সৈয়দপুরে এনজিও সেবকের বিরুদ্ধে অনিয়মের অভিযোগ

 
 

সিসি নিউজ, ১৯ আগষ্ট ।। নীলফামারীর সৈয়দপুরে সেবক সঞ্চয় ও ঋণদান সমবায় সমিতি লিমিটেড নামের স্থানীয় একটি এনজিও’র বিরুদ্ধে ঋণ প্রদানের নামে প্রতারণা, অনিয়ম ও দূর্নীতির অভিযোগ মিলেছে। আজ সোমবার দুপুরে জিআরপি পুলিশ ক্লাব মিলনায়তনে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে ক্ষতিগ্রস্ত গ্রাহকের কাছ থেকে এ তথ‌্য পাওয়া গেছে।

ক্ষতিগ্রস্ত গ্রাহকের পক্ষে লিখিত বক্তব‌্যে সিঙ্গার বাংলাদেশ সৈয়দপুর শো-রুমের ব্যবস্থাপক মোঃ নুরুল আমিন প্রামানিক বলেন, আমার স্ত্রী ওই সমিতির নিয়মিত গ্রাহক। ইতোপূর্বে দুই দফায় ৫ লাখ ও ১০ লাখ টাকা সুদ-আসলে পরিশোধ করা হয়েছে। তৃতীয় দফায় ১২ লাখ টাকার ঋণ আবেদন করা হয়। কিন্তু সবকিছু সম্পন্ন করার পর ঋণ বাতিল করা হয়েছে বলে জানানো হয়। এতে গ্রাহক আর্থিকভাবে ক্ষতির শিকার হন। তিনি আরও বলেন, ওই এনজিও সরকার নির্দেশিত এক অঙ্কের সুদের স্থলে বর্তমানে গ্রাহকদের কাছ থেকে প্রায় ৪০ শতাংশ সুদ আদায় করছে। সেবক এনজিও’র এসব অনিয়ম-দূর্নীতিতে স্থানীয় উপজেলা সমবায় কর্মকর্তার যোগসাজস রয়েছে বলে সংবাদ সম্মেলনে অভিযোগ করা হয়।

সংবাদ সম্মেলনে জানানো হয়, ২০ সদস‌্যের পরিচালনা পর্ষদে সরকারী চাকুরীজীবি ও ব‌্যাংক কর্মকর্তা রয়েছে। এরা হলেন শাহজালাল ইসলামী ব‌্যাংক লিমিটেড ঠাকুরগাঁও শাখার ব‌্যবস্থাপক জিএম কামরুল হাসান শামীম, সোস‌্যাল ইসলামী ব‌্যাংক রানীরবন্দর শাখার সিনিয়র অফিসার মোজাহার হোসেন ও গোবিন্দগঞ্জ শাখার আসাদ আলী। সরকারী চাকুরীজীবিদের মধ‌্যে রয়েছেন তুলসীরাম সরকারী প্রাথমিক বিদ‌্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মোমিনুর রহমান খান ও সৈয়দপুর সরকারী কারিগরী মহাবিদ‌্যালয়ের প্রভাষক হাফিজুর রহমান খান। ব‌্যবসায়ীদের মধ‌্যে ওয়ালটন শো-রুমের ডিলার শাহিবুল ইসলাম লেবু ও রেডচিলি রেস্টুরেন্টের মালিক মমিনুল ইসলাম মিঠু। বাকী সদস‌্যরা হলেন উল্লেখিত সদস‌্যদের পরিবারের সদস‌্য।

উল্লেখ‌্য যে, সমবায় আইনে বিধি বিধানে মূলনীতি হলো দুঃস্থ, দরিদ্র ও স্বল্প আয়ের মানুষের আয় বৃদ্ধি ও স্বাবলম্বী করে তোলা। অথচ পরিচালনা পর্ষদের কেউ ওই শ্রেনীভুক্ত ব‌্যক্তি নন। তারা সমবায় নীতির ফাঁক-ফোকর ব‌্যবহার করে পরিচালক হয়েছেন। এ ছাড়া সদস‌্যের বড় অংশ সৈয়দপুরের স্থায়ী বাসিন্দা নন।

Print Friendly, PDF & Email