সৈয়দপুরে নারী পুলিশের হাতে গৃহবধু নির্যাতনের শিকার

 
 

সিসি নিউজ, ৯ জুলাই ।। নীলফামারীর সৈয়দপুর জেলা রেলওয়ে পুলিশ সুপার কার্যালয়ের এক নারী পুলিশ সদস্য ও তাঁর পরিবারের সদস্যদের নির্মম নির্যাতনে এক গৃহবধু গুরুতর আহত হয়েছেন বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। পাঁচ লাখ টাকা যৌতুকের দাবিতে রেলওয়ে পুলিশের সদস্য মোছা. রাজিয়া সুলতানাসহ তাঁর পরিবারের সদস্যরা এক সন্তানের জননী ওই গৃহবধূকে নির্মম নির্যাতন করেন। এ ঘটনায় নির্যাতনের শিকার গৃহবধু মৌমিতা আফরিন নীলফামারী নারী ও শিশু নির্যাতন দমন বিশেষ ট্রাইব্যুনাল-১ আদালতে একটি মামলা দায়ের করেন। আর বিজ্ঞ আদালত ওই মামলার বিষয়টি তদন্তসাপেক্ষে আগামী সাত কার্যদিবসের মধ্যে তদন্ত প্রতিবেদন জমা দেওয়ার জন্য সৈয়দপুর উপজেলা মহিলা বিষয়ক কর্মকর্তাকে নির্দেশ দিয়েছেন। গত ১ জুলাই আদালত থেকে ওই নির্দেশ প্রদান করা হয়।
জানা গেছে, নীলফামারীর সৈয়দপুর শহরের গোয়ালপাড়ার মো. জাহিদ হোসেনের মেয়ে মোছা. মৌমিতা আফরিনের (৩০) সঙ্গে প্রায় ৮ বছর আগে পঞ্চগড়ের বোদা উপজেলার ভাবরডাঙ্গা গ্রামের মৃত. ভবির উদ্দিনের ছেলে মো. হাবিবুর রহমানের (৩৫) বিয়ে হয়। বিয়ের কিছুদিন যেতে না যেতে মৌমিতার স্বামী হাবিবুর রহমান ও তাঁর পরিবারের সদস্যরা পাঁচ লাখ টাকা যৌতুক বাবদ দাবি করেন। কিন্তু এতে গৃহবধূ মৌমিতা অপারগতা প্রকাশ করেন। এ নিয়ে প্রায়ই তাকে শারীরিক ও মানসিক নির্যাতন করতো স্বামী ও ননদসহ পরিবারের অন্যান্য সদস্যরা।
নির্যাতিতা গৃহবধু মৌমিতা আফরিন জানান, স্বামী ও তাঁর পরিবারের সদস্যদের শত অত্যাচার- নির্যাতন সহ্য করে সংসার করা অবস্থায় তাদের এক কন্যা সন্তান জন্ম নেয়। এদিকে, তাঁর ননদ মোছা. রাজিয়া সুলতানা পুলিশের চাকরি পাওয়ার পর তাঁর ওপর আরও অত্যাচার-নির্যাতনের মাত্রা আরো বেড়ে যায়। সে ছুটিতে বাড়িতে গেলে কারণে অকারণে গৃহবধূ মৌমিতা আফরিনকে শারীরিক অত্যাচার-নির্যাতন করতো। এর এক পর্যায়ে গৃহবধূকে স্বামী ও তাঁর পরিবারের সদস্যরা মিলে শারীরিকভাবে নির্মম নির্যাতন চালিয়ে হাত-পা ভেঙ্গে দেয়। এরপর পরবর্তীতে গৃহবধূকে তাঁর বাপের বাড়িতে পাঠিয়ে দেওয়া হয়।
এদিকে, গৃহবধূর স্বামী হাবিবুর রহমান ও ননদ রাজিয়া সুলতানাসহ পরিবারের অন্যান্যরা গত ২০ জুন গৃহবধূ মৌমিতা আফরিনের বাপের বাড়িতে এসে ক্ষমা চেয়ে আর এমন হবে না ভূল স্বীকার করে তাকে নিজ বাড়িতে নিয়ে যাওয়ার কথা বলে বিকালে মাইক্রোবাসে তুলে সৈয়দপুর স্টেডিয়ামের সামনে নিয়ে গিয়ে মারডাং করে রাস্তায় ফেলে দিয়ে পালিয়ে যায় বলে মামলায় উল্লেখ করা হয়। এ ঘটনায় গৃহবধূ মৌমিতা নিজে বাদী হয়ে গত ৩০ জুন ৫জনকে আসামী করে নীলফামারীতে নারী ও শিশু নির্যাতন দমন বিশেষ ট্রাইব্যুনাল-১ আদালতে একটি মামলা দায়ের করেছেন।
আর বিজ্ঞ আদালত বাদীর মামলাটি আমলে নিয়ে তা তদন্তের জন্য গত ১ জুলাই নীলফামারীর সৈয়দপুর উপজেলা মহিলা বিষয়ক কর্মকর্তাকে নির্দেশ দিয়েছেন। বর্তমানে তিনি মামলাটি তদন্ত করছেন বলে জানা গেছে।
সৈয়দপুর উপজেলা মহিলা বিষয়ক কর্মকর্তা মোছা. নুরুন্নাহার শাহাজাদী বলেন, আদালত থেকে বেশ কয়েকটি মামলা তদন্তের জন্য আমার কাছে পাঠানো হয়েছে। তবে সঠিকভাবে ওই মামলার বিষয়টি আমার মনে পড়ছে না। তবে অফিসে কাগজপত্র দেখে মামলার বিষয়টি সঠিকভাবে বলতে পারবো বলে জানান তিনি।

Print Friendly, PDF & Email

 
 
 
 
 
 
 
error: Content is protected !!