• বৃহস্পতিবার, ২২ এপ্রিল ২০২১, ০৭:২৭ অপরাহ্ন |

ডিমলায় টিআর প্রকল্পে হালচাষ করে রাস্তা সংস্কার

বিশেষ প্রতিনিধি।। অর্থ বছরের শেষ মাস জুন মাস চলে যাচ্ছে তাই মাটি না দিয়ে রাতের আধারে ট্রাক্টর দিয়ে হাল চাষ করে গ্রামীন কাঁচা রাস্তা সংস্কার করার অভিযোগ উঠেছে সংশ্লিষ্ট সরকারী দপ্তরের বিরুদ্ধে। এ ঘটনাটি ঘটেছে জেলার ডিমলা উপজেলার গয়াবাড়ি ইউনিয়নের ৯ নম্বর ওয়ার্ডে। ঘটনাটি প্রকাশ হয়ে পড়ায় এ নিয়ে এলাকাজুড়ে তোলপাড় শুরু হয়েছে। এলাকাবাসী বিষয়টি ঢাকাস্থ প্রকল্প পরিচালকের নিকট অভিযোগ করেছে। তাৎক্ষনিকভাবে ঘটনাটি তদন্ত করে প্রতিবেদন দাখিলের নির্দেশ দেয়া হয়েছে জেলা ত্রান ও পুনর্বাসন কর্মকর্তাকে।

এদিকে ত্রান অধিদপ্তরের আওতায় চলতি বছরে ডিমলা উপজেলার টেস্ট রিলিফের (টিআর) প্রকল্পের কত সংখ্যক কাজ চলছে এমন তথ্য জানাতে অপারগতা প্রকাশ করেছেন উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা মেজবাহুর রহমান। এমন কি গয়াবাড়ি ইউনিয়নের হাল চাষ করা কাঁচা রাস্তা সংস্কারের প্রকল্পটির নামও তিনি জানাতে অপরাগতা প্রকাশ করেন।

সরেজমিনে দেখা যায়, ওই কাচা রাস্তা সংস্কার প্রকল্পের কোন সাইনবোর্ড দেখা যায়নি। অভিযোগ উঠেছে গয়াবাড়ী ইউনিয়নের চলতি বছরের টিআর, কাবিখা ও কাবিটা প্রকল্পে ব্যাপক অনিয়ম ও দূর্নীতির মাধ্যমে কাজ না করেও বিল উত্তোলন করা হয়েছে। তবে ঘটনা ফাঁস হয়ে যাবার পর গত সোমবার দুপুরে দেখা যায় শ্রমিক দিয়ে রাস্তার ঘাস পরিস্কার করে রাস্তাটি সংস্কার করতে। বেশ কিছু শ্রমিক লাগিয়ে রাস্তার দুই ধারে কোদাল দিয়ে ঘাস ছিলে রাস্তার সংস্কার করা হচ্ছিল।

এলাকাবাসীর অভিযোগ, তিন কিলোমিটার কাঁচা রাস্তাটির ট্রাক্টর দিয়ে ৫ হাজার টাকায় হাল চাষ করানো হয়েছে। রাস্তার কাজ করা শ্রমিক আমিনুর, হুজুর আলী, মোমিন সহ অনেকেই জানান, রাস্তাটি ট্রাক্টর দিয়ে হাল চাষ করেন গয়াবাড়ি ইউপি চেয়ারম্যান সামছুল হক। এলাকাবাসীর অভিযোগ ইউপি চেয়ারম্যানের লোকজন গত শুক্রবার রাতে ট্রাক্টর দিয়ে হাল চাষ করার সময় পাহারা দেয়।

গয়াবাড়ি ইউনিয়নের ৯ ওয়ার্ডের দক্ষিন গয়াবাড়ী বদরের বাড়ী হতে পশ্চিমে ভুয়া কান্দুর বাড়ী পর্যন্ত ৩ কিলোমিটার পর্যন্ত কাচা রাস্তাটি সংস্কারের জন্য টিআর-এর বিশেষ প্রকল্পে ১০ মেট্রিকটন চাল বরাদ্দ দেয়া হয়। নিয়ম অনুযায়ী শ্রমিক দিয়ে কাঁচা রাস্তাটি বাহির হতে মাটি এনে সংস্কার করতে হবে। প্রকল্পটির সভাপতি সংরক্ষিত নারী ইউপি সদস্য ফেরদৌসী বেগম হলেও কাজটির দেখভাল করছেন ইউপি চেয়ারমান সামছুল হক। তারা শুক্রবার রাত ১২টার দিকে একটি ট্রাক্টর এনে কাচা রাস্তাটি হাল চাষ করেন।

এলাকাবাসী আরো জানান, ওরা প্রতি মেট্রিকটন চাল বিক্রি করে ১৭ হাজার টাকা করে। এতে ১০ মেট্রিকটন চাল বিক্রি করে টাকা পাবেন ১ লাখ ৭০ হাজার। সেখানে রাস্তাটি সংস্কারের কাজ শেষ করা হচ্ছে মাত্র ১৩ হাজার টাকায়। ওই রাস্তা সংস্কার হচ্ছে মাছের তেল দিয়ে মাছ ভাজার মতই! কোন মাটি না ফেলে হাল চাষ দিয়ে রাস্তার মাটি দিয়েই ওই রাস্তা সংস্কার করা হচ্ছে।

এ ব্যাপারে গয়াবাড়ি ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান সামছুল হক সাংবাদিকদের জানান, ওই রাস্তাটি দীর্ঘদিন ধরে সংস্কার কেউ করেনি। সড়কটিতে কাশবন ছিল। রাস্তাটি সুন্দরভাবে সংস্কার করা হচ্ছে। বাংলাদেশের কোথাও এত সুন্দর রাস্তা করা হয়নি। তাছাড়া উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা কাজটি নিজেই পরিদর্শন করেছেন।

এ ব্যাপারে প্রকল্পটির সভাপতি সংরক্ষিত নারী ইউপি সদস্য ফেরদৌসী বেগমের ফোন বন্ধ থাকায় তার বাড়িতে গিয়েও দেখা মেলেনি। এ ব্যাপারে জেলা ত্রান ও পুনর্বাসন কর্মকর্তা এসএ হায়াত সাংবাদিকদের জানান, ডিমলা উপজেলার একটি কাচা সড়ক হাল চাষ করে সংস্কার করা হয়েছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। ঘটনাস্থল গিয়ে তদন্ত করে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে।


আপনার মতামত লিখুন :

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ

error: Content is protected !!