সৈয়দপুরে অসামাজিক কার্যকলাপের দায়ে তিনজনের দন্ড

 
 

সিসি নিউজ, ২০ জুলাই ।। নীলফামারীর সৈয়দপুর শহরের নয়াটোলা এলাকায় একটি ভাড়া বাড়িতে অসামাজিক কার্যকলাপের অভিযোগে দুই নারীসহ তিন ব্যক্তির অর্থ ও কারাদন্ড দিয়েছেন ভ্রাম্যমান আদালত। আজ শনিবার দুপুরে ভ্রাম্যমান আদালতের বিজ্ঞ বিচারক নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট ও সৈয়দপুর উপজেলা সহকারি কমিশনার (ভূমি) পরিমল কুমার সরকার ওই অর্থ ও কারাদন্ডাদেশ দেন।

এদের মধ্যে বাড়ির ভাড়াটিয়া সৈয়দপুর উপজেলা বাঙ্গারীপুর ইউনিয়নের লক্ষণপুর বালাপাড়ার মৃত. আব্দুল হামিদের মেয়ে মোছা. রাবেয়া বেগমকে (৩৫) ১০ হাজার টাকা অর্থদন্ড এবং নীলফামারীর সদরের সংগলশী ইউনিয়নের দীঘলডাঙ্গী গ্রামের মো. খয়রাত হোসেনের ছেলে মো. সোহেল (২৯) ও নীলফামারী শহরের গরুহাটি সরকারপাড়ার মো. জয়নুল এর মেয়ে মোছা. লাবনী আক্তারকে (২৫) এক মাসের করে বিনাশ্রম কারাদন্ড প্রদান করা হয়েছে।
ভ্রাম্যমান আদালত সূত্রে জানা গেছে, শহরের নয়াটোলা এলাকায় একটি ভাড়া বাড়িতে অসামাজিক কার্যকলাপ পরিচালিত হচ্ছে এমন খবরের ভিত্তিতে সৈয়দপুর উপজেলা সহকারি কমিশনার (ভূমি) পরিমল কুমার সরকারের উপস্থিতিতে থানা পুলিশ ওই বাড়িতে আকস্মিক অভিযান চালায়। এ সময় ওই বাড়ি থেকে অসামাজিক কার্যকলাপে জড়িত থাকায় অবস্থায় মো. সোহেল  ও মোছা. লাবনী আক্তারকে  এবং সহযোগী হিসেবে বাড়ি ভাড়াটিয়া মোছা. বারেয়া আক্তারকে আটক করা হয়। পরে ভ্রাম্যমান আদালতে অসামাজিক কার্যকলাপের সহযোগিতার দায়ে বাড়ি ভাড়াটিয়া মোছা. রাবেয়া বেগমকে  ১০ হাজার টাকা অর্থদন্ড এবং অসামাজিক কার্যকলাপে জড়িত থাকার দায়ে মো. সোহেল ও মোছা. লাবনী আক্তারকে এক মাসের করে বিনাশ্রম কারাদন্ড প্রদান করা হয়।

ভ্রাম্যমান আদালত পরিচালনা করেন নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট ও উপজেলা সহকারি কমিশনার (ভূমি) পরিমল কুমার রায়। পরে বাড়ির ভাড়াটিয়া মোছা. রাবেয়া বেগম জরিমানার টাকা তৎক্ষনাৎ পরিশোধ করে মুক্তি পান। আর দন্ডপ্রাপ্ত মো. সোহেল ও মোছা. লাবনী আক্তারকে নীলফামারী কারাগারে পাঠানো হয়।
সৈয়দপুর থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মো. শাহ্জাহান পাশা ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করেন।

Print Friendly, PDF & Email

 
 
 
 
 
 
 
error: Content is protected !!