খানসামা উপজেলা ছাত্রলীগের কাউন্সিলে পদ প্রত্যাশী যারা

 
 

এস. এম. রকি, খানসামা (দিনাজপুর)।।  দীর্ঘ ১৬ বছর পর হতে যাওয়া দিনাজপুরের খানসামা উপজেলা ছাত্রলীগের কাউন্সিলের আভাসে আনন্দ-উচ্ছ্বাস বিরাজ করছে ছাত্রলীগ নেতাকর্মীদের মধ্যে। অপরদিকে একই সঙ্গে শুরু হয়েছে পদপ্রত্যাশীদের লবিং-তদবির।

বয়সের কারণে যারা প্রার্থী হতে পারবেন না তাদের মধ্যে দেখা দিয়েছে সাবেক হওয়ার ক্ষণ গণনা। রাজনীতিতে কাক্ষিত ক্যারিয়ার গড়তে না পেরে চাকরির বয়স পার করে আবার অনেকে ডুবছেন হতাশায়।

পদ পেতে চলছে পদ প্রত্যাশীদের ব্যাপক দৌঁড়ঝাপ । দলের জন্য দীর্ঘদিন নিবেদিত প্রাণ হয়ে কাজ করলেও পদ পাননি এমন কর্মীরাও আছেন শেষ মূহুর্তের চেষ্টায়। আবার রাজনীতিতে নতুনরাও আছে পদপ্রত্যাশীদের তালিকায়।

সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক পদে বেশ কয়েকজনের নাম শোনা যাচ্ছে। দলের তৃণমূল নেতাকর্মীদের সঙ্গে কথা বলে আভাস পাওয়া গেছে, স্বচ্ছ ইমেজ, দলের প্রতি নিবেদিত প্রাণ এবং কর্মীবান্ধব এমন নেতাদের সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক পদে দেখতে চান তারা।

পদ পেতে যাদের নাম আলোচনায় রয়েছে তারা হলেন উপজেলা ছাত্রলীগের সদস্য রাকেশ গুহ, আংগারপাড়া ইউনিয়ন ছাত্রলীগের আহ্বায়ক লিটন ইসলাম লিটু, ভেড়ভেড়ী ইউনিয়ন ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক মোস্তাওফিক আহম্মেদ শামীম, মেধাবী ছাত্রলীগ নেতা আবু নাসের সরকার, পাকেরহাট সরকারী কলেজ ছাত্রলীগের আহ্বায়ক মোসাব্বের আলম, আংগারপাড়া ইউনিয়ন ছাত্রলীগের যুগ্ম-আহ্বায়ক ডালিম কুমার রায়, চন্দ্রদ্বীপ ও আবু হেনা, ছাত্রলীগ নেতা সুমন ও আংগারপাড়া ইউনিয়ন ছাত্রলীগের সদস্য সুমন শাহ।

এবিষয়ে উপজেলা ছাত্রলীগের আহ্বায়ক রেজাউল করিম বলেন, দুঃসময়ে যারা ছাত্রলীগের জন্য কষ্ট করেছেন এবং ত্যাগী,পরিশ্রমী তারাই নেতৃত্বে আসবে।

নতুন কমিটির ব্যাপারে দিনাজপুর জেলা ছাত্রলীগের সভাপতি তানভীর ইসলাম রাহুল বলেন, ‘আমার কোন পছন্দ অপছন্দ নাই। তবে আমি চাই যারা বঙ্গবন্ধুর আদর্শকে বুকে লালন পালন করেন আর যাদের বিরুদ্ধে অভিযোগ নেই এবং আগামীদিনে যে কোনো দুঃসময় মোকাবেলা করতে পারবে এমন যোগ্যতাসম্পন্নরা যেন নেতৃত্বে আসতে পারে সেবিষয়ে আমরা সজাগ আছি।

উল্লেখ্য, ২০০৩ সালে সর্বশেষ কাউন্সিলে এরশাদ জামানকে সভাপতি ও রেজাউল করিমকে সাধারণ সম্পাদক নির্বাচিত করা হয় এবং ২০১২ সালে রেজাউল করিমকে আহ্বায়ক করে কমিটি হয়।

Print Friendly, PDF & Email