কলাবাগান ক্রীড়াচক্র থেকে পিস্তল-ইয়াবা উদ্ধার, আটক ৫

 
 

ঢাকা, ২০ সেপ্টেম্বর।। রাজধানীর কলাবাগান ক্রীড়াচক্র থেকে একটি বিদেশি পিস্তল, বিশেষ ধরনের ইয়াবা, ক্যাসিনো সামগ্রী ও বিপুল পরিমাণ জুয়া খেলার সরঞ্জাম উদ্ধার করা হয়েছে। এসময় ক্লাবটির সভাপতি শফিকুল আলম ফিরোজসহ পাঁচজনকে আটক করেছে র‍্যাব।

শুক্রবার (২০ সেপ্টেম্বর) রাত সাড়ে ৮টার দিকে কলাবাগান ক্রীড়া চক্রে অভিযান শেষে র‍্যাব-২’র অধিনায়ক আশিক বিল্লাহ গণমাধ্যমকে এ তথ্য জানান।

তিনি বলেন, আমাদের কাছে তথ্য ছিল, এই ক্লাবের ক্রীড়া সংস্থার আড়ালে বিভিন্ন অবৈধ কর্মকাণ্ড পরিচালিত হতো। এর ভিত্তিতেই অভিযান চালানো হয়।

আশিক বিল্লাহ বলেন, এখান থেকে ৫৭২ পিস আমেরিকার তৈরি প্লেয়িং কার্ড, একটি বিদেশি পিস্তল, তিন রাউন্ড গুলি, ক্যাসিনো খেলার কয়েন ও গন্ধ নেই এমন নতুন ধরনের হলুদ ইয়াবা উদ্ধার করা হয়েছে। ক্লাবের ভেতর দেখেছি ক্যাসিনো খেলার বিভিন্ন সরঞ্জাম রয়েছে, এ থেকে আমরা মনে করছি এখানে একসময় ক্যাসিনো খেলা হতো।

এ র‌্যাব কর্মকর্তা বলেন, এই অভিযানে সুনির্দিষ্ট অভিযোগের পরিপ্রেক্ষিতে কলাবাগান ক্রীড়াচক্রের সভাপতি শফিকুর রহমান, হারুন আনোয়ার লিটনসহ মোট পাঁচজনকে আটক করা হয়েছে। ধানমন্ডি থানায় তাদের নামে মামলা করা হবে।

এছাড়া অভিযানে একটা বিদেশ পিস্তলসহ তিন রাউন্ড গুলি পাওয়া গেছে। ক্যাসিনোতে যুক্তরাষ্ট্রে তৈরি খেলার কয়েন, স্কোরবোর্ড ও ৫৭২ প্যাকেট তাস উদ্ধার করা হয়েছে। তার বিরুদ্ধে অস্ত্র ও মাদক আইনে মামলা হবে জানান র‌্যাব-২ এর অধিনায়ক আশিক বিল্লাল।

এর আগে দুপুর দেড়টার দিকে শফিকুল আলমকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য র‌্যাব হেফাজতে নেয়া হয়। সন্ধ্যার সোয়া ৭টার দিকে ক্লাবটিতে অভিযান শুরু করা হয়।

গত ১৮ সেপ্টেম্বর অবৈধ জুয়া ও ক্যাসিনো চালানোর অভিযোগে র‌্যাবের হাতে আটক হন ঢাকা দক্ষিণ মহানগর যুবলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক খালেদ মাহমুদ ভূঁইয়া। অস্ত্র ও মাদকের পৃথক দুই মামলায় তাকে সাতদিনের রিমান্ডে নিয়েছে পুলিশ।

সম্প্রতি ছাত্রলীগ ও যুবলীগের কয়েকজন নেতার বিষয়ে ক্ষুব্ধ প্রতিক্রিয়া ব্যক্ত করেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। তারপরই ছাত্রলীগের পদ হারান শোভন-রাব্বানী। এরপর আটক হন খালেদ। শুক্রবার যুবলীগের অপর আলোচিত নেতা জি কে শামীমকে নিকেতনের নিজ কার্যালয় থেকে আটক করা হয়।

Print Friendly, PDF & Email