সৈয়দপুরে হরিজন জনগোষ্ঠীর দক্ষতা বিষয়ে সভা অনুষ্ঠিত

 
 

সিসি নিউজ, ১৮ জুন ।। নীলফামারীর সৈয়দপুরে বেসরকারি স্বেচ্ছাসেবী সংস্থা দেবী চৌধুরানী পল্লী উন্নয়ন কেন্দ্র (ডিসিপিইউকে) বাস্তবায়িত হরিজন জনগোষ্ঠীর দক্ষতা ও আত্ববিশ্বাস বৃদ্ধিকরণ প্রকল্পের বিষয়ে উপজেলা স্বাস্থ্য বিভাগের কর্মকর্তাদের সাথে ষান্মাসিক সমন্বয় সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। আজ (মঙ্গলবার) আন্তর্জাতিকদাতা সংস্থা ডিএফআইডি-ইউকেএইড এবং মানুষের জন্য ফাউন্ডেশনের কারিগরী সহযোগিতায় সৈয়দপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স হলরুমে ওই সভার আয়োজন করা হয়।
সভায় প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন সৈয়দপুর উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. মো. মীর হোসেন।
এতে সভাপতিত্ব করেন সৈয়দপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের মেডিক্যাল অফিসার ডা. মো. আকতারুজ্জামান।
সভায় ডিসিপিইউকে সিসি-এইচসি প্রকল্পের সমন্বয়কারী আব্দুস সামাদ তাঁর শুভেচ্ছা বক্তব্যের পাশাপাশি হরিজনদের স্বাস্থ্য সম্পর্কিত বিভিন্ন সমস্যার দিকগুলো তুলে ধরেন
সভায় উপস্থিত সকলেই হরিজনদের স্বাস্থ্য সেবা সম্পর্কিত তাদের সুচিন্তিত মতামত উপস্থাপন করেন।
এতে বক্তারা বলেন, হরিজন জনগোষ্ঠী বিভিন্নভাবে সমাজে অবহেলিত ও তাদের অধিকারগুলো থেকে বঞ্চিত হয়ে আসছে। সমাজে তাদের সেই অধিকারগুলো ফিরিয়ে দিয়ে মানুষ হিসেবে তাদের বিভিন্ন কাজে ও সামাজিক আচার অনুষ্ঠানে অংশগ্রহনের সুযোগ দেয়ার বিষয়গুলো উপস্থাপনা করা হয়। বিশেষ করে তাদের স্বাস্থ্য সেবা সম্পর্কিত সমস্যা সমাধানের বিষয়গুলো সভায় উপস্থিত বক্তাদের বক্তব্যে বিশেষ প্রাধান্য পায়।
প্রধান অতিথি সৈয়দপুর উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. মো. মীর হোসেন বলেন, হরিজনদের স্বাস্থ্য সেবা সম্পর্কিত সমস্যাগুলো সমাধানের বিষয়ে স্ব স্ব ওয়ার্ডের স্বাস্থ্যকর্মীগণ কার্যকরী ব্যবস্থা গ্রহন করবেন। যাতে তারাও অন্যদের মতো সকল স্বাস্থ্য সেবা অনায়াসে গ্রহন করতে পারেন। তিনি প্রকল্পটি বাস্তবায়নে স্বাস্থ্য বিভাগের পক্ষ থেকে সব ধরনের সহায়তা অব্যাহত থাকবে। সেই সাথে সমাজের অবহেলিত মানুষদের নিয়ে দেবী চৌধুরানী পল্লী উন্নয়ন কেন্দ্র এ ধরনের একটি প্রকল্প গ্রহনের জন্য স্বাস্থ্য বিভাগের পক্ষ থেকে সংস্থার সঙ্গে সংশ্লিষ্টদের আন্তরিক ধন্যবাদ জ্ঞাপন করেন।
সভায় সৈয়দপুর পৌর এলাকায় কর্মরত উপজেলা স্বাস্থ্য বিভাগের বিভিন্ন পর্যায়ের কর্মকর্তা,এনজিও প্রতিনিধি, সাংবাদিক, হরিজন কমিউনিটির নেতা, ডিসিপিইউকে’র বিভিন্ন পর্যায়ের কর্মকর্তাবৃন্দসহ মোট ২৮ জন নারী ও ৮ জন পুরুষ উপস্থিত ছিলেন।

Print Friendly, PDF & Email

 
 
 
 
 
 
 
 

error: Content is protected !!