অধিকারের দাবি: রেলের ভূমিতে বসবাসকারীদের মাঝে ভূমি বন্দোবস্তের

 
 

সিসি নিউজ, ৪ সেপ্টেম্বর।। নীলফামারীর সৈয়দপুরে রেলভূমিতে বসবাসকারীদের উচ্ছেদ না করে বরাদ্দ কিংবা বন্দোবস্তের দাবিতে সংবাদ সম্মেলন হয়েছে। রেলভূমিতে বসবাসকারীদের সংগঠন অধিকার এর পক্ষ থেকে আজ বুধবার বেলা ১১টায় ওই সংবাদ সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়। সৈয়দপুর রেলওয়ে জেলা পুলিশ ক্লাবে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্য পাঠ করেন রেলভূমিতে বসবাসকারীদের সংগঠন অধিকার এর সভাপতি ও সৈয়দপুর উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান মো. মোখছেদুল মোমিন।
লিখিত বক্তব্যে বলা হয় নীলফামারীর সৈয়দপুর মূলতঃ একটি রেলওয়ে শহর। বিগত ১৮৭০ সালে এখানে দেশের বৃহত্তম সৈয়দপুর রেলওয়ে কারখানা গড়ে উঠে। আর ১৯৪৭ সালে দেশ বিভক্তের পর পাশের দেশ ভারতের বিভিন্ন প্রদেশ থেকে বিপুল সংখ্যক উর্দূভাষী (বিহারী) ও বাঙ্গালী এসে সৈয়দপুর কারখানা চাকরির নেয়। পাশাপাশি তারা বিভিন্ ধরনের ক্ষুদ্র শিল্প-কলকারখানা ও ব্যবসা-বাণিজ্য গড়ে তোলেন। আর তারা রেলওয়ের পতিত ভূমিতে বাসাবাড়ি নির্মাণ করে বসবাস শুরু করেন। সময় ও জনসংখ্যা বেড়ে যাওয়ার কারণে রেলওয়ের পতিত জায়গায় অবৈধভাবে বসবাসকারীর সংখ্যাও বাড়তে থাকে। সময়ের পরিক্রমায় সৈয়দপুরে রেলওয়ে জমিতে অবৈধভাবে বিভিন্ন ধর্মীয়, সামাজিক, সাংস্কৃতিক ও নানা রকম শিক্ষা প্রতিষ্ঠান গড়ে উঠে। এছাড়াও উর্দূভাষীরা রেলওয়ের ভূমিতে ২২টি ক্যাম্পে বসবাস করছে। এ সব উর্দূভাষী ক্যাম্পে বিহারীরা পরিবার পরিজন নিয়ে অনেকটাই মানবেতর জীবনযাপন করছেন। অপরদিকে, সৈয়দপুর শহরের ২৫ দশমিক ৩৪ একরের বেশি পরিমাণ জমি নিয়ে দীর্ঘদিন যাবৎ রেলওয়ে ও পৌরসভার বিরোধ চলছে।
এ অবস্থায় রেলওয়ের ভূ-সম্পদ কর্মকর্তা আগামী ২৯ ও ৩০ সেপ্টেম্বর সৈয়দপুরে রেলওয়ের ভূমিতে বসবাসকারীদের উচ্ছেদের ঘোষণা দিয়েছে । এতে করে কমপক্ষে ২০ হাজার পরিবারের লক্ষাধিক মানুষ আশ্রয়হীন হয়ে পড়বে। সংবাদ সম্মেলন থেকে রেলওয়ের ভূমি বন্দোবস্তের নীতিমালা পরিবর্তন করে যে যেখানে বসবাস করছে, সেই ভূমিই শুধুমাত্র তাদের নামে বন্দোবস্ত দেয়ার দাবি জানানো হয়।
এর আগে গত মঙ্গলবার বিষয়টি মানবিক বিবেচনায় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে নীলফামারী জেলা প্রশাসকের মাধ্যমে একটি স্মারকলিপি দেওয়া হয়েছে বলে সংবাদ সম্মেলনে জানানো হয়। কাল বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় শহরের শেরে বাংলা সড়কে একই দাবির সমর্থনে জনসভা অনুষ্ঠিত হবে। এমনকি গণদাবি আদায়ে জনমত দৃঢ় করতে আগামী ১৪ সেপ্টেম্বর কয়েক কিলোমিটার জুড়ে মানববন্ধন অনুষ্ঠিত হবে।
সংবাদ সম্মেলনে অন্যদের মধ্যে বক্তব্য দেন অধ্যক্ষ মো. সাখাওয়াৎ হোসেন খোকন, মো. রফিককুল ইসলাম বাবু, হাজী তাসলিম উদ্দিন, আশরাফুল হক বাবু, আনোয়ার হোসেন বাঙালী প্রমুখ।

Print Friendly, PDF & Email