মাদ্রাসার ছাত্রীকে ধর্ষণের অভিযোগে কলেজছাত্র আটক

 
 

ঠাকুরগাঁও, ১৪ আগষ্ট ।। জেলার বালিয়াডাঙ্গী উপজেলার ভানোর ইউনিয়নের বোয়ালধার গ্রামে ভানোর আলিম মাদ্রাসার আলিম দ্বিতীয় বর্ষের ছাত্রীকে র্ধষণ করেছে ঢাকা কলেজের তৃতীয় বর্ষের ছাত্র। গত সোমবার ভোর রাতে মেয়েটির ঘরে ওই ঘটনা ঘটে।

সূত্র জানায়, বোয়ালধার গ্রামের সইদুর রহমানের পুত্র ঢাকা কলেজের তৃতীয় বর্ষের ছাত্র মো. মনসুর আলী দীর্ঘদিন ধরে মাদ্রাসা যাওয়া-আসার পথে অবৈধ সম্পর্ক গড়ে তুলতে কু-প্রস্তাব দেয় মাদ্রাসার ওই ছাত্রীকে । উক্ত কু-প্রস্তাবে মাদ্রাসা ছাত্রী সাড়া না দিলে গত ১১ আগস্ট (রবিবার) দিবাগত রাত আনুমান ২টার সময় শয়নঘরের দরজা খুলে মাদ্রাসার ছাত্রী প্রকৃতির ডাকে ঘরের বাইরে গেলে বখাটে মনসুর আলী এই সুযোগে ঘরে প্রবেশ করে খাটের নিচে আত্মগোপন করে। মাদ্রাসার ছাত্রী ঘরে প্রবেশ করে দরজা বন্ধ করে ঘুমাতে গেলে তার ইচ্ছার বিরুদ্ধে জোরপূর্বক ধর্ষণ করে। ওই সময় চিৎকার দেওয়ার চেষ্টা করলে বুকে ধারালো ছুরি ও  হত্যার ভয়ভীতি দেখায়। এ সময় মেয়েটির পিতা টের পেলে ঘরের দরজা তালাবদ্ধ করে দেয়।

এ নিয়ে সন্ধ‌্যায় সালিশ বৈঠক চলাকালীন সময়ে মনসুরের পরিবারের লোকজন লাঠিসোটা নিয়ে বাড়িতে হামলা চালিয়ে মনসুরকে ছিনিয়ে নেয়। এ ঘটনায় মঙ্গলবার বিকালে মাদ্রাসা ছাত্রীর পিতা বাদী হয়ে বালিয়াডাঙ্গী থানায় মনসুর আলীকে প্রধান আসামি করে ১১ জন ও অজ্ঞাতনামা ১০/১২ জনের নামে ২০০০ সালের নারী ও শিশু নির্যতন দমন আইনে ৯(১) ধারা তৎসহ ১৪৩, ৪৪৮, ৩২৩, ৩৭৯, ৫০৬ পেনাল কোর্ট ধারায়  মামলা দায়ের হয়েছে।

আজ বুধবার ভোরে পুলিশ মামলার প্রধান আসামির চাচাতো ভাই দবিরুল ইসলামের পুত্র সাহাজাহান গ্রেফতার করে জেল-হাজতে প্রেরণ করেছে। মামলার তদন্তকারি কর্মকর্তা এসআই নির্মল কুমার রায় জানান, আজ বুধবার ভিকটিমকে মেডিকেল ও ২২ ধারায় জবানবন্দি করা হয়েছে।

বালিয়াডাঙ্গী থানার ওসি (তদন্ত) সাইফুল ইসলাম জানান, সাহাজাহান নামে এক আসামিকে আটক করা হয়েছে ও বাকি আসামিদের গ্রেফতারের জন্য জোর তৎপরতা চলছে।

Print Friendly, PDF & Email