চাহিদা না থাকায় বন্ধের পথে সৈয়দপুরের বেসরকারি পাটকল

 
 

সিসি নিউজ, ২৬ মার্চ।। প্লাস্টিক পণ্যের ব্যবহার বেড়ে যাওয়ায় লোকসানের মুখে নীলফামারী জেলার ৬টি পাটকল। বন্ধ হওয়ার আশঙ্কায় ব্যক্তি মালিকানাধীন এসব প্রতিষ্ঠান। এরই মধ্যে কমে গেছে পাটকলগুলোর ৭৫ শতাংশ উৎপাদন। ফলে, কর্মসংস্থান হারানোর শঙ্কায় রয়েছেন প্রায় ১০ হাজার শ্রমিক।
নীলফামারী কৃষি বিভাগ সূত্র মতে, প্রতি বছরই নীলফামারীতে বাড়ছে পাটের আবাদ। দাম ভালো পাওয়ায় অর্থকরী ফসলের প্রতি আগ্রহ বাড়ছে কৃষকদের। ফলে সহজে কাঁচামাল পাওয়ায় সৈয়দপুর ও নীলফামারী সদরে গড়ে উঠেছে ৬টি বেসরকারি পাটকল। এসব পাটকলে কাজ করেন প্রায় ১০ হাজার শ্রমিক, যারা তৈরি করছেন বস্তা, সুতা, ব্যাগসহ বিভিন্ন পাটের পণ্য।
অপর একটি সূত্র মতে, কিছু নির্দিষ্ট পণ্য বাজারজাত করতে পাটের ব্যাগ ব্যবহারের বাধ্যবাধকতা থাকলেও, অনেক ক্ষেত্রেই তা মানা হচ্ছে না। প্লাস্টিক ব্যাগের ব্যবহার অব্যাহত থাকায় লোকসানের মুখে পড়েছে পাটকলগুলো।

মেসার্স এনডি জুট মিলের মালিক রাজ কুমার পোদ্দার জানান, কাঁচামালের দাম বেশি হওয়ার পাশাপাশি বাজারে পাট পণ্যের চাহিদা কমে যাওয়ায় কোটি কোটি টাকার পাটজাত পণ্য অবিক্রিত অবস্থায় পড়ে আছে। এতে বেশিরভাগ পাটকলে ৭৫ শতাংশ উৎপাদন বন্ধ হয়ে গেছে। ফলে, বেকার অবস্থায় অর্থ কষ্টে দিন কাটাচ্ছেন পাটকল শ্রমিকরা।

ইকু জুট মিলের মালিক সিদ্দিকুল আলম জানান, বাংলাদেশের পাট ও পাটপণ্য আমদানিতে ভারত উচ্চমাত্রায় অ্যান্টি-ডাম্পিং শুল্ক আরোপ করায়, এ খাতে নেতিবাচক প্রভাব পড়েছে।
সৈয়দপুর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা এস এম গোলাম কিবরিয়া জানান, পলিথিন ব্যবহার বন্ধ এবং পাট পণ্যের ব্যবহার বাড়াতে মোবাইল কোর্ট পরিচালনাসহ যথাযথ তদারকি করা হচ্ছে। সম্প্রতি শহরের কেন্দ্রীয় বাস টার্মিনাল থেকে ট্রাক ভর্তি নিষিদ্ধ পলিথিন আটক করা হয়েছে ।

Print Friendly, PDF & Email