সেই ‘ডাকাত ওসি’ প্রত্যাহার

 
 

সিসি ডেস্ক, ১৮ এপ্রিল।। গাজীপুর মহানগর পুলিশের গাছা থানার পরিদর্শক (অপারেশনস) মো. রফিকুল ইসলামকে প্রত্যাহার করা হয়েছে। তার বিরুদ্ধে নিরীহ মানুষজনকে ধরে থানায় এনে টাকার বিনিময়ে ছেড়ে দেওয়া, ফুটপাত ও অটোরিকশায় চাঁদাবাজিসহ নানা অপকর্মের অভিযোগ ছিল। স্থানীয় লোকজন তাকে চিনত ‘ডাকাত ওসি’ হিসেবে।

গাছা জোনের সহকারী কমিশনার মো. আশরাফ-উল-ইসলাম জানিয়েছেন, দুই মাদক কারবারিকে গ্রেপ্তারের পর ছেড়ে দেওয়ার অভিযোগে পুলিশ কমিশনারের নির্দেশে মঙ্গলবার রাতে তাকে প্রত্যাহার করা হয়।

জানা গেছে, সোমবার রাত ৮টার দিকে গাছা এলাকা থেকে দুই মাদক কারবারিকে শতাধিক ইয়াবাসহ আটক করেন পরিদর্শক রফিকুল ইসলাম। গাড়িতে তুলে বিভিন্ন স্থানে ঘুরিয়ে সময়ক্ষেপণ করেন। থানায় না এনে রাত ১০টার দিকে ৩৬ নম্বর ওয়ার্ডের কাউন্সিলর মো. আলমগীর হোসেনের মধ্যস্থতায় মোটা টাকা নিয়ে তাদের ছেড়ে দেন।  ঘটনাটি জানাজানি হলে প্রাথমিক তদন্তে সত্যতা পেয়ে পুলিশ কমিশনার মো. আনোয়ার হোসেনের নির্দেশে তাকে প্রত্যাহার করা হয়।

গাছা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) ইসলাইল হোসেন জানান, মাদক উদ্ধার অভিযান এবং দুই মাদক কারবারিকে গ্রেপ্তার ও ছেড়ে দেওয়ার প্রসঙ্গে পরিদর্শক রফিকুল ইসলাম তাকে কিছুই জানায়নি। এলাকাবাসী ঘটনাটি পুলিশ কমিশনারকে জানায়। তিনি ঘটনাটি তদন্ত করে দেখতে গাছা জোনের সহকারী কমিশনারকে নির্দেশ দেন।

গাছা জোনের সহকারী কমিশনার আশরাফ-উল-ইসলাম বলেন, পুলিশ কমিশনারের নির্দেশে তিনি ঘটনাস্থলে গিয়ে অভিযোগের সত্যতা পেয়ে পুলিশ কমিশনারকে জানান। ওই প্রেক্ষিতে পুলিশ কমিশনার রাতেই তাকে প্রত্যাহার করেন। রফিকের বিরুদ্ধে এ ধরনের বহু অভিযোগ রয়েছে।

রফিকের যত অপকর্ম
২০১৮ সালের ১৬ সেপ্টেম্বর গাজীপুর মেট্রোপলিটন পুলিশের যাত্রা শুরু হলে ২৭ সেপ্টেম্বর গাছা থানার পরিদর্শক (অপারেশনস) হিসেবে যোগ দেন রফিকুল ইসলাম। যোগ দিয়ে শুরু করেন নিরীহ সাধারণ মানুষকে গ্রেপ্তার বাণিজ্য এবং ফুটপাত, ব্যাটারিচালিত রিকশা, কেরাম বোর্ড, পলিথিন ব্যবসাসহ বিভিন্ন স্থানে চাঁদাবাজি। কেউ তার কাজের প্রতিবাদ বা বিরুদ্ধচারণ করলে ধরে এনে থানায় অমানুষিক নির্যাতন করতেন। পরিদর্শক (অপারেশনস) পদে থাকলেও মানুষকে পরিচয় দিতেন ‘ওসি’ হিসেবে। অল্পদিনেই এলাকার মানুষের কাছে তিনি পরিচিত হয়ে উঠেন ‘ডাকাত ওসি’ হিসেবে।

গত ২১ জানুয়ারি রাতে মোবাইল চোর সন্দেহে শরীফপুর এলাকার ফিরোজ হাওলাদারের বাড়ির ভাড়াটিয়া মুন্নাকে ডেকে নিয়ে মারধরের ভয় দেখায় পাশের নির্মাণাধীন একটি ভবনের এক শ্রমিকসহ স্থানীয় কয়েক যুবক। পরদিন বিকেল থেকে নিখোঁজ হয় মুন্না। এ ঘটনায় ২৪ জানুয়ারি চারজনকে আসামি করে গাছা থানায় মামলা করেন মুন্নার মা। পুলিশ ওই দিনই তিন আসামিকে গ্রেপ্তার করে। কিন্তু ৩০ জানুয়ারি মুন্নার ভাড়াবাসার মালিক ফিরোজ হাওলাদারকে জিজ্ঞাসাবাদের নাম করে বাসা থেকে আটক করে থানায় নিয়ে আসেন মামলার তদন্ত কর্মকর্তা পরিদর্শক রফিকুল ইসলাম। হাজতে আটকে রেখে মুন্নাকে অপহরণ ও গুমের মামলায় জড়িয়ে দেওয়ার ভয় দেখিয়ে চোখ বেঁধে নির্যাতন করে মোটা টাকা ঘুষ দাবি করেন। টাকা দিয়ে একদিন পর ছাড়া পান ফিরোজ।

একই মামলায় জড়িয়ে দেওয়ার ভয় দেখিয়ে তিনি ইউসুফ নামে এলাকার এক ব্যক্তির বাড়িতে রাতে গিয়ে জিনিসপত্র তছনছ এবং পরিবারের সদস্যদের গালাগাল ও হয়রানি করে। ইউসুফের স্ত্রী বলেন, ঘটনার রাতে তার স্বামী বাসায় ছিলেন না। মাঝরাতে সাদা পোশাকে পুলিশ দরজা খুলতে বলে। দেরি হওয়ায় পরিদর্শক রফিক ছেলে-মেয়েদের সামনেই ঘরে ঢুকে তাকে অশ্লীল গালাগাল ও মারতে উদ্যত হন। স্বামীকে না পেয়ে কোমরে রশি লাগিয়ে তাঁকে টেনে-হিঁচড়ে থানায় নিয়ে যাওয়ার ভয় দেখান। বাড়ির জিনিসপত্র তছনছ করেন। তার বিরুদ্ধে এ ধরনের ভুরি ভুরি অভিযোগ রয়েছে।

গাছা এলাকার এক রিকশা গ্যারেজ মালিক নাম না প্রকাশ করার শর্তে বলেন, তার মতো খারাপ পুলিশ কর্মকর্তা জীবনে দেখেননি। ব্যাটারির রিকশা, কেরাম বোর্ড, এমনকি মুদি দোকানের পলিথিন রাখার কারণে তাকে মাসিক চাঁদা দিতে হতো। টাকা না দিলে ধরে নিয়ে বেদম লাঠিপেটা করতেন তিনি। এলাকার মাদক কারবারিদের সাথে তার ছিল সখ্যতা। তার প্রত্যাহারে এলাকার মানুষের মধ্যে স্বস্তি ফিরেছে।

কালেরকন্ঠ

Print Friendly, PDF & Email

 
 
 
 
 
 
 
 

error: Content is protected !!