জয়পুরহাট আদালতে মামলার বাদীকে পুলিশ কর্মকর্তার হুমকি

 
 

জয়পুরহাট, ১৮ জুন ।। জয়পুরহাট সদর থানার পুলিশের উপ পরিদর্শক (এস আই) আতিক রহমান জয়পুরহাট যুগ্ম জেলা জজ আদালতে এসে বাদীকে মামলা তুলে নিতে লাঞ্চিত করাসহ হুমকি দিয়েছেন বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে।
মঙ্গলবার দুপুরে আদালতে হাজিরা শেষে সিঁড়ি দিয়ে নিচে নামার সময় মামলার বাদী জেলার পাঁচবিবি উপজেলার দানেজপুর গ্রামের মৃত আবুল কাশেমের ছেলে আব্দুল মান্নান (মুন্না)কে লাঞ্চিত করাসহ তাকে হুমকি দেওয়া হয় বলে তিনি অভিযোগ করেন।
মুন্ন্া তার লিখিত অভিযোগে আরো জানান, তিনি গাইবান্ধা’র ডিবি মোড় এলাকার মাহফুজার রহমানের ছেলে মিজানুর রহমান লিল্টু’র কাছ থেকে ব্যবসায়িক লেনদেনের জের ধরে ২২ লাখ ৮৫ হাজার টাকা পাওনাদার ছিলাম। “এর বিপরীতে লিল্টু আমাকে একটি চেকও প্রদান করেন। এরপর তিনি দীর্ঘ দিনেও টাকাগুলো ফেরত দেন নাই, কিংবা চেক সংশ্লিষ্ট ব্যাংকে জমা দিলেও তা দিয়ে টাকা তোলা যায়নি। বাধ্য হয়ে লিল্টুুর ্িবরুদ্ধে জয়পুরহাট যুগ্ম জেলা জজ আদালতে মামলা করি” বলেও জানান মুন্না।
তিনি অভিযোগে আরো জানান, ওই মামলায় হাজিরা দিয়ে আদালত থেকে সিঁড়ি দিয়ে নিচে নামার সময় ওই মামলার আসামী মাহফুজার রহমান লিল্টু.র পক্ষ নিয়ে জয়পুরহাট সদর থানায় কর্তব্যরত পুলিশের উপ পরিদর্শক (এস আই) আতিক রহমান মুন্নার শার্টের কলার ধরে ধাক্কাতে ধাক্কাতে টেনে নিয়ে যান। “এ ছাড়া ওই এস আই নিজে মোবাইল দিয়ে আমার ছবি তোলার পর বলে যে, মামলা তুলে না নিলে আমার হাত-পা ভেঙ্গে দেওয়া হবে।” এ সময় তার চিৎকারে আদালত চত্বরে থাকা সাধারন মানুষ এগিয়ে এলে পুলিশের এস আই আতিক চলে যান। এ ব্যাপারে পুলিশ প্রশাসন ও সাংবাদিকগনের কাছে অভিযোগ পত্র দেওয়া হয়েছে বলেও জানান ভূক্তভোগী মুন্না।
জয়পুরহাটের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার উজ্জল কুমার রায় অভিযোগ পাওয়ার কথা স্বীকার করে বলেন, তদন্তে দোষী প্রমানিত হলে অভিযুক্ত পুলিশ কর্মকর্তার বিরুদ্ধে প্রশাসনিক ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে।
এ নিয়ে অভিযুক্ত আতিক রহমান বলেন, তিনি এমন কিছুই করেননি।

Print Friendly, PDF & Email