জাতীয় দলে ডাক পেলেন রহমত

 
 

খেলাধুলা ডেস্ক, ২০ আগষ্ট ।। মাগুরার মহম্মদপুরের একটি দরিদ্র পরিবার থেকে উঠে আসা রহমত মিয়ার গল্প। তিনি এখন বাংলাদেশ জাতীয় ফুটবল দলের নিয়মিত সদস্য। রহমত রক্ষণ ভাগের আস্থার প্রতীক হিসাবে ইতিমধ্যে বিশ্বকাপ ও এশিয়া কাপ বাছাই পর্বের জন্য বাংলাদেশ জাতীয় ফুটবল দলে ডাক পেয়েছেন।

তিনি বর্তমানে সাইফ স্পোর্টিং ক্লাব লিমিটেডের রক্ষণ ভাগের নিয়মিত খেলোয়াড়। রহমত উপজেলার জাঙ্গালিয়া গ্রামের হার্ডওয়ার ব্যবসায়ী মো. লুৎফার রহমানের ছেলে। বিশ্বকাপ ও এশিয়া কাপ বাছাই পর্বে ডাক পাওয়ার জন্য তাকে মহম্মদপুরের ক্রীড়াসংস্থা, রাজনৈতিক, সামাজিকসহ সর্বস্তরের জনগণ স্বাগত এবং বাংলাদেশ ফুটবল ফেডারেশনকে ধন্যবাদ জানিয়েছেন।

জানা যায়, আসন্ন কাতার বিশ্বকাপ ২০২২ এবং এশিয়া কাপ ২০২৩ এর যৌথ বাছাই পর্ব শুরু হবে আগামী ১০ সেপ্টেম্বর। এ বাছাই পর্বের জন্য জাতীয় দল ঘোষণা করেছে বাংলাদেশ ফুটবল ফেডারেশন। আফগানিস্তানের বিপক্ষে আগামী ১০ সেপ্টেম্বর তাজিকিস্তানের মাঠে খেলতে নামবে লাল সবুজের বাংলাদেশ দল।

আর সেই দলে ডাক পেয়েছেন মাগুরা জেলার মহম্মদপুর উপজেলার জাঙ্গালিয়া গ্রামের রহমত মিয়া। জাতীয় দলে হয়ে তার অভিষেক হয় ২০১৮ সালের মার্চ মাসে লাওসের বিপক্ষে। এর আগে তিনি ২০১৩ সালে বাংলাদেশ অনূর্ধ্ব ১৬ দলে, ২০১৫ সালে অনুর্ধ্ব১৯ দলের সহ অধিনায়ক, ২০১৭ সালের ২৩ দলের হয়ে দায়িত্ব পালন করেছেন।

এছাড়া ক্লাব ফুটবলে ওরিক্লাবের হয়ে বাংলাদেশ চ্যাম্পিয়ন (বিসিসি) লীগ, ফকিরাপুল ক্লাবের হয়ে এবং বর্তমানে সাইফ স্পোর্টিং ক্লাবের একজন নিয়মিত খেলোয়াড়। গত দুই মৌসুমে ক্লাব ফুটবলে রক্ষণ ভাগে দারুণ সময় পার করেছেন যার পুরস্কার হিসাবে তার বিশ্বকাপ ও এশিয়া কাপ বাছাই পর্বে জাতীয় দলে ডাক পাওয়া। জাতীয় দলে ডাক পাওয়া নিয়ে রহমত মিয়া আবেগফ্লুত হয়ে বলেন, আমার দরিদ্র পরিবারে জন্ম অনেক কষ্ট সহ্য করেও খেলাধুলা চালিয়েছি তবু কখনও খেলাধুলা বাদ দেইনি। জাতীয় দলে খেলা আমার স্বপ্ন ছিল, সুযোগ পেলেই দেশের ও দলের জন্য সর্বোচ্চ ত্যাগ স্বীকার করতে রাজি আছি।

তিনি আরো জানান, আমি সর্বদাই নিজেকে প্রস্তুত রেখেছি, যদি সুযোগ হয় তাহলে নিজের সেরাটা দিয়ে দলকে ভাল কিছু এনে দিয়ে দেশের মুখ উজ্জ্বল করতে চাই।

Print Friendly, PDF & Email