এমপি পংকজ নাথের বিরুদ্ধে মিথ্যা প্রচারে প্রতিবাদের ঝড়

 
 

সিসি ডেস্ক, ২৯ আগষ্ট ।। বরিশাল-৪ আসনের সংসদ সদস্য পংকজ নাথের বিরুদ্ধে চক্রান্তমূলক তথাকথিত ভিডিও প্রচারকে কেন্দ্র করে অনলাইন এক্টিভিস্ট, সাংবাদিক, রাজনৈতিক ব্যক্তিবর্গসহ সর্বস্তরের জনসাধারণের মধ্যে প্রতিবাদের ঝড় উঠেছে।

এটাকে আওয়ামী লীগ ও সরকারের বিরুদ্ধে চক্রান্ত হিসেবেই দেখছেন অনেকে। পংকজ নাথ আওয়ামী লীগের একজন পরিচ্ছন্ন রাজনীতিক ও দায়িত্বশীল পার্লামেন্ট সদস্য। তার বিরুদ্ধে এমন অপপ্রচারে অনেকে অবাক ও হতাশ হয়েছেন।

প্রতিবাদ জানিয়ে পংকজ নাথের পক্ষে থাকার ঘোষণা দিয়েছেন স্বেচ্ছাসেবকলীগ কেন্দ্রীয় কমিটির সভাপতি মোল্লা মোহাম্মদ আবু কাউসার। তিনি সকল ষড়যন্ত্রের দাঁতভাঙা জবাব দিতে নেতাকর্মীদের প্রস্তুত থাকার আহ্বান জানান।

বরিশাল-৪ এর হিজলা উপজেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক ও বড়জালিয়া ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান পণ্ডিত শাহাবুদ্দিন আহমেদ বলেন, ‘পংকজ নাথ এ অঞ্চলের জনপ্রিয় নেতা। তার ব্যক্তি ইমেজ ও রাজনৈতিক কর্মকাণ্ডে ঈর্ষান্বিত হয়ে একটি মহল দল ও সরকারের বিরুদ্ধে সড়যন্ত্রের অংশ হিসেবে তার বিরুদ্ধে মিথ্যা এবং ভিত্তিহীন অপপ্রচার শুরু করেছে। আমরা এর তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানাই। অবিলম্বে এর সাথে জড়িত সবাইকে আইনের আওতায় আনার আহ্বান জানাচ্ছি।’

গত সোমবার (২৬ আগস্ট) সন্ধ্যার পর মুহূর্তেই সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে একটি ভিডিও ছড়িয়ে পড়ে। ৫ মিনিট ৪৮ সেকেন্ডের ভিডিওতে একজন পুরুষ ও একজন নারীকে অন্তরঙ্গ অবস্থায় দেখা যায়। আর সেটিকে পংকজ নাথের ভিডিও বলে চালিয়ে দেয়া হয়।

এ বিষয়ে পংকজ নাথ বলেন, ‘তার বিরুদ্ধে ধারাবাহিক ষড়যন্ত্রের অংশ হিসেবে এটিকে প্রচার করা হচ্ছে। এটি অপপ্রচার।’ আওয়ামী লীগের এই নেতা বলেন, ‘আমার বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্র তো নতুন নয়। এর আগেও আমাকে নিয়ে বিভিন্ন ধরনের ষড়যন্ত্র হয়েছে। এবারও যা হচ্ছে। সেটিও ওই ধারবাহিক ষড়যন্ত্রের অংশ।’

পংকজ দেবনাথ বলেন, এটাকে আমি তেমন কোনো বিষয় মনে করি না। কারণ বিষয়টির কোনো সত্যতা নেই। যদিও আমি ভিডিওটি বা ভাইরাল হওয়া বিষয়টি এখনো দেখিনি। তবে আমার পরিবার আমাকে এটা শিক্ষা দেয়নি।

অনুসন্ধানে জানা গেছে, ভাইরাল হওয়া ভিডিওতে থাকা ব্যক্তি বরিশালের মেহেন্দিগঞ্জ উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান ও উপজেলা আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি খোরশেদ আলম ভুলু। তবে তাকে যে নারীর সঙ্গে অন্তরঙ্গ অবস্থায় দেখা যায়, সে তার সাবেক স্ত্রী বলে জানান ভাইস চেয়ারম্যান খোরশেদ আলম ভুলু।

তিনি বলেন, এটি তিন বছরের আগের ঘটনা। রাজনৈতিক প্রতিপক্ষ আমার রাজনৈতিক বিচক্ষণতায় ঈর্ষান্বিত হয়ে মানহানির জন্যই এটি করেছে।

Print Friendly, PDF & Email