• মঙ্গলবার, ২৪ মে ২০২২, ০৬:৫২ পূর্বাহ্ন |

চিলমারীতে আশ্রয়ণ প্রকল্পের বেহাল দশা

হাবিবুর রহমান, চিলমারী (কুড়িগ্রাম)।। নদী ভাঙ্গনে সর্বশান্ত মানুষ গুলো জমি, ঘরবাড়ি হারিয়ে যখন নিঃস্ব হয়ে পড়েছিল। ছিল না থাকার কোন স্থান একটু আশ্রয়। ঠিক তখনি এগিয়ে আসে বর্তমান সরকার হাত বাড়িয়ে দেয় মানবতার। সেই সাথে অসহায় আশ্রয়হীন মানুষের জন্য তৈরি করেন আশ্রয়ণ কেন্দ্র থাকার জন্য তৈরি করেন ব্যারাক। কিন্তু শুরুতে অনিয়ম আর তালিকায় অনিয়মের ফলে ভেস্তে যেতে বসেছে সরকারের উদ্দেশ্য। এদিকে নির্মানের পর থেকে আশ্রয়ণ প্রকল্প সংস্কার না করায় সেগুলোর জরাজীর্ণ হয়ে পড়েছে। ব্যবহারিক সকল জিনিস পত্র (টিউবয়েল, ল্যাট্রিন) গুলোও অকেজ হয়ে পড়েছে। প্রকল্পের বাসিন্দাদের অভিযোগ, জেলা ও উপজেলা প্রশাসন বিষয়টি জানালেও ঘর, মাঠ, টিউবয়েল, ল্যাট্রিন মেরামতের কোনো উদ্যোগ নেননি। ফলে আশ্রিতরা মানবেতর জীবন যাপন করছেন। এছাড়াও থাকার কোন পরিবেশ না থাকায় অনেকেই ছেড়ে গেছেন আশ্রয়ণ প্রকল্প থেকে।
উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন অফিস সুত্রে জানা গেছে, আশ্রয়ণ প্রকল্পের অধিনে উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন অফিসের বাস্তবায়নে মাটির কাজ শেষ হলে বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর সদস্যদের তত্ত্বাবধানে কুড়িগ্রামের চিলমারী উপজেলার আশ্রয়ণ প্রকল্পের ব্যারাক গুলো নির্মিত হয়। এর মধ্যে ২০১১/১২ অর্থ বছরে উপজেলার চিলমারী ইউনিয়নের বিশার পাড়া ও ২০১০/১১ অর্থ বছরে শাখাহাতী আশ্রয়ণ প্রকল্পটি নির্মান হলেও তা এখন বেহাল দশায় পরিনত হয়েছে। শাখাহাতী আশ্রয়ণ প্রকল্পটির অধিনে উক্ত সময় ১২টি ব্যারাকে ১২০টি ও বিশার পাড়া আশ্রয়ণ প্রকল্পে ২০টি ব্যারাকে ১শতটি পরিবারকে পূর্নবাসিত করা হয়। কিন্তু পূর্নবাসিত করার সময় তালিকায় অর্থসহ অনিয়ম করায় প্রকৃত সুবিধাভূরা এই সুবিধার বাহিরে থাকাসহ পরিচর্যা বা কোন অনুদান না পাওয়ায় অবহেলায় অবহেলায় দিনের পর দিন অকেজ হয়ে পড়ে ব্যবহারিক জিনিসপত্র ও টিউবয়েল ও ল্যাট্রিন এছাড়া ঘর গুলো হয়ে পড়ে থাকার অনুপযোগী। মঙ্গলবার বিশার পাড়া, শাখাহাতী আশ্রয়ণ প্রকল্প গুলো ঘুরে দেখা যায় বেশির ভাগ ব্যারাক জরাজীর্ণ হয়ে পড়েছে। দরজা-জানালার কপাট ভেঙ্গে গেছে। টিউবয়েল, ল্যাট্রিন ভেঙ্গে নষ্ট হয়ে গেছে মাটি সরে ডেবে যাচ্ছে। এ সময় আশ্রয়ণ প্রকল্পের কয়েকজন বাসিন্দা বলেন, বর্ষা মৌসুমে ঘরের ভিতর পানি পড়ে। শীতের সময় ঠান্ডা লাগে। ল্যাট্রিন গুলো ব্যবহারের অনুপযোগী এবং টিউবয়েল গুলো নষ্ট হয়ে পড়ে আছে। তবে এলাকার বেশ কিছু মানুষজন জানান নিয়ম নীতি তোক্কা না করে মাটি ভরাট কাজ সমাপ্ত তালিকায় অনিয়ম করায় বেশির ভাগ আশ্রিতরা অন্যত্র থাকাসহ মেরামত না করায় আশ্রয়ণ প্রকল্পের ব্যারাক গুলোর বেহাল দশায় পরিনত হয়েছে। এব্যাপারে উপজেলা নির্বাহী অফিসার শাহ মোঃ শামসুজ্জোহার সাথে কথা হলে তিনি জানান সরেজমিন ঘুরে যথাযথ কর্তৃপক্ষের সাথে কথা বলে ব্যবস্থা নেয়া হবে।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ