স্বাধীনতা পুরস্কার ফিরিয়ে দেন অধ্যাপক মোজাফফর

 
 

সিসি ডেস্ক, ২৪ আগষ্ট ।। একাত্তরে মুক্তিযুদ্ধে মুজিবনগর সরকারের ৬ উপদেষ্টার অন্যতম ছিলেন অধ্যাপক মোজাফফর আহমদ। ব্রিটিশ বিরোধী আন্দোলন, ভাষা আন্দোলন থেকে শুরু করে স্বাধীনতা যুদ্ধেও তার ভূমিকা স্মরণীয়। মুক্তিযুদ্ধের সময় ন্যাপ, সিপিবি ও ছাত্র ইউনিয়ন থেকে প্রায় ১৯ হাজার মুক্তিযোদ্ধাকে সংগঠিত করেছিলেন তিনি। ২০১৫ সালে স্বাধীনতা পুরস্কারে মনোনীত হলেও ফিরিয়ে দেন সবিনয়ে।

অবিভক্ত ভারতে ব্রিটিশ বিরোধী আন্দোলন তখন তুঙ্গে। মহাত্মা গান্ধীর ভাষণে অনুপ্রাণিত হয়ে ১৯৩৭ সালে ১৫ বছর বয়সে রাজনীতিতে যুক্ত হন মোজাফফর আহমদ। অংশ নেন গান্ধীর ব্রিটিশ বিরোধী অহিংস আন্দোলনে। দেশভাগের পর বায়ান্নর ভাষা আন্দোলনেও ছিলেন তিনি।

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অর্থনীতি বিভাগে অধ্যাপনা করেন ১৯৫২ থেকে ১৯৫৪ সাল পর্যন্ত। চুয়ান্ন নির্বাচনে যুক্তফ্রন্ট প্রার্থী হিসেবে ক্ষমতাশীন মুসলিম লীগের শিক্ষামন্ত্রী মফিজুল ইসলামকে বিপুল ভোটে হারিয়ে নজির সৃষ্টি করেন তিনি।

১৯৫৭-র ৩রা এপ্রিল পূর্ববঙ্গ প্রাদেশিক পরিষদে ন্যাপ প্রতিনিধি হিসেবে উত্থাপন করেন আঞ্চলিক স্বায়ত্তশাসনের প্রস্তাব। গ্রেপ্তার এড়াতে আত্মগোপনে থাকেন আট বছর আবারও প্রকাশ্য রাজনীতিতে আসেন ১৯৬৬ সালে।

১৯৬৮ সালে ন্যাপ ভাগ হলে, একাংশে মাওলানা ভাসানী আর অন্য অংশের নেতৃত্ব ছিলেন অধ্যাপক মোজাফফর। উনসত্তরের আইয়ুববিরোধী আন্দোলনে নেতৃত্ব দিয়ে করেন কারাবরণ।

একাত্তরে মুক্তিযুদ্ধে মুজিবনগর সরকারের ৬ সদস্যের উপদেষ্টা পরিষদের ও ছিলেন তিনি। বাংলাদেশের স্বাধীনতার পক্ষে আন্তর্জাতিক সমর্থন আদায়ে ছুটেছেন বিশ্বের নানা দেশে। সরকারের পক্ষে প্রতিনিধিত্ব করেন জাতিসংঘে।

সদ্য স্বাধীন দেশে বঙ্গবন্ধুর মন্ত্রিসভার সদস্য হওয়ার আহ্বানে সাড়া দেননি। ৭৯তে সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন দেবীদ্বার থেকে। ৮১তে দাঁড়ান রাষ্ট্রপতি নির্বাচনে। নব্বইয়ের স্বৈরাচারবিরোধী আন্দোলনের শুরুতেই কারারুদ্ধ হন অধ্যাপক মোজাফফর।

২০১৫ সালে স্বাধীনতা পদকের জন্য মনোনীত হলেও সবিনয়ে তা ফিরিয়ে দেন বর্ষিয়ান এই রাজনীতিক। তিনি বলেছিলেন, পদকের জন্য মুক্তিযুদ্ধ করেননি তিনি।

ইনডিপেনডেন্ট টেলিভিশন

Print Friendly, PDF & Email