আবরারের অসমাপ্ত কাজ পড়ে আছে টেবিলে

 
 

সিসি ডেস্ক, ৯ অক্টোবর।। বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়ের (বুয়েট) সদ্য প্রয়াত শিক্ষার্থী আবরার ফাহাদ শেরে বাংলা আবাসিক হলের ১০১১ নং কক্ষে থাকতেন।হত্যাকারিরা রুম থেকে ডেকে নেয়ার সময় অঙ্ক করছিলেন আবরার। তিনি ইলেক্ট্রিক মেসিনারি ফান্ডামেন্টালস বইয়ের ৫৯ পৃষ্টার কনটিনিউয়াস টাইম সিস্টেম সাফটার-২ অধ্যায় অনুশীলন করছিলেন।

সোমবার রাত ৮টার দিকে এই বই পড়ার সময় তাকে ডেকে নিয়ে যাওয়া হয়।

তার এক সহপাঠী জানিয়েছে, ডেকে নেয়ার সময় অঙ্ক করছিলেন আবরার। ছাত্রলীগ নেতাদের ডাকে সাড়া দিয়ে গণিতের খাতাটা খোলা রেখে তাদের সাথে চলে যান আবরার।

মঙ্গলবার (৮ অক্টোবর) আবরারের রুমে গিয়ে সংবাদিকরা দেখতে পান জায়নামাজ বিছানায় পড়ে আছে। টেবিলে পড়ে আছে পটেটো চিপস, টিস্যু পেপার, কলমদানীতে কিছু খুচরা টাকা।

আবরার সাহিত্য পড়তে খুব ভালবাসতেন বলে জানান রুমমেটরা। রবীন্দ্র রচনাসমগ্র, সাধারণ জ্ঞান চর্চার কিছু বই, বিভূতিভূষণ বন্দ্যোপাধ্যায় রচনাসমগ্রসহ আরো কিছু সাহিত্য বই দেখা যায়। নিয়মিত আরবি লেখাপড়া চর্চাও করতেন তিনি। তার পড়ার টেবিলে বিভিন্ন খাতা খোলে দেখা যায়।

রুমমেটদের কিছু জিজ্ঞাসা করতেই তারা কান্নায় ভেঙ্গে পড়েন।

আবরারের রুমের বড় ভাই মিজানুর রহমান বলেন, রোববারে আমি সন্ধ্যা সাড়ে ৭টার দিকে টিউশনি থেকে ফিরি। আসার পর আবরার সালাম দেয়। আমি পোশাক পাল্টিয়ে ওয়াশরুমে যাই। পরে দেখি কয়েকজন এসে তাকে নিয়ে গেল। এই তার সাথে আমার শেষ দেখা। এই বলে কান্নায় ভেঙে পড়েন তিনি।

Print Friendly, PDF & Email