সৈয়দপুর ১৬ প্রহরব্যাপী নাম যজ্ঞ ও লীলা কীর্তন উৎসব

 
 

বিশেষ প্রতিনিধি, ১২ মে ।। নীলফামারীর সৈয়দপুরে ১৬ প্রহরব্যাপী বিশ^ শান্তি কল্পে কলিযুগে জীবনের মুক্তি কামনায় শ্রী শ্রী মহানাম যজ্ঞ অনুষ্ঠান ও অষ্টকালীন লীলা কীর্তন উৎসব অনুষ্ঠিত হয়েছে। উপজেলার বাঙ্গালীপুর ইউনিয়নের চৌমহনী বাড়াইশাল মাঝাপাড়ায় ৩ দিন ব্যাপী অনুষ্ঠিত এ নাম যজ্ঞ অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন বাঙ্গালীপুর ইউনিয়নের সম্ভাব্য চেয়ারম্যান প্রার্থী সমাজ সেবক ও দলিল লেখক শামসুল হক সরকার। বিশেষ অতিথি ছিলেন বাঙ্গালীপ্রু ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান শ্রী প্রণবেশ চন্দ্র বাগচী ও সাংবাদিক দুলাল সরকার।
প্রতিদিন উৎসবে দেশের বিভিন্ন স্থান থেকে আগত কীর্তন শিল্পীরা তাদের কীর্তন পরিবেশন করেন। এসময় সৈয়দপুরের সর্বস্তরের সনাতনধর্মাবলম্বীরাসহ ধর্ম-বর্ণ, দল-মত নির্বিশেষে আপামর জনসাধারনের সমাগম হয়। প্রায় দিনই বিশেষ করে সন্ধা থেকে গভীর রাত পর্যন্ত উৎসব প্রাঙ্গণে কৃষ্ণ ভক্তদের উপচেপড়া ভীড় লক্ষ করা যায়।
দ্বিতীয় দিন গত ৮ মে রাতে উৎসব প্রাঙ্গনে উপস্থিত হয়ে অনুষ্ঠানের প্রধান অতিথি শামসুল হক সরকার আগতদের উদ্দেশ্যে বলেন, বাঙ্গালীপুর ইউনিয়নকে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ঘোষিত ডিজিটাল বাংলাদেশের আদলে ডিজিটাল ইউনিয়নে রুপান্তরের লক্ষ্যে আমি কাজ করছি। এযাবত ইউনিয়নের যে কোন ধর্মীয় অনুষ্ঠানসহ, সামাজিক সাংস্কৃতিক ও ক্রীড়া বিষয়ক অনুষ্ঠান এবং দরিদ্র ব্যক্তিদের বিবাহ, সৎকাজসহ নানা ধরণের সমস্যায় সার্বিক সহযোগিতা প্রদান করছি। এরই ধারাবাহিকতায় এই নাম যজ্ঞ অনুষ্ঠানেও যথাসাধ্য সহযোগিতার হাত বাড়িয়ে দিয়েছি। আগামীতে আরও ব্যাপক আয়োজনের মাধ্যমে এখানে অনুষ্ঠান করার ইচ্ছা রাখি। যাতে হিন্দু-মুসলিম সকল ভেদাভেদ ভুলে বাঙ্গালীয়ানায় মেতে উঠে বাঙ্গালীপুরকে একটি মডেল ইউনিয়ন হিসেবে তুলে ধরা যায়। এজন্য আগামীতে আরও নানামুখী কর্মকান্ড পরিচালনাসহ ব্যাপক পরিকল্পনা রয়েছে আমার। তারই আলোকে আজ আপনাদের প্রতিশ্রুতি দিচ্ছি যে আমি যদি চেয়ারম্যান নির্বাচিত হই তাহলে ইউনিয়নে একটি ১০ শয্যা বিশিষ্ট হাসপাতাল এবং সেখানে সার্বক্ষনিক চিকিৎসকসহ একটি এ্যাম্বুলেন্স এর ব্যবস্থা করা হবে। সেসাথে সনাতনধর্মাবলম্বী অধ্যুষিত এ ইউনিয়নে একটি কেন্দ্রীয় শ^শ্মান প্রতিষ্ঠা করা হবে। যাতে ইউনিয়নের সকল এলাকার হিন্দু ধর্মীয় লোকজন তাদের স্বজনদের সৎকার করার ক্ষেত্রে একটি নির্দিষ্ট স্থানে উপস্থিত হয়ে সম্মিলিতভাবে তা সম্পাদন করতে পারে।
প্রধান অতিথির এধরণের প্রতিশ্রুতির সাথে সাথে উপস্থিত লোকজন অত্যন্ত সাধুবাদ জানিয়ে তার সর্বাঙ্গিন মঙ্গল কামনা করেন এবং ডিজিটাল বাঙ্গালীপুর ইউনিয়ন গড়ার ক্ষেত্রে তারা নতুন আশায় বুক বেধে বাড়ি ফেরে।

Print Friendly, PDF & Email