সৈয়দপুর উপজেলা ছাত্রলীগ সভাপতি নজির হোসেনকে অবাঞ্ছিত ঘোষণা

 
 

সিসি নিউজ, ২৭ জুলাই ।। নীলফামারীর সৈয়দপুরে উপজেলা ছাত্রলীগের সভাপতি মো. নজির হোসেনকে অবাঞ্ছিত ঘোষণা করা হয়েছে। আজ শনিবার সৈয়দপুর উপজেলা ও পৌর আওয়ামী লীগের যৌথ সংবাদ সম্মেলনে ওই ঘোষণা দেওয়া হয়েছে। শহরের শহীদ তুলশীরাম সড়কে আওয়ামী লীগ কার্যালয়ে ওই সংবাদ সম্মেলনের আয়োজন করা হয়। এতে লিখিত বক্তব্য পড়ে শোনার সৈয়দপুর পৌর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক মো. মোজাম্মেল হক।
লিখিত বক্তব্যে বলা হয়েছে জাতির জনক বঙ্গবন্ধুর আদর্শে ও হাতে গড়া সংগঠন হচ্ছে বাংলাদেশ ছাত্রলীগ। দেশের স্বাধীনতা সংগ্রামসহ বিভিন্ন ক্ষেত্রে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ ও ছাত্র লীগের রয়েছে অত্যন্ত সুনাম ও উজ্জ্বল ভাবমূর্তি।
অথচ ছাত্রলীগ সৈয়দপুর উপজেলা শাখার সভাপতি নজির হোসেনের বিভিন্ন রকম কুকর্ম ও বদনামের কারণে আজ ছাত্রলীগের দীর্ঘদিনের সেই উজ্জ্বল ভাবমূর্তি ও সুনাম ক্ষুন্ন হতে বসেছে।
সংবাদ সম্মেলনে অভিযোগ করা হয় উপজেলা ছাত্রলীগ সভাপতি নজির হোসেন সংগঠনের নিজস্ব কার্যালয়ে বসে প্রকাশ্যে মাদকসেবন, বিক্রি ও মাদকসেবীদের নিয়ে আখড়ায় পরিণত করেছে। এছাড়াও সে বিভিন্নজনকে ছাত্রলীগ কার্যালয়ে ডেকে এনে জিম্মি করে নানা ভয়ভীত দেখিয়ে চাঁদাবাজি অব্যাহত রেখেছে। কোন আওয়ামী লীগ ও সহযোগী অঙ্গসংগঠনের সিনিয়র নেতাদের প্রতি তাঁর ন্যূনতম শ্রদ্ধা ও সম্মা বোধ নেই তাঁর। বরঞ্চ বিভিন্ন সময়ে সে তাদের প্রকাশ্যে অশ্লীল ভাষায় গালমন্দসহ অপমান অপদস্থ ও লাঞ্চিত করে থাকেন। তাঁর এ সব অন্যায় ও কুকর্মের বিষয়ে তাকে দলীয় কার্যালয়ে ডেকে একাধিকবার সর্তক করা হয়েছে। কিন্তু তারপরও ছাত্রলীগ সভাপতি নজির হোসেনের আচার-আচরণে ও কর্মকান্ড সামান্যতম বদলায়নি। বরঞ্চ সে আগের চেয়ে দিন দিন আরও বেশি বেপরোয়া ও অবাধ্য হয়ে উঠেছে। তাঁর এ সব অপরাধমূলক কর্মকান্ডের কারণে সৈয়দপুর আওয়ালী লীগ ও ছাত্রলীগের ভাবমূর্তি মারাত্মকভাবে ক্ষুন্ন হচ্ছে প্রতিনিয়ত। ইতোমধ্যে তাঁর এ ধরনের অপরাধমূলক কর্মকান্ডের বিসয়ে নীলফামারী জেলা ছাত্রলীগ নেতৃবৃন্দকে লিভিতভাবে অভিযোগ করা হয়েছে। কিন্তু অদ্যাবধি ছাত্রলীগ সভাপতি নজির হোসেনের বিরুদ্ধে সাংগঠনিকভাবে কোন কার্যকরী ব্যবস্থা গ্রহন করা হয়নি।
সংবাদ সম্মেলন থেকে নজির হোসেনকে অবাঞ্ছিত ঘোষণাসহ তাঁর সব রকম অপকর্ম প্রতিরোধ ও প্রতিকারের ঘোষণা করা হয়েছে। সেই সঙ্গে মাদকসেবী ও চাঁদাবাজ সৈয়দপুর উপজেলা ছাত্রলীগ সভাপতি নজির হোসেনকে অবিলম্বে সংগঠনের পদ থেকে বহিস্কার করে শাস্তিমূলক ব্যবস্থা গ্রহনের দাবি জানানো হয়।
এ সময় সেখানে অন্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন সাবেক পৌর মেয়র ও উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আখতার হোসেন বাদল, পৌর আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি রফিকুল ইসলাম বাবু, উপজেলা মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান সানজিদা বেগম লাকী, সিনিয়র সহ-সভাপতি ইদ্রিস আলী, আওয়ামী লীগ নেতা জোবায়দুর রহমান শাহিন, সরকার মো. কবির উদ্দিন ইউনুস, মীর সানোয়ার আলী, পৌর কাউন্সিলর মিনারা বেগম, এজাজুল ইসলাম বাচ্চু, তাঁতী লীগ নেতা মহসিনুল হক মহসিন ও ছাত্রলীগ, যুবলীগ, স্বেচ্ছাসেবক লীগসহ অন্যান্য অঙ্গসংগঠনের নেতৃবৃন্দ।
পরে সৈয়দপুর উপজেলা ছাত্রলীগের সভাপতি নজির হোসেনকে গ্রেফতারের দাবি জানিয়েছে সৈয়দপুর উপজেলা ও পৌর আওয়ামী লীগ। শনিবার দুপুরে তার বিরুদ্ধে থানায় ওই স্মারকলিপি দেয়া হয়।
সৈয়দপুর উপজেলা ও পৌর আওয়ামী লীগের নেতৃবৃন্দ স্মারকলিপি নিয়ে সৈয়দপুর থানায় যান। এ সময় থানার অফিসার ইনচার্জ মো. শাহজাহান পাশার হাতে স্মারকলিপি তুলে দেন সৈয়দপুর উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আখতার হোসেন বাদল, পৌর আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি রফিকুল ইসলাম বাবু ও সাধারণ সম্পাদক মোজাম্মেল হকসহ অন্যান্য নেতৃবৃন্দ।

Print Friendly, PDF & Email

 
 
 
 

1 Comments

  1. মোঃ রাসেল সরকার বলেছেন:

    আওয়ামীলীগের শত্রু আওয়ামীলীগ। এতদিন তার বিরুদ্ধে কোন অভিযোগ শুনিনি আজ কেন? এত দ্রুত একটা ছাত্র খারাপতো হতে পারে না? আমি জানি তিনি একজন মেধাবী ছাত্র।