নওগাঁয় মাকে হত্যার করে মেয়েকে ধর্ষণ

 
 

নওগাঁ প্রতিনিধি: নওগাঁয় একই দিনে তিন লাশ উদ্ধার করেেেছ পুলিশ। লাশ তিনটি জেলার মান্দা ও ধামইরহাট দুইটি থানার পৃথক স্থানের পৃথক ঘটনা । মান্দায় মাকে হত্যার পর অস্ত্রের মুখে জিম্মি করে মেয়েকে ধর্ষণ ও ধামইরহাটের একটি পাট ক্ষেত থেকে দুই যুবকের অর্ধগলিত মৃতদেহ উদ্ধার করেছে পুলিশ।

মান্দায় নিহতের নাম নাসিমা আক্তার সাথী (৪০)। তিনি উপজেলার প্রসাদপুর ইউনিয়নের দ্বারিয়াপুর গ্রামের এমদাদুল হক মন্ডলের স্ত্রী। আর ধামইরহাটের নিহত যুবকের পরিচয় এখনও পাওয়া যায়নি ।

স্থানীয় ও পুলিশ সূত্রে জানা যায়, সোমবার দিবাগত রাতে নিহতের শয়নঘরে এ ঘটনা ঘটে। ঘটনার পরপরই ঘাতক ধর্ষক সামিউল ইসলাম সাগরকে (২২) আটক করে থানা পুলিশ। আটক সাগর উপজেলার কুসুম্বা ইউনিয়নের চকশ্যামরা গ্রামের জান মোহাম্মদের ছেলে।

নিহতের স্বামী এমদাদুল হক নাটোরর একটি ফার্মে নৈশপ্রহরীর চাকরি করেন বলে জানা গেছে। তাদের বাড়িতে স্ত্রী সাথী ও ছোটমেয়ে এক সঙ্গে থাকতেন। সোমবার গভীর রাতে মোবাইল ফোনের মাধ্যমে স্ত্রী সাথীর মৃত্যুর সংবাদ জানতে পারেন স্বামী এমদাদুল হক।

মান্দা থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মোজাফফর হোসেন বলেন, নিহতের ছোটমেয়ে রীমা আক্তারের সঙ্গে আটক সাগরের প্রেমের সর্ম্পক ছিল। সম্প্রতি সেই সর্ম্পকে টানাপোড়ন শুরু হয়। ঘটনার রাতে রীমাকে হত্যার উদ্দেশ্যে একটি চাকু নিয়ে তাদের বাড়িতে যায় সাগর। বাড়ির পেছনের দিক দিয়ে ছাদে উঠে অপেক্ষা করতে থাকে। পরে ছাদ থেকে নেমে রীমার ঘরে যায়। এসময় নিহত সাথী ও মেয়ে রীমা একইঘরে ঘুমিয়ে ছিলেন। সাগর ও রীমা কথা বলার সময় নিহত সাথী জেগে উঠে। তখন সাগরের কাছে থাকা চাকু দিয়ে সাথীর শরীরের একাধিক আঘাত করে। এতে সাথী জ্ঞান হারিয়ে ফেললে তাকে জবাই করে হত্যা করে সাগর। পরে অস্ত্রের মুখে জিম্মি করে নিহতের মেয়েকে ধর্ষণ করেছে বলে প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে এমন তথ্য জানায় সাগর।

নিহতের লাশ উদ্ধার করে ময়না তদন্তের জন্য ও ভিকটিমকে ডাক্তারী পরীক্ষার জন্য নওগাঁ সদর হাসপাতাল মর্গে পাঠানো হয়েছে এবং এ ঘটনায় থানায় মামলা দায়েরের প্রস্তুতি চলছে।

অপরদিকে, জেলার ধামইরহাটের উপজেলার একটি পাট ক্ষেত থেকে দুই যুবকের অর্ধগলিত মৃতদেহ উদ্ধার করেছে পুলিশ। মঙ্গলবার সকাল সাড়ে ৯ টার দিকে উপজেলার ইউসুফপুর ইউনিয়নের পরাণপুর গ্রামের নির্জন এলাকার পাট ক্ষেত থেকে তাদের মৃতদেহ উদ্ধার করা হয়।
স্থানীয় ও পুলিশ সূত্র জানিয়েছেন, নওগাঁর ধামইরহাট-বদলগাছী ও জয়পুরহাট জেলার সীমান্ত এলাকায় পরাণপুর গ্রামের ওই নির্জন পাট ক্ষেতের আশেপাশে আজ সকালে স্থানীরা মাঠে কাজ করতে যান। এ সময় পাট ক্ষেত থেকে পচা দুর্গন্ধ বের হলে ওই পাঠ ক্ষেতের মধ্যে গিয়ে দুই যুবকের অর্ধ গলিত মৃতদেহ দেখতে পেয়ে থানায় সংবাদ দেন। সংবাদ পেয়ে পুলিশ নিহতদের মৃতদেহ উদ্ধার করেছে।
ধামইরহাট থানার ওসি জাকিরুল ইসলাম জানান, নিহতদের এখনো পরিচয় পাওয়া যায়নি। প্রাথমিকভাবে ধারনা করা হচ্ছে, চার-পাঁচ দিন আগে তাদের মৃত্যু হয়েছে। তবে কি ভাবে হয়েছে তার কারণ তাৎক্ষণিকভাবে জানা সম্ভব হয়নি।

Print Friendly, PDF & Email