আসমাকে ধর্ষণের পর হত্যা করে ৪ যুবক

 
 

সিসি ডেস্ক, ২৪ আগষ্ট ।। পঞ্চগড়ের মাদরাসা ছাত্রী আসমা আক্তারকে (১৭) ঢাকায় নিয়ে যাওয়ার কথা প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে পুলিশের কাছে স্বীকার করেছে মামলার প্রধান আসামি এবং আসমার প্রেমিক মারুফ হাসান বাধন (১৭)। একই সঙ্গে সেদিন ঠিক কী ঘটেছিল তাও জানিয়েছে পুলিশের কাছে। বৃহস্পতিবার দিবাগত রাতে বাধনকে পঞ্চগড় সদর থানা পুলিশ গ্রেপ্তার করে। যদিও বাধনের পরিবার বলছে, বাধন নিজের ইচ্ছায় পুলিশের কাছে আত্মসমর্পণ করেছে।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক পঞ্চগড়ের এক পুলিশ কর্মকর্তা বাধনের উদ্ধৃতি দিয়ে জানান, প্রেমের সূত্র ধরে বাধন আসমাকে নিয়ে ১৮ আগস্ট পঞ্চগড় এক্সপ্রেসে করে রাতের বেলায় ঢাকার কমলাপুর রেলওয়ে স্টেশনে পৌঁছে। সেখানে রাতের খাবার খাওয়ার পর স্টেশনের আশপাশের আবাসিক হোটেলগুলোতে থাকার চেষ্টা করে। কিন্তু পরিচয়পত্র না থাকায় এবং প্রাপ্তবয়স্ক না হওয়ায় কেউ তাদের হোটেলে থাকতে দেয়নি। পরে বাধন ও আসমা বলাকা কমিউটারের একটি পরিত্যক্ত বগিতে উঠে শুয়ে পড়ে। এ সময় তাদের আপত্তিকর অবস্থায় দেখে ফেলে অপরিচিত চারজন যুবক। পরে বাধনকে পাশের বগিতে নিয়ে বেঁধে রেখে আসমাকে ধর্ষণ করে। একপর্যায়ে শ্বাসরোধ করে হত্যা করে পালিয়ে যায় তারা। পরে বাধনও সেখান থেকে পালিয়ে পঞ্চগড়ের উদ্দেশে রওনা হয়। পরদিন সকালে ওই পরিত্যক্ত বগি থেকে আসমার লাশ উদ্ধার করে পুলিশ। এরপর থেকেই বাধন বিভিন্ন স্থানে আত্মগোপন করে।

এই ঘটনার পর গত ২০ আগস্ট আসমার চাচা রাজু ইসলাম প্রেমিক মারুফ হাসান বাধনকে প্রধান আসামি করে ধর্ষণ ও হত্যা মামলা দায়ের করেন। আসমার ময়নাতদন্তেও প্রাথমিকভাবে ধর্ষণের পর হত্যা করা হয়েছে বলে জানিয়েছে পুলিশ।

এদিকে চারপাশে আসমা হত্যার বিষয়টি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমসহ বিভিন্নভাবে ছড়িয়ে পড়ায় আতঙ্কিত হয়ে পড়ে বাধন। পুলিশের দাবি, গত বৃহস্পতিবার দিবাগত রাতে বাধনকে তারা গ্রেপ্তার করে। তবে কোথা থেকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে তা বলছে না। বাধনের মা বিলকিস বেগম বলেন, বাধন নিজেই পুলিশের কাছে ধরা দিয়েছে। বাধনের সঙ্গে ওই চার যুবকের যোগসূত্র আছে কিনা তা খতিয়ে দেখছে পুলিশ।

শুক্রবার সন্ধ্যা ৬টায় বাধনকে কমলাপুর রেলওয়ে পুলিশের কাছে হস্তান্তর করা হয়। এ সময় পঞ্চগড় পুলিশের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার নাঈমুল হাছান, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (সদর সার্কেল) সুদর্শন রায় এবং পঞ্চগড় সদর থানার ওসি আবু আক্কাস আহমদ উপস্থিত ছিলেন।

পঞ্চগড় পুলিশ সুপার ইউসুফ আলী বলেন, বাধনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। আত্মসমর্পণ হয় আদালতে, পুলিশের কাছে আত্মসমর্পণের কোনো সুযোগ নেই। তাকে মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তার হাতে হস্তান্তর করা হয়েছে। ঘটনা এবং মামলা কমলাপুর রেলওয়ে থানাতে হওয়ায় মামলা সংক্রান্ত বিষয়ে তেমন কিছু বলতে পারবো না। এ বিষয়ে সংশ্লিষ্ট থানার কর্মকর্তারাই ভালো বলতে পারবেন।

কালেরকন্ঠ

Print Friendly, PDF & Email