জয়পুরহাট টিটিসি’র অধ্যক্ষের বিরুদ্ধে দূর্নীতির অভিযোগ

 
 

মোমেন মুনি, জয়পুরহাট, ১২ সেপ্টেম্বর।। জয়পুরহাট সরকারি কারিগরী প্রশিক্ষন কেন্দ্রের অধ্যক্ষ প্রকৌঃ দেলোয়ার উদ্দিন আহম্মেদের বিরুদ্ধে অর্থ আত্মসাত, অনিয়ম, দূর্নীতি ও স্বজন প্রীতির বিস্তর অভিযোগ পাওয়া গছে।

জানা গেছে, দেশে দক্ষ জনগোষ্ঠি গড়ে তোলার লক্ষ্যে সরকারি আনুকল্যে ২০১৬ সালের জুলাই মাসে জয়পুরহাট কারিগরী প্রশিক্ষণ কেন্দ্র (টিটিসি) নামক প্রতিষ্ঠানটি প্রতিষ্ঠা লাভ করে। ইলেকট্রিক্যাল, কম্পিউটার, গার্মেন্টস্, ইলেকট্রনিক্স, অটোমেটিভ ও অটোক্যাট -এই ৬টি ট্রেড নিয়ে প্রতিষ্ঠানটি কার্যক্রম শুরু করে। এই ট্রেড গুলোর মধ্যে একজন রাজস্ব খাতের প্রশিক্ষক ছাড়া অবশিষ্টগুলোতে খন্ডকালীন প্রশিক্ষক নিয়োগ দেওয়া হয়।

এরই মধ্যে ২০১৯ সালের ১৪ই জানুয়ারী অধ্যক্ষ হিসাবে দায়িত্ব রাভ করেন প্রকৌঃ দেলোয়ার উদ্দিন আহম্মেদ। অধ্যক্ষের দায়িত্ব পাওয়ার পর থেকেই তিনি জয়পুরহাট টিটিসিকে বিভিন্ন অনিয়ম ও দূর্নীতির আখড়ায় পরিনত করেছেন বলে অভিযোগ উঠেছে।

সরেজমিনে জানা যায়, অভিজ্ঞতা না থাকা সত্ত্বেও অধ্যক্ষ তার শ্যালক ওয়াসিম মিয়াকে ২ মাস মেয়াদী মোটর ড্রাইভিং এর প্রশিক্ষক হিসেবে নিয়োগ দেন। এছাড়াও বিভিন্ন প্রশিক্ষনার্থীদের সারা বছরের খাবার পরিবেশনসহ প্রতিষ্ঠানের বিভিন্ন কার্যক্রম নিয়ন্ত্রন করে অধ্যক্ষের শ্যালক। শ্যালকের মাধ্যমে তদবীর না করলে কোন কাজ হয় না এই টিটিসিতে।

মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের নির্দেশনা মোতাবেক ও অর্থ বিভাগের সহায়তায় সেইপ (ঝবরঢ়) প্রকল্পের আওতায় দক্ষ গাড়ী চালক তৈরীর নিমিত্তে বিনা খরচে দরিদ্র, মহিলা, মুক্তিযোদ্ধা পরিবারের সন্তান ও অনগ্রসর জনগোষ্ঠীকে অগ্রাধিকার দিয়ে ড্রাইভিং কোর্সে ভর্তির সুযোগ দেওয়া, যারা ড্রাংভিংকে পেশা হিসেবে গ্রহন করে দেশে বিদেশে দক্ষ ড্রাইভার হিসেবে চাকুরী করে আত্ম নির্ভরশীল হবেন। কিন্তু অধ্যক্ষ তার অন্যান্য অনিয়ম ও দুর্নীতিকে ধামাচাপা দিতে স্থানীয় নেতা ও জেলার উর্দ্ধতন কর্মকর্তাদের পছন্দমত প্রশিক্ষার্থীদের ভর্তির সুযোগ দিয়ে প্রকৃত যোগ্যতা সম্পন্ন মেধাবীদের বঞ্চিত করেছেন।

রেজুলেশন বা কোন সিদ্ধান্ত ছাড়াই অধ্যক্ষ তার শ্যালককে দিয়ে প্রতি ফরমের মূল্য ১ শত টাকা করে প্রায় ২৮৭টি ফরম বিতরণ করেন। এখানে মৌখিক পরীক্ষায় বাংলাদেশ রোড ট্রান্সপোর্ট অথিরিটি ও জেলা প্রশাসনের কর্মকর্তাদের অংশ গ্রহনের বিধান থাকলেও তা না করে অধ্যক্ষ তার পছন্দমত লোকজনকে দিয়ে পরীক্ষা পরিচালনা করছেন। এছাড়া অধ্যক্ষ মৌখিক পরীক্ষায় অধ্যক্ষের পূর্ন সময় থাকার কথা থাকলেও তিনি একবার এসেই চলে যান। পরে নিজেই রেজাল্ট শীট তৈরী করে ফেসবুক এবং অফিসের দেওয়ালে লাগিয়ে দেন। এভাবে ২০১৯ সেশনের দুটি শিফটে ৫ম ও ৬ষ্ঠ ব্যাচে মোট ৪০ জন এবং ২০২০ সেশনের জানুয়ারী-এপ্রিল দুটি শিফটে ৪০ জনকে ৭ম ও ৮ম ব্যাচের জন্য অগ্রিম ভর্তির রেজাল্ট দেওয়া হয়েছে।

জয়পুরহাট সদরের হিচমী পশ্চিমপাড়ার আরিফুল ইসলাম, আব্দুর মোমিন,আল-আমিনসহ একাধিক পরীক্ষার্থী জানান, ড্রাংভিংকে পেশা হিসেবে গ্রহণ করতে তিন বার পরীক্ষা দিয়েছি। কিন্তু নেতাদের সুপারিশের লোক থাকায় আমরা ভর্তির সুযোগ পাইনি।

এদিকে টিটিসির প্রশিক্ষনার্থী আব্দুর রাহিম, শাহ জলিল,রাসেল জানান, আমরা এই ক্যাম্পাসের মধ্যে মটর ড্রাইভিং শিখি। শুধু ক্যাম্পাসের ২০০ গজ জায়গায় ড্রাইভিং স্টেয়ারিং ধরা শিখায়। আমাদেরকে বাহিরে নিয়ে গিয়ে ড্রাইভিং শেখানোর কথা থাকলেও কর্তৃপক্ষ তা করেনা। ফলে শুধু লাইসেন্সই জুটবে, দক্ষ ড্রাইভার আর হওয়া হবে না।

নাম প্রকাশে অনেচ্ছুক একাধিক নারী প্রশিক্ষনার্থী অভিযোগ করে জানান, সরকারীভাবে খাবারের জন্য প্রতি প্রশিক্ষনার্থীর জন্য ৩ হাজার টাকা বরাদ্দ থাকলেও টিটিসি ক্যাম্পাসের মধ্যে লাগানো পেঁপে ও কলার তরকারিসহ নিম্ন মানের খাবার দেওয়া হয়। এই খাবারের দায়িত্বে থাকেন অধ্যক্ষের শ্যালক ও স্ত্রী।

জয়পুরহাট কারিগরি প্রশিক্ষন কেন্দ্রের চাকুরীরত নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক কয়েকজন কর্মচারী জানান, এই অধ্যক্ষ আসার পর আমাদের কর্মচারীদের উপর বিভিন্নভাবে অত্যাচার করে। এমনকি আমাদের বেতনের টাকা থেকেও তাকে সন্তুষ্ট করতে হয়।
খন্ডকালীন প্রশিক্ষক হওয়ায় আমরা কেউ তার বিরুদ্ধে কথা বলতে পারিনা।

ইন্সট্রাক্টর (রাজস্ব) জিএস সুলতান আল-আমিন জানান, পূর্বের অধ্যক্ষের কাছ থেক্বে লিখিতভাবে দায়িত বুঝিয়ে না নেওয়ার সূডোগ নিয়ে তিনি অর্থ আত্মসাতও করছেন। দীর্ঘ ৮ মাস ধরে তিনি নিজের ইচ্ছা মত প্রতিষ্ঠানের সকল কার্যক্রম চালিয়ে যাচ্ছেন। এছাড়া অধ্যক্ষ ৪০ দিন আগে প্রশিক্ষনার্থীদের বৃত্তির ২ লাখ ৮০ হাজার টাকা তুলে এনে তার পকেটে রেখেছেন।

অধ্যক্ষের বিভিন্ন অনিয়ম ও দূর্নীতির প্রতিবাদ করায় আমাকে বহিরাগত সন্ত্রাসী দিয়ে হুমকি দেওয়া ছাড়াও আমাকে বিভিন্নভাবে লাঞ্চিত করা হয়। এ ব্যাপারে আমি জয়পুরহাট জেলা প্রশাসক এর কাছে লিখিত ভাবে অভিযোগ দিয়েছি।

এ ব্যাপারে কথা বলতে বারবার অধ্যক্ষ প্রকৌঃ দেলোয়ার উদ্দীন আহমেদ ও তার শ্যালক ওয়াসিম মিয়ার সাথে কথা বলার চেষ্টা করা হলেও তাদের মুঠোফোন বন্ধ পাওয়া যায়।

তবে জয়পুরহাটের জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ জাকির হোসেন জানান, ‘এই কারিগরি প্রশিক্ষন কেন্দ্র (টিটিসির)অধ্যক্ষের বিরুদ্ধে নানা অনিয়ম-দুর্নীতির অভিযোগ জেনেছি, তদন্ত সাপেক্ষে ব্যবস্থা নেয়া হবে।” একই কথা বলেন জনশক্তি কর্মসংস্থান ও প্রশিক্ষন ব্যুরোর পরিচালক মোঃ নুরুল ইসলাম।

Print Friendly, PDF & Email