বস্তা ভর্তি ছেঁড়া টাকা নিয়ে তুলকালাম

 
 

বগুড়া, ২৪ সেপ্টেম্বর।। ঢাকায় ক্যাসিনো কাণ্ডের মধ্যে বগুড়ার এক গ্রামে রাস্তা ও বিলের ধারে বাংলাদেশ ব্যাংকের ফেলে দেওয়া বাতিল নোটের টুকরো নিয়ে তুলকালাম কাণ্ড ঘটেছে।

শাজাহানপুর থানার পরিদর্শক (তদন্ত) আবুল কালাম আজাদ জানান, উপজেলার খাড়ুয়া ব্রিজ এলাকার চান্দাই গ্রামে রাস্তার পাশে কুচি কুচি করে কাটা টাকার টুকরো পড়ে থাকার খবরে স্থানীয়রা সেখানে ভিড় জমায়। সাধারণ মানুষের মধ্যে শুরু হয় নানা জল্পনা-কল্পনা। কেউ ধরা পড়ার ভয়ে এভাবে অবৈধ টাকা নষ্ট করেছে কি না- সেই প্রশ্নও ঘুরতে থাকে সাধারণের কথায়। পরে সেখানে পুলিশ গিয়ে জানতে পারে, সেগুলো বাংলাদেশ ব্যাংকের ফেলে দেওয়া বাতিল টাকার নোট।

বাংলাদেশ ব্যাংক বগুড়া শাখার যুগ্ম ব্যবস্থাপক মো. শাজাহান জানান, ফেলে দেয়া টুকরোগুলো বাংলাদেশ ব্যাংক বগুড়ার শাখার বাতিলকৃত, অপ্রচলনযোগ্য নোটের পাঞ্চ করা টুকরো। এগুলো মেশিন দিয়ে কেটে ফেলা হয়েছে, যা কখনই জোড়া লাগানো যাবে না। বগুড়া পৌরসভাকে এ ছেঁড়া টাকাগুলো ধ্বংস করার জন্য চিঠি দেয়া হয়েছিল।

বগুড়া পৌরসভার বস্তি উন্নয়ন কর্মকর্তা রাফিউল আবেদীন জানান, বাংলাদেশ ব্যাংক বগুড়া শাখার যুগ্ম ব্যবস্থাপক স্বাক্ষরিত পত্রে তাদের বাতিলকৃত, অপ্রচলনযোগ্য নোটের পাঞ্চ টুকরো পৌরসভার বর্জ্য হিসেবে ফেলে দেয়ার চিঠি দেয়া হয়। সেই চিঠি অনুযায়ী পৌরসভার ট্রাকে করে এক ট্রাক নোটের টুকরো ফেলে দেয়া হয়। তারা আগে কখনো এ ধরনের বর্জ্য অপসারণ করেনি। যার কারণে সেগুলো পুড়িয়ে ফেলতে হবে, না পুঁতে ফেলতে হবে সে ব্যাপারে তাদের কোনো ধারণা নেই। যার কারণে উল্লেখিত এলাকার ময়লার ভাগাড়ে টাকার বর্জ্যগুলো ফেলা হয়।

স্থানীয়রা জানান, গভীর রাতে কে বার কারা শাজাহানপুর উপজেলার বাগবাড়ী সড়কে জালশুকা খাউড়া ব্রিজের পাশে খালের পাড়ে ময়লার ভাগারে স্তুুপাকারে ছেঁড়া টাকা গুলি ফেলে রেখে যায়। সকালে সেগুলো দেখতে পেরে অনেকে বস্তায় ভরে ওই ছেঁড়া টাকাগুলো জ্বালানি হিসেবে নিয়ে যায়।

বাংলাদেশ ব্যাংক বগুড়ার শাখার ডেপুটি জেনারেল ম্যানেজার (ব্যাংকিং) সরকার আল ইমরান জানান, এগুলো পার্চিং করা টাকার টুকরো। আগে এগুলো বাংলাদেশ ব্যাংকের ভেতরে নির্দিষ্ট একটি স্থানে পুড়িয়ে ফেলা হতো। কিন্তু পরিবেশ দূষণ হওয়ায় টুকরোগুলো আর পোড়ানো হচ্ছে না। এখন ময়লা হিসেবে পৌরসভার মাধ্যমে বস্তায় ভরে ফেলে দেয়া হচ্ছে। আর এভাবে ছেঁড়া টাকার বর্জ্য ফেলার ঘটনা এটিই প্রথম।

এদিকে মঙ্গলবার সকাল থেকে ছেঁড়া টাকা বর্জ্য পড়ে থাকার ঘটনাটি গুজবে পরিণত হয়ে বস্তা ভর্তি লাখ লাখ টাকার নতুন নোট পাওয়া যাওয়া তথ্য ছড়িয়ে পড়ে। তথ্যটি সঠিকভাবে যাচাই না করে অনেকে এই টাকাকে কালো টাকা আখ্যায়িত করে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে স্ট্যাটাস দিয়ে দেন। যার কারণে শহরে আলোচনার পাশাপাশি সঠিক তথ্য উদ্ধারে গলদঘর্ম হতে হয় প্রশাসনের বিভিন্ন স্তরের কর্মকর্তাদের।

বগুড়ার অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (মিডিয়া) সনাতন চক্রবর্তী জানান, এটি এভাবে করে পৌরসভা ঠিক কাজ করেনি। বিষয়টি খোঁজ করে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়ার জন্য ছেঁড়া টাকার নমুনা পুলিশ সংগ্রহে রেখেছে।

Print Friendly, PDF & Email