• মঙ্গলবার, ২৪ মে ২০২২, ০৫:৩০ পূর্বাহ্ন |

সৈয়দপুরে স্বপ্নে শেখা কবিরাজের তেলেসমাতি!

।। বিশেষ প্রতিনিধি ।। তার নেই কোন শিক্ষাগত যোগ্যতা, চিকিৎসা সংক্রান্ত সনদ বা ব্যবসায়ীক ট্রেড লাইসেন্স। তারপরও তিনি ব্লাড ক্যান্সার, লিভার ক্যান্সার, হাসপাতাল ফেরত মৃত্যু পথযাত্রী রোগী, প্যারালাইসিস, যৌনরোগ সহ যাবতীয় জটিল ও কঠিন রোগে আক্রান্তদের মাত্র তিন ঘন্টায় আরোগ্য করার চ্যালেঞ্জে চিকিৎসা দিচ্ছেন দোকান খুলে। স্বপ্নে শেখা কবিরাজির দোহাই দিয়ে গাছ-গাছরার ওষুধ দেয়ার নামে হাজার হাজার টাকা হাতিয়ে নিচ্ছেন ভুক্তভোগী দূরারোগ্য নানা রোগে আক্রান্তদের কাছ থেকে। এতে অনেকেই স্বর্বশান্ত হয়েছেন ওই কবিরাজের খপ্পরে পরে। এমনি একজন মহিলার অভিযোগের ভিত্তিতে সরেজমিনে গেলে বেরিয়ে আসে উপরোক্ত তথ্য। ঘটনাটি ঘটেছে ২৯ মার্চ শুক্রবার দুপুরে নীলফামারী জেলার সৈয়দপুর উপজেলার কামারপুকুর ইউনিয়নের সৈয়দপুর-রংপুর মহাসড়কের সাজেদা কোল্ড স্টোরেজের পাশে।
ঘটনাস্থলে গিয়ে দেখা যায়, সাজেদা কোল্ড স্টোরেজের পাশে রাজ্জাক মার্কেটে একটি দোকান ভাড়া নিয়ে ব্যবসা করছেন কবিরাজ মো: শরিফুল ইসলাম। তার বাড়ি দিনাজপুরের নবাবগঞ্জ উপজেলার আবতাবগঞ্জ বাজারে ডিগ্রী কলেজ সংলগ্ন এলাকায়। ৪ মাস থেকে তিনি এখানে তার ব্যবসা শুরু করেছেন। কিন্তু এখন পর্যন্ত তিনি কামারপুকুর ইউনিয়ন পরিষদের কোন ট্রেড লাইসেন্স নেননি। এমনকি চিকিৎসা সংক্রান্ত কোন সার্টিফিকেটও নেই তার।
এ ব্যাপারে জানতে চাইলে কবিরাজ কোন তথ্য দিতে চান না এবং বিভিন্ন জায়গায় মোবাইল করে তার লোকজনকে ডাকতে থাকেন। কিন্তু দীর্ঘ সময়েও কেউ না আসায় আবারও চাপ দিলে দুইজন যুবক এসে হম্বিতম্বি দেখাতে থাকে এবং সাংবাদিকদের চলে যেতে বলেন। না হলে এলাকার লোকজন ডেকে সাংবাদিকদের আটকে রাখা হবে বলে হুমকি দিতে থাকে। এমতাবস্থায় বিষয়টি ইউপি চেয়ারম্যানকে জানালে তিনি তাৎক্ষনিক চৌকিদার পাঠালে ওই যুবকরা পালিয়ে যায়।
পরে চেয়ারম্যান রেজাউল করিম লোকমানের উপস্থিতিতে কবিরাজ জানান, ৩ বছর পূর্বে তিনি তাবলিগে যান ৩ দিনের জন্য। এসময় তিনি স্বপ্নে আদেশ প্রাপ্ত হন আরও ৪০ দিন তাবলিগ করার। তাই তিনি এক চিল্লা (৪০ দিন) এর জন্য আবারও তাবলিগে যান এবং সেখানে ৪০ দিনেই স্বপ্নের মাধ্যমে তিনি উপরোক্ত চিকিৎসা শিখেছেন। তাই তার এ সংক্রান্ত কোন সার্টিফিকেট নাই। একমাত্র সম্বল তার এলাকার জাতীয় সংসদ সদস্য শিবলী সাদিকের দেয়া প্রশংসা পত্র। যেটাও তিনি দেখাতে পারেন নাই, বাড়িতে রেখেছেন। শুধুমাত্র শিবলী সাদিকের সাপ্তাহিক পত্রিকা স্বপ্নপুরীতে দেয়া বিজ্ঞাপনের কপি কবিরাজের টেবিলে শোভা পাচ্ছে এবং সেটাই তিনি প্রয়োজনে দেখান।
তাহলে কিসের ভিত্তিতে সৈয়দপুরে চিকিৎসা দিচ্ছেন এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি জানান, কামারপুুকুর ইউনিয়নের নাজমুল সরকার, সাজেদা কোল্ড স্টোরেজের লেবার সর্দার এনতাজুলসহ স্থানীয় কয়েকজন রোগী উপকার পেয়ে তাকে এখানে ব্যবসা করার ব্যবস্থা করে দিয়েছেন। তাদের সহযোগিতায় তিনি সৈয়দপুরসহ নীলফামারী ও রংপুর জেলার আশেপাশের রোগীদের চিকিৎসা দিয়ে যাচ্ছেন।
এ ব্যাপারে নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক অনেকে জানান, কবিরাজ চিকিৎসার নামে এখানে ফাঁদ পেতে বসেছেন। আর তাকে সহযোগিতা করছেন এলাকার কয়েকজন দালাল প্রকৃতির লোক। যারা কমিশনের মাধ্যমে তাকে স্থান দেন। প্রচার করে বেড়ান যে এই কবিরাজ অত্যন্ত কাজের। তার দ্বারা আমরা নিজেরা উপকৃত হয়েছি। এভাবে রোগী সংগ্রহ করার বিনিময়ে তারাও টু-পাইস কামাচ্ছেন। কেননা কবিরাজ রোগী প্রতি নি¤েœ ৫শ’ টাকা থেকে শুরু করে ৫ হাজার টাকা নেন এক সপ্তাহের ওষুধ বাবদ।
কোন রোগী চিকিৎসায় উপকার না পেয়ে টাকা ফেরত নিতে আসলে তাকে তাড়িয়ে দেয়ার জন্য হায়দার, অনন্তসহ কয়েকজন যুবককে রেখেছেন। যারা কোনরকম অভিযোগ আসলেই তাদের নানাভাবে অপদস্ত করে বা ভয়ভীতি দেখিয়ে অভিযোগকারীকে বিতাড়িত করে। বিশেষ করে দূর-দূরান্ত থেকে আসা রোগীদের ক্ষেত্রে যুবকরা সন্ত্রাসী কায়দায় অবতীর্ণ হয়। যার প্রমান পাওয়া যায় ২৯ মার্চ দুপুর ১২টার দিকে উপস্থিত হয়ে। পরে দালালরা এসে স্থানীয় ব্যক্তি হিসেবে প্রভাব দেখিয়ে কবিরাজের গোমর ফাঁস যেন না হয় সেজন্য সাংবাদিকদের ম্যানেজ করার চেষ্টা করে। এভাবে তারা ইতিপূর্বেও কামারপুকুরের কয়েকজন সাংবাদিককে ম্যানেজ করেছে বলে জানান। এমনকি স্থানীয় একটি সাপ্তাহিক পত্রিকার সম্পাদক ও তার মা এই কবিরাজের চিকিৎসা নিচ্ছেন বলে জানান একজন দালাল। তাদের বক্তব্য হলো- সার্টিফিকেট না থাকলেও তিনি ভালো চিকিৎসা দেন এবং তার বিরুদ্ধে কোন অভিযোগ নাই।
আফরোজা নামের এক রোগী দীর্ঘ প্রায় ৩ মাস যাবত ওই কবিরাজের কাছে চিকিৎসা নিচ্ছেন। প্রতি শুক্রবার ওষুধ নিতে গেলেই তার কাছ থেকে ১ হাজার থেকে ২ হাজার টাকা দিতে হয়েছে। কিন্তু তারপরও চিকিৎসায় কোন উন্নতি হয়নি। এমনকি ওই কবিরাজ চিকিৎসার নামে মহিলা রোগীর শরীরেও হাত দেয় বলে অভিযোগ তার। এমতাবস্থায় বিষয়টি তদন্ত পূর্বক আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণে প্রশাসনের হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন তিনি।
এ ব্যাপারে সৈয়দপুর থানার অফিসার ইনচার্জ শাহজাহান পাশা জানান, নিরীহ মানুষকে প্রতারণা করার এমন ঘটনা ঘটলে তা অবশ্যই প্রতারককে আইনের আওতায় নেয়া হবে।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ