• মঙ্গলবার, ২৪ মে ২০২২, ০৩:০৩ পূর্বাহ্ন |

জলঢাকায় স্বজনের চোখের জলে শেষ শয্যায় শায়িত রুমকি

।। সাব্বির আহমেদ সাবের ।। বনানীর আগুনে নিহত রুমকির মরদেহ আনা হয়েছে নীলফামারীর জলঢাকা উপজেলার কৈমারী ইউনিয়নের বিন‌্যাকুড়ী গ্রামে। আজ শুক্রবার (২৯ মার্চ) দুপুর ১২টার দিকে মরদেহ বহনকারী এ্যাম্বুলেন্সটি গ্রামের বাড়ী পৌছালে এলাকায় নেমে আসে শোকের ছায়া। রুমকিকে একনজর দেখতে ছুটে আসছেন স্বজন ও প্রতিবেশিরা। জুম্মার নামাজের পর শোকাকূল পরিবেশে জানান শেষ বিদায়।
দুই ভাইয়ের আদরের ছোট বোন রুমকি বেগম। ২০১১ সাল থেকে বনানীর এফ আর টাওয়ারের ১০ম তলায় একটি ট্রাভেলস এজেন্সিতে চাকুরী করতেন রুমকি। ওই ট্রাভেলস এজেন্সিতে চাকুরী করতেন পুরান ঢাকার মোকছেদুর রহমান জেমি। ২০১৬ সালে উভয়ের পছন্দেই বিবাহ বন্ধণে আবদ্ধ হন দুজনই। বৃহস্পতিবারের দূর্ঘটনার সময় অফিসে কর্মরত ছিল উভয়েই। বেলা ৩টার দিকে আগুনে পুড়ে যাওয়ার সময়ই বড় ভাই স্কুল শিক্ষক রওশন আলী রনিকে ফোন দিয়ে বাঁচার আকুতি আর সবার কাছে দোয়া চেয়ে মৃত্যুর কোলে ঢলে পড়ে রুমকি। স্ত্রীর মৃত্যুর পরই ১০ম তলা থেকে লাফ দিয়ে বাঁচার চেষ্টা করে মারা যায় মোকছেদুর রহমান জেমি।

রুমকি নীলফামারী জেলার জলঢাকা উপজেলার কৈমারী ইউনিয়নের বিন্যাকুড়ি গ্রামের কৃষক আশরাফ আলীর মেয়ে। বর্তমান উপজেলা চেয়ারম‌্যান ছৈয়দ আলী শাহ্ এর ভাতিজি। পারিবারিক ভাবে জানা যায়, রোমকি পাঁচ মাসের অন্ত:সত্ত্বা ছিল। চার মাস পূর্বে পৃথিবী ছেড়ে চলে গেছেন মা রিনা বেগম। চলতি মার্চ মাসের ১৫ তারিখে তিন দিনের ছুটিতে গ্রামের বাড়িতে এসেছিল রুমকি।

(ভিডিও দেখতে ক্লিক করুন)


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ