• সোমবার, ১৭ ফেব্রুয়ারী ২০২০, ০৩:২৮ পূর্বাহ্ন |

১৪ কোম্পানির পাস্তুরিত দুধ উৎপাদন-বিক্রয়ে নিষেধাজ্ঞা

Red Chilli Saidpur

সিসি ডেস্ক, ২৮ জুলাই ।। মানবদেহের জন্য ক্ষতিকর উপাদান থাকায় প্রাণসহ ১৪টি কোম্পানির পাস্তুরিত দুধ উৎপাদন, সরবরাহ ও বিপণন পাঁচ সপ্তাহের জন্য বন্ধ রাখার নির্দেশ দিয়েছেন আদালত|

রবিবার (২৮ জুলাই) বিচারপতি সৈয়দ রেফাত আহমেদ ও বিচারপতি মো. ইকবাল কবিরের হাইকোর্ট বেঞ্চ এ আদেশ দেন।

লাইসেন্সধারী এসব ব্র্যান্ডের পাস্তুরিত দুধে অ্যান্টিবায়োটিক ও ডিটারজেন্টসহ বিভিন্ন ক্ষতিকর উপাদান আছে কি-না সে বিষয়ে চারটি প্রতিষ্ঠানের ল্যাবের পরীক্ষা প্রতিবেদন নিয়ে শুনানি শেষে এ আদেশ দেন আদালত।

এই ১৪ কোম্পানির মধ্যে মিল্ক ভিটা, ডেইরি ফ্রেশ, ঈগলু, ফার্ম ফ্রেশ, আফতাব মিল্ক, আল্ট্রা মিল্ক, আড়ং, প্রাণ মিল্ক, আইরান, পিউরা ও সেফ ব্র্যান্ড অন্যতম।

আদালতে বাংলাদেশ স্ট্যান্ডার্ডস অ্যান্ড টেস্টিং ইন্সটিটিউশন-বিএসটিআইর পক্ষে শুনানি করেন ব্যারিস্টার সরকার এম আর হাসান।রিট আবেদনকারীর পক্ষে ছিলেন ব্যারিস্টার অনীক আর হক, নিরাপদ খাদ্য কর্তৃপক্ষের পক্ষে ব্যারিস্টার মুহাম্মদ ফরিদুল ইসলাম শুনানি করেন।

এর আগে পাস্তুরিত দুধের মান নিয়ে গবেষণা করেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের (ঢাবি) অধ্যাপক ড. আ ব ম ফারুকের নেতৃত্বে একদল গবেষক। আর এ গবেষণায় তারা অ্যান্টিবায়োটিকসহ ক্ষতিকর জীবাণু পেয়েছেন। যা ২৫ জুন প্রকাশ করার পর কেউ কেউ এটা নিয়ে বিতর্ক তোলেন।

এ প্রেক্ষিতে গত ১৩ জুলাই আবারো দুধ পরীক্ষা করে এই অধ্যাপক জানান, অধিকাংশ পাস্তুরিত দুধেই অ্যান্টিবায়োটিক ও ডিটারজেন্টের উপস্থিতি রয়েছে। এবার হাইকোর্ট নির্দেশিত কয়েকটি পরীক্ষায়ও বাজারের পাস্তুরিত দুধে ১৪টির মধ্যে ১১টিতেই মিলেছে ক্ষতিকর জীবাণুসহ অ্যান্টিবায়োটিক।

তারও আগে এক গবেষণায় বাজারে থাকা ১৪ ব্র্যান্ডের ১৮টি পাস্তুরিত দুধের নমুনা পরীক্ষা করে ক্ষতিকর কোনো কিছুই পায়নি বাংলাদেশ স্ট্যান্ডার্ডস অ্যান্ড টেস্টিং ইনস্টিটিউশন (বিএসটিআই)। অধ্যাপক ফারুকের গবেষণা ছিল বিএসটিআইয়ের গবেষণার ঠিক উল্টো।

দুই গবেষণায় ‍দুই রকম ফলাফল আসার পরিপ্রেক্ষিতে ঢাবি অধ্যাপকের গবেষণার রিপোর্টের ওপর শুনানি করেছেন হাইকোর্ট। পরে বিএসটিআই অনুমোদিত বিভিন্ন ব্র্যান্ডের পাস্তুরিত (প্যাকেটজাত) দুধে অ্যান্টিবায়োটিকসহ ক্ষতিকর কোনো উপাদান আছে কি না, তা চারটি প্রতিষ্ঠানে পরীক্ষার নির্দেশ দেয় হাইকোর্ট।

একই সঙ্গে পাস্তুরিত এসব দুধে অ্যান্টিবায়োটিক ছাড়াও ডিটারজেন্ট, ফরমালিন, ব্যাকটেরিয়া, কলিফর্ম, অ্যাসিডিটি ও স্টাইফলোকাস্টেস আছে কি না, তাও চারটি গবেষণাগারে পরীক্ষা করে এক সপ্তাহের মধ্যে আলাদা প্রতিবেদন দিতে বলেছেন আদালত।

জনস্বাস্থ্য ইনস্টিটিউট, বাংলাদেশ বিজ্ঞান ও শিল্প গবেষণা পরিষদ (বিসিএসআইআর), ইন্টারন্যাশনাল সেন্টার ফর ডাইরিয়াল ডিজিজ রিসার্চ, বাংলাদেশ (আইসিডিডিআর,বি) ও সাভারের বাংলাদেশ প্রাণিসম্পদ গবেষণা ইনস্টিটিউটের গবেষণাগারে এসব দুধ পরীক্ষা করতে বলা হয়েছে। এসব প্রতিষ্ঠানের প্রতিনিধিদের নিয়ে বিএসটিআইকে দৈবচয়নের ভিত্তিতে বাজার থেকে দুধের নমুনা সংগ্রহ করতে বলেছেন আদালত।

হাইকোর্টের এ নির্দেশনায় চারটি ল্যাবের পরীক্ষার মধ্যে তিনটির প্রতিবেদন ২৪ জুন আদালতে দাখিল করা হয়। এ প্রতিবেদনগুলোতে পাস্তুরিত দুধের ১১টি নমুনা পরীক্ষায় ক্ষতিকর জীবাণু পাওয়ার কথা বলা হয়। যা পরীক্ষা করেছে আন্তর্জাতিক উদরাময় গবেষণা কেন্দ্র বাংলাদেশ (আইসিডিডিআরবি), বাংলাদেশের বৈজ্ঞানিক গবেষণা সংস্থা বিসিএসআইআর ও জনস্বাস্থ্য ইন্সটিটিউট। এ ঘটনায় প্রাণসহ ১০টি পাস্তুরিত দুধ কোম্পানির বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করেছে নিরাপদ খাদ্য অধিদফতর কর্তৃপক্ষ।

কোম্পানিগুলো হলো- প্রাণ মিল্ক, মিল্কভিটা, ডেইরি ফ্রেশ, ইগলু, ফার্ম ফ্রেশ, আফতাব মিল্ক, আল্ট্রা মিল্ক, আড়ং ডেইরি, আইরান, পিউরা, সেইফ মিল্ক।

অধ্যাপক ফারুকের গবেষণার মতো এসব পরীক্ষার ফলাফলও একই। এ বিষয়ে জানতে চাইলে গবেষক আ ব ম ফারুক বিবার্তাকে বলেন, আমরা যে ভুল গবেষণা করিনি, তা হাইকোর্ট নির্দেশিত পরীক্ষায়ও প্রমাণিত হলো। আমরা আমাদের গবেষণাকে বারবার রিচেক করেছি। তারপর এটাকে জনস্বার্থে জনগণের সামনে এনেছি। অথচ তখন কেউ কেউ আমিসহ আমার গবেষক দলকে কটাক্ষ করলেন, হুমকি দিলেন। এমনকি আমার ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়কে নিয়েও আঙ্গুল তোলা হলো। সমালোচকরা না জেনে, না বুঝে আমার বিরুদ্ধে সমালোচনা করেছেন। আমি তখনও বলেছি, এখনো বলছি আমার গবেষণাকে ভুল মনে করলে গবেষণা করে সেটা প্রমাণ করুন।

এ গবেষক বলেন, হাইকোর্টকে বলবো তারা যেন এখন থেকে দুধের নিরাপত্তা রক্ষার্থে কাজ করেন। আর কোম্পানিগুলোকে সতর্ক করেন।


আপনার মতামত লিখুন :

মন্তব্য বন্ধ আছে।

আর্কাইভ