সংসদের বিরোধীদলের নেতার পদ নিয়ে দেবর-ভাবি মুখোমুখি

 
 

সিসি ডেস্ক, ৪ সেপ্টেম্বর।। জাতীয় সংসদের প্রধান বিরোধীদল জাতীয় পার্টিতে বিরোধীদলের নেতার পদকে ঘিরে আবারো শুরু হয়েছে রশি টানাটানি।এ নিয়ে দলের ভিতরে বিদ্রোহ এখন তুঙ্গে। রয়েছে দল ভাঙার আশংকা। বিশেষ করে মঙ্গলবার বিকালে জিএম কাদেরকে বিরোধীদলের নেতা বানানোর জন্য সংসদের স্পিকার বরারব চিঠি দেয়ার পর নড়েচড়ে বসেছেন রওশন সমর্থকরা।

বৃহস্পতিবার তার গুলশানের বাসভবনে বেলা ১১টায় জরুরি সংবাদ সম্মেলন ডেকেছেন রওশন। এদিকে স্পিকার বরাবর জিএম কাদেরের দেয়া চিঠি গঠনতন্ত্র সম্মত নয় বলে বুধবার বিকালে স্পিকার বরাবর পাল্টা চিঠি দিয়েছেন রওশন এরশাদ। স্পিকার বরাবর রওশনের চিঠি পৌঁছে দেন রওশনপন্থী বলে পরিচিত ফখরুল ইমাম।

বুধবার পার্টির ১৫ জন এমপি স্বাক্ষরিত চিঠিটি স্পিকারের দফতরে পৌঁছে দেন কাজী ফিরোজ রশীদ। এসময় জাপার সংসদ সদস্য শামীম হায়দার পাটোয়ারী, নাজমা আকতার, শরিফুল ইসলাম জিন্নাহ, মেজর অব. রানা মোহাম্মদ সোহেল ও আদেলুর রহমান উপস্থিত ছিলেন। চিঠিতে তারা ছাড়াও আরো স্বাক্ষর করেছেন পার্টির চেয়ারম্যান গোলাম মোহাম্মদ কাদের, মহাসচিব মসিউর রহমান রাঙ্গা, সৈয়দ আবু হোসেন বাবলা, অধ্যাপিকা মাসুদা রশিদ চৌধুরী, লে. জে. অব. মাসুদ উদ্দীন চৌধুরী, গোলাম কিবরিয়া টিপু, নুরুল ইসলাম তালুকদার, সালমা ইসলাম ও পনির উদ্দিন আহমেদ।

চিঠির খবর রওশন এরশাদের কাছে পৌঁছলে তিনি দলীয় এমপিদের সন্ধ্যায় নিজ বাসায় আসতে বললেও মাত্র চারজন হাজির হন। বুধবার দুপুরেও নিজ অনুসারীদের নিয়ে বৈঠকে বসেন রওশন। সেখানে চারজন এমপি উপস্থিত ছিলেন বলে বৈঠক সুত্রে জানা যায়। বৈঠকে উপস্থিত এক নেতা জানান, পার্টি সংসদীয় কোনো সভা ছাড়া কোনো সিদ্ধান্ত কেউ নিতে পারে না। ম্যাডাম( রওশন) আগামী ৮ তারিখে সংসদে আমাদের সংসদীয় দলের সভা ডেকেছেন। সেখানেই আমরা বিরোধীদলের নেতার বিষয়ে সিদ্ধান্ত নিবো।

এদিকে রওশন সমর্থকরাকোনঠাসা হয়ে পড়াতে উজ্জীবিত জিএম কাদের সমর্থকরা। বিশেষ করে মঙ্গলবার ও বুধবার দুই দফা অনেককে ফোন করেও কাছে পাননি রওশন এরশাদ। এ মুহূর্তে তার সঙ্গী হয়েছেন ব্যারিস্টার আনিসুল ইসলাম মাহমুদ, মজিবুল হক চুন্নু ও ফখরুল ইমাম।

অপরদিকে নতুন করে জাপায় নেতৃত্ব নিয়ে পারিবারিক বিভেদে অস্থিরতায় ভুগছে পার্টির তৃণমূল নেতাকর্মীরা। বিশেষ করে পার্টির প্রতিষ্ঠাতা চেয়ারম্যান প্রয়াত হুসেইন মুহম্মদ এরশাদের মৃত্যুর পর থেকেই পার্টিতে দেবর-ভাবির দ্বন্দ্ব অনেকটাই স্পষ্ট। এরমধ্যে একাধিকবার রওশন ও জিএম কাদের রওশনের গুলশানের বাসভবনে একান্তে কথা বলেন। কিন্তু দুইদিন যেতে না যেতেই আবার তাদের মাঝে বিরোধ সৃষ্টি হতে থাকে। জিএম কাদেরকে পার্টির চেয়ারম্যান ঘোষণা করা হলে এর বিরোধীতা করেন রওশন। আসন্ন সংসদ অধিবেশনেই বিরোধীদলের নেতা নির্বাচিত হবার কথা। এর আগেই পার্টির অধিকাংশ এমপিরা জিএম কাদেরকে বিরোধীদলের নেতা নির্বাচিত করার জন্য স্পিকারকে চিঠি দিলে চরম নাখোশ হন রওশন এরশাদসহ তার সমর্থকরা। যদিও নাটকীয়ভাবে পার্টিতে রওশন সমর্থকদের সংখ্যা হ্রাস পেয়েছে। তারপরও যেকোনো কিছুর বিনিময়ে জিএম কাদেরকে বিরোধীদলের নেতা মানতে নারাজ রওশন। বিরোধীদলের নেতা পদ নিয়ে আবারো মুখোমুখি অবস্থানে দেবর-ভাবি।

এ বিষয়ে পার্টির প্রেসিডিয়াম সদস্য হাজী সাইফুদ্দিন আহমেদ মিলন বলেন, পার্টির সকল নেতাকর্মীরাই চান পার্টির পাশাপাশি রিবোধীদলের নেতা হোক জিএম কাদের। তার সাথে পার্টির তৃণমূলের যে সম্পর্ক রয়েছে তাতে তিনি বিরোধীদলের নেতা হলে দল উপকৃত হবে।

পার্টির অপর প্রেসিডিয়াম সদস্য এটিইউ তাজ রহমান বলেন, পার্টিতে পারিবারিক দ্বন্দ্ব বা বিভেদ কাম্য নয়। যত দ্রুত সম্ভব তা মিটিয়ে ফেলা উচিত। এতে পার্টি, পার্টির নেতাকর্মী ও দেশ উপকৃত হবে।

সার্বিক বিষয়ে পার্টির চেয়ারম্যান জিএম কাদের বলেন, বিরোধী দলীয় নেতা মনোনয়ন প্রশ্নে জোর করে কিছু করা হয়নি। জাতীয় পার্টির গঠনতন্ত্র অনুযায়ী চিঠি দেয়া হয়েছে। পার্লামেন্টারি পার্টির বৈঠক না করায় বিতর্ক উঠেছে এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, এরশাদ সাহেব যখন বেঁচে ছিলেন তিনিও কিন্তু এভাবে বিরোধীদলীয় নেতা হয়েছিলেন, আমাকে বিরোধীদলীয় উপনেতা করেছিলেন। পরে আমাকে সরিয়ে রওশন এরশাদকে উপনেতা করা হয়, তখনও কিন্তু পার্লামেন্টারি পার্টির কোনো মিটিং করা হয়নি।

তিনি বলেন, আমরা ফোনে সংসদ সদস্যদের জিজ্ঞেস করেছি। তারা সম্মতি দিয়েছে। লিখিত দিতে বলা হলে ১৫ জন সম্মতিপত্র দিয়েছে। ২৫ জনের মধ্যে ১৫ জন সম্মতি দিলে আর কিছু লাগে না। তাই অন্যদের বলা হয়নি। এখন আরো অনেকে দিতে চাচ্ছে। প্রয়োজন নেই বলে নেয়া হচ্ছে না।

এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, অন্য কেউ পার্লামেন্টারি পার্টির সভা ডাকতে পারেন না। ডাকতে হলে আমিই ডাকবো।

Print Friendly, PDF & Email