মধুর ক্যান্টিনের হামলার ঘটনায় ছাত্রলীগের ৫ নেতা বহিষ্কার

 
 

ঢাকা, ২১ মে ।। ছাত্রলীগের পূর্ণাঙ্গ কমিটি ঘোষণার দিন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের (ঢাবি) মধুর ক্যান্টিনে ছাত্রলীগের পদবঞ্চিতদের উপর হামলার ঘটনায় ছাত্রলীগের একজনকে স্থায়ী ও চারজনকে সাময়িক বহিষ্কার করা হয়েছে। এছাড়া দুজনকে কারণ দর্শানোর (শো কজ) নোটিশ পাঠানো হয়েছে।

সোমবার রাতে সংগঠনের সভাপতি রেজওয়ানুল হক চৌধুরী শোভন ও সাধারণ সম্পাদক গোলাম রাব্বানী স্বাক্ষরিত এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়।

বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, বাংলাদেশ ছাত্রলীগ কেন্দ্রীয় নির্বাহী সংসদের এক জরুরী সিদ্ধান্ত মোতাবেক জানানো যাচ্ছে যে, বিগত ১৩ মে সোমবার ইফতার পরবর্তী সময়ে মধুর ক্যান্টিনে সংগঠিত অনাকাঙ্ক্ষিত এবং অপ্রীতিকর ঘটনা তদন্তের নিমিত্তে গত ১৩ মে গঠিত ০৩ (তিন) সদস্য বিশিষ্ট তদন্ত কমিটির রিপোর্ট পর্যালোচনা করে তাদের সুপারিশের ভিত্তিতে ৫ জনকে বহিষ্কার করা হয়েছে।

স্থায়ীভাবে বহিষ্কার করা হয়েছে, জিয়া হল ছাত্রলীগের কর্মী সালমান সাদিককে। সাময়িক বহিষ্কার করা হয়েছে, বিজ্ঞান অনুষদ ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক গাজী মুরসালিন অনু, জিয়া হল ছাত্রলীগের কর্মী সাজ্জাদুল কবির, কাজী সিয়াম ও সাবেক কেন্দ্রীয় সদস্য জারিন দিয়াকে।

এছাড়া বিজ্ঞপ্তিতে, রোকেয়া হল শাখা ছাত্রলীগের সভাপতি বিএম লিপি আক্তার ও জিয়া হল শাখার কর্মসূচি ও পরিকল্পনা সম্পাদক হাসিবুর রহমান শান্তকে তাদের বিরুদ্ধে আনিত অভিযোগের জবাব তিনদিনের মধ্যে দফতর সেলে জমা দিতে বলা হয়েছে।

উল্লেখ্য,গত ১৩ মে ছাত্রলীগের ৩০১ এক সদস্য বিশিষ্ট পূর্ণাঙ্গ কমিটি গঠন করা হয়। এরপর এ কমিটিতে বিবাহিত, অছাত্র, বিতর্কিতদের মূল্যায়ন করা হয়েছে দাবি করে প্রতিবাদে মধুর ক্যান্টিনে সংবাদ সম্মেলন করতে যান কমিটিতে পদবঞ্চিত ও প্রত্যাশিত পদ না পাওয়া নেতারা। এসময় তাদের ওপর পদপ্রাপ্ত নেতা ও তাদের সমর্থকরা হামলা করেন। হামলায় রোকেয়া হল শাখা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক শ্রাবণী দিশাসহ ১০-১২ জন আহত হয়। এই ঘটনায় সেইদিন ছাত্রলীগের পক্ষ থেকে তিন সদস্যের তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়। গঠিত তদন্ত কমিটি হামলার সঙ্গে জড়িতদের বিরুদ্ধে সাংগঠনিক ব্যবস্থা নিতে সুপারিশ করে৷ এ সুপারিশের ভিত্তিতে হামলায় জড়িতদের বিরুদ্ধে শাস্তিমূলক ব্যবস্থা নেয়া হলো।

Print Friendly, PDF & Email

 
 
 
 
 
 
 
error: Content is protected !!