লাইফ সাপোর্টে এটিএম শামসুজ্জামান

 
 

ঢাকা, ৩০ এপ্রিল।। হঠাৎ অসুস্থ হয়ে হাসপাতালে ভর্তি হওয়া ঢাকাই চলচ্চিত্রের কিংবদন্তী অভিনেতা এটিএম শামসুজ্জামানকে রাজধানীর গেণ্ডারিয়ার আজগর আলী হাসপাতালে লাইফ সাপোর্টে রাখা হয়েছে।

মঙ্গলবার সন্ধ্যায় এটিএম শামসুজ্জামানের ছোট ভাই ও শেখ রাসেল ক্রীড়া চক্রের পরিচালক সালেহ জামান সেলিম সাংবাদিকদের বিষয়টি নিশ্চিত করেন।

তিনি জানান, শনিবার (২৭ এপ্রিল) এটিএম শামসুজ্জামানর একটি অপারেশন হয়। এরপর তাকে হাসপাতালের নিবিড় পরিচর্যা কেন্দ্রে (আইসিইউ) রাখা। তার শ্বাস নিতে কষ্ট হচ্ছে। মঙ্গলবার দুপুরে হঠাৎ কিংবদন্তি এই অভিনেতার শারীরিক অবস্থার অবনতি ঘটলে দুপুর আড়াইটার দিকে তাকে লাইফ সাপোর্ট দেয়া হয়েছে।

এটিএম শামসুজ্জামানের ছোট ভাই জানান, বার্ধক্যজনিত কারণে এটিএম শামসুজ্জামান নানা শারীরিক জটিলতায় ভুগছিলেন। শুক্রবার (২৬ এপ্রিল) রাতে তিনি অস্বস্তিবোধ করছিলেন। পরে তাকে চিকিৎসার জন্য নিয়ে গেলে চিকিৎসক হাসপাতালে ভর্তির পরামর্শ দেন।

গুণী এই অভিনেতা হাসপাতালটির প্রফেসর ডা. রাকিব উদ্দিনের তত্ত্বাবধানে চিকিৎসাধীন রয়েছেন।

প্রসঙ্গত, পাঁচ ভাই ও তিন বোনের মধ্যে এটিএম শামসুজ্জামান সবার বড়। ১৯৬১ সালে পরিচালক উদয়ন চৌধুরীর বিষকন্যা চলচ্চিত্রে সহকারী পরিচালক হিসেবে চলচ্চিত্র জীবন শুরু করেন। প্রথম কাহিনী ও চিত্রনাট্য লিখেছেন জলছবি চলচ্চিত্রের জন্য। ছবির পরিচালক ছিলেন নারায়ণ ঘোষ মিতা, এ ছবির মাধ্যমেই অভিনেতা ফারুকের চলচ্চিত্রে অভিষেক।

এ পর্যন্ত শতাধিক চিত্রনাট্য ও কাহিনী লিখেছেন তিনি। প্রথম দিকে কৌতুক অভিনেতা হিসেবে চলচ্চিত্র জীবন শুরু করলেও ১৯৬৫ সালে অভিনেতা হিসেবে চলচ্চিত্র পর্দায় আগমন তার। ১৯৭৬ সালে চলচ্চিত্রকার আমজাদ হোসেনের নয়নমণি চলচ্চিত্রে খলনায়কের চরিত্রে অভিনয়ের মাধ্যমে আলোচনায় আসেন তিনি।

১৯৮৭ সালে কাজী হায়াত পরিচালিত দায়ী কে? চলচ্চিত্রে অভিনয় করে শ্রেষ্ঠ অভিনেতা বিভাগে জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার পান। তিনি রেদওয়ান রনি পরিচালিত চোরাবালিতে অভিনয় করেন ও শ্রেষ্ঠ পার্শ্ব-চরিত্রে অভিনেতা বিভাগে জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার পান।

Print Friendly, PDF & Email