কুষ্টিয়ায় তোপের মুখে বুয়েট ভিসি

 
 

সিসি ডেস্ক, ৯ অক্টোবর।। বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়ের (বুয়েট) শিক্ষার্থী আবরার ফাহাদের পরিবারকে সহমর্মিতা জানাতে কুষ্টিয়া গিয়ে এলাকাবাসীর তোপের মুখে পড়েছেন বিশ্ববিদ্যালয়টির ভিসি অধ্যাপক ড. সাইফুল ইসলাম। এলাকাবাসীর তোপের কারণে আবরারের পরিবারের সঙ্গে দেখা করতে পারেননি তিনি।

আবরারের মৃত্যুর পর থেকেই নিজের কর্মকাণ্ডের জন্য সমালোচিত হয়েছেন ভিসি সাইফুল। আবরার নিহত হওয়ার দিন ক্যাম্পাসে না যাওয়া এবং তার জানাজায় অংশ না নেয়ায় তার বিরুদ্ধে সমালোচনার ঝড় ওঠে।

এর আগে মঙ্গলবার সন্ধ্যা ৬টায় নিজ কার্যালয়ে হল প্রভোস্টদের সঙ্গে জরুরি বৈঠক শেষে শিক্ষার্থীরা উপাচার্যকে অবরুদ্ধ করে পদত্যাগ দাবি করেন। এসময় তিনি বলেন, ‘আমাকে ফাঁসি দিয়ে দাও।’

উপাচার্য কার্যালয় থেকে বের হওয়ার চেষ্টা করলে শিক্ষার্থীরা তাকে ঘিরে ধরেন। এ সময় আবরার হত্যার বিচার দাবিতে আট দফা দাবির ঘোষণা চান শিক্ষার্থীরা।

এ সময় শিক্ষার্থীরা উপাচার্যের কাছে জানতে চান, রোববার রাতে আবরার ফাহাদ রাব্বীকে পিটিয়ে হত্যার পর এত সময় ধরে তিনি কোথায় ছিলেন? একপর্যায়ে উপাচার্য মাইকে শিক্ষার্থীদের উদ্দেশে কথা বলতে চান। কথার শুরুতেই তিনি বলেন, ‘আবরারের মৃত্যু হয়েছে।’ তখন শিক্ষার্থীরা ‘মৃত্যু নয় খুন হয়েছে’ বলে চিৎকার করতে থাকে। একপর্যায়ে তিনি বলেন, ‘ঠিক আছে, খুনই হয়েছে।’

এদিকে আবরার হত্যার দায় নিয়ে বুয়েট উপাচার্য অধ্যাপক ড. সাইফুল ইসলামকে পদত্যাগের আহ্বান জানিয়েছেন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানটির অন্তত তিনশ’ শিক্ষক।

বুধবার সকাল সাড়ে ১০টা থেকে বেলা আড়াইটা পর্যন্ত শিক্ষক সমিতির এক বৈঠক থেকে এ দাবি করা হয়। এতে অন্তত ৩০০ শিক্ষক উপস্থিত ছিলেন। ওই বৈঠকে পদত্যাগ করেন শেরেবাংলা হলের প্রভোস্ট ড. মো. জাফর ইকবাল খান।

বৈঠকে হত্যাকাণ্ড কেন্দ্র করে শিক্ষার্থীদের চলমান আন্দোলনে বুয়েট ভিসির পদত্যাগসহ ১০ দফা দাবির সঙ্গে একাত্মতা প্রকাশ করে বুয়েট শিক্ষক সমিতি। তারা আবরার হত্যায় প্রশাসনিক ব্যর্থতার দায় নিয়ে ভিসি সাইফুল ইসলামকে পদত্যাগ করার আহ্বান জানান।

এর আগে বুয়েট অ্যালামনাই অ্যাসোসিয়েশনের এক প্রতিবাদ সমাবেশ থেকে বুয়েট ভিসির অপসারণ দাবি করা হয়। অ্যালামনাই অ্যাসোসিয়েশনের সভাপতি অধ্যাপক ড. জামিলুর রেজা চেৌধুরী অ্যাসোসিয়েশনের পক্ষে এই দাবি করেন।

Print Friendly, PDF & Email