মকর্তা নিয়োগ করা হয়েছে সংস্থাটির পরিদর্শক রাজেশ বড়ুয়াকে। তবে মামলার এজাহারে উল্লেখ করা বিভিন্ন তথ্য এবং নিহত পলাশের অজ্ঞাতনামা সহযোগীদের আসামি করায় নানা প্রশ্নর জন্ম দিয়েছে।
রোববার রাতে কমান্ডো অভিযান শেষ হবার পর নিহত পলাশের কাছে শুধু পিস্তল থাকার কথা বলেছিলেন অপারেশন তদারকির দায়িত্বে থাকা উর্ধতন কর্মকর্তারা। কিন্তু একদিন পরই সিভিল এভিয়েশনের করা মামলার এজাহারে পিস্তল নয় বোমা সদৃশ বস্তু এবং অস্ত্রের কথা উল্লেখ করা হয়।
এজা্হার উল্লেখ করা সময় হিসাব করে দেখা যায়, ঢাকা থেকে উড্ডয়ন এবং চট্টগ্রামে অবতরণে উড়োজাহাজের সময় লেগেছে ২৮ মিনিট। বিমান উড্ডয়নের ১৫ মিনিট পরই অজ্ঞাতনামা দুষ্কৃতিকারী বোমা সদৃশ বস্তু ও অস্ত্র নিয়ে বিমান ছিনতাইয়ের চেষ্টা করেছে মর্মে এয়ার ট্রাফিক কন্ট্রোল ও বিমানের পাইলটের কথোপকথনের উদ্ধতি দেওয়া হয় এজাহারে।
কিন্তু অবতরণের আগেই বিমান বন্দরের নিজস্ব নিরাপত্তা কর্মীরা রানওয়ে ও এপ্রোণে সতর্ক ন নেয়। পরবর্তীতে তারা বিমানের জরুরী নামার পথ দিয়ে বিমানের ডানায় অবস্থান নেওয়া যাত্রী-ক্রুদের সিড়ি লাগিয়ে নামিয়ে আনে।
এজাহারে আরও আছে, ছিনতাইকারী তার সঙ্গে থাকা দুইটি পটকাজাতীয় বস্তুর বিস্ফোরণ ঘটায় বিমান আকাশে থাকা অবস্থায়। কিন্তু ছিনতাইকারীকে হত্যার পর দেয়া ব্রিফিং এ এই বিস্ফোরণের কোনো উল্লেখ ছিল না। ঘটনার ২৭ ঘন্টা পর মামলা হয়, কিন্তু ৩৬ ঘন্টা পরও কোনো আলামত জমা হয়নি পুলিশের কাছে।


আপনার মতামত লিখুন :

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

আর্কাইভ