ধর্ষণের মতো অপরাধের মীমাংসা সালিশে কেন: হাইকোর্ট

 
 

সিসি ডেস্ক, ১৭ এপ্রিল।। নোয়াখালীর সুবর্ণচর উপজেলার মোহাম্মদপুর ইউনিয়নে চরমাকসুমুল গ্রামের এক গৃহবধূকে ‘ধর্ষণের’ পর বিষপানে তার আত্মহত্যার ঘটনায় রুল জারি করেছেন হাইকোর্ট।

রুলে ধর্ষণ ও আত্মহত্যার ওই ঘটনায় দায়ীদের বিরুদ্ধে প্রয়োজনীয় আইনগত ব্যবস্থা নিতে বিবাদীদের নিষ্ক্রিয়তা ও ব্যর্থতা কেন অবৈধ হবে না এবং ধর্ষণের মতো জঘন্য অপরাধ মীমাংসার নামে তথাকথিত সালিশি বৈঠক কেন আইনগত কর্তৃত্ববহির্ভূত ঘোষণা করা হবে না, তা জানতে চেয়েছেন আদালত।

শুনানিতে একের পর এক ধর্ষণ ও নারী নির্যাতনের ঘটনায় উদ্বেগ জানিয়ে আদালত বলেন, আমাদের নৈতিক অবক্ষয় দেখা দিয়েছে। এ জন্য ছাত্র-শিক্ষক, অভিভাবক, প্রতিষ্ঠানের গভর্নিং বডি ও রাজনীতিবিদদের সচেতন হতে হবে।

বিচারপতি এফ আর এম নাজমুল আহাসান ও বিচারপতি কে এম কামরুল কাদেরের সমন্বয়ে গঠিত হাইকোর্ট বেঞ্চ মঙ্গলবার এ মন্তব্য করেন।

এলজিআরডি সচিব, নোয়াখালীর জেলা প্রশাসক, সুবর্ণচরের ওসি, ওই ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান, স্থানীয় ইউপি সদস্যসহ সংশ্লিষ্টদের রুলের জবাব দিতে বলা হয়েছে।

গত ৪ মার্চ আইনজীবী মুনতাসীর মাহমুদ রহমান এ বিষয়ে পত্রিকায় প্রকাশিত প্রতিবেদন যুক্ত করে হাইকোর্টে রিট আবেদনটি করেন।

প্রকাশিত খবরে বলা হয়, নোয়াখালীর সুবর্ণচর উপজেলার মোহাম্মদপুর ইউনিয়নে এক গৃহবধূ বিষপানে আত্মহত্যা করেছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। তবে পরিবারের দাবি, স্বামীর সঙ্গে স্থানীয় নির্বাচন নিয়ে দ্বন্দ্বের জেরে ধর্ষণের শিকার হয়েছেন গৃহবধূ পলি আক্তার। পরে বিষপান করে আত্মহত্যা করেন তিনি।

১ মার্চ রাতে ইউনিয়নের চর মাকসুমুল গ্রামে ধর্ষণের ঘটনার পর ২ মার্চ সকালে ওই গৃহবধূ বিষপান করেন। পরে নোয়াখালী জেনারেল হাসপাতালে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন।

ওই গৃহবধূর পারিবারিক সূত্র জানায়, শুক্রবার রাতে বাড়িতে কেউ না থাকার সুযোগে একই এলাকার আলাউদ্দিন ঘরে ঢুকে পলি আক্তারকে ধর্ষণ করে। এর মধ্যে তার স্বামী সোহাগ বাড়িতে এসে স্ত্রীর চিৎকার শুনতে পান এবং বিষয়টি বুঝতে পেরে আশপাশের লোকজন ডেকে আলাউদ্দিনকে আটক করেন।

একপর্যায়ে পার্শ্ববর্তী ওয়ার্ডের নুরু মেম্বারসহ এলাকার গণ্যমান্য ব্যক্তিরা ওই রাতেই ধর্ষককে মারধর এবং ৬০ হাজার টাকা জরিমানা করে ছেড়ে দেন। পরদিন সকালে ওই গৃহবধূ বিষপান করলে তাকে পরিবারের লোকজন নোয়াখালী জেনারেল হাসপাতালে নিয়ে গেলে কর্মরত চিকিৎসক মৃত বলে ঘোষণা করেন।

Print Friendly, PDF & Email