আবরারের চালচলন চিন্তা-ভাবনা শিবিরের মতো ছিল : তসলিমা

 
 

সিসি ডেস্ক, ১০ অক্টোবর।। বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়ের (বুয়েট) ছাত্র আবরার ফাহাদের হত্যাকাণ্ডের ঘটনায় ফুঁসে উঠেছে গোটা বাংলাদেশ। পূর্বের ঘটনাগুলোর কোনোটারই বিচার না হওয়ায় একের পর এক ঘটনা ঘটে চলছে। দেশবাসী তাই এই বিচারহীনতার অবসান চান। ভিন্নমতের হলেই তাকে হত্যা করতে হবে, এমন মানসিকতার বদল চান দেশবাসী। এর মাঝেই প্রখ্যাত লেখিকা তসলিমা নাসরিনের একটি স্ট্যাটাস বিতর্কের জন্ম দিয়েছে। পাঠকদের জন্য হুবহু তুলে ধরা হলো সেই স্ট্যাটাস :

‘আবরার ফাহাদের গুণের বর্ণনা করতে গিয়ে আত্মীয় স্বজন, বন্ধু বান্ধব, পাড়া পড়শি, চেনা পরিচিত সবাই বলছেন আবরার মেধাবী ছিল এবং আবরার ৫ ওয়াক্ত নামাজ পড়ত। মেধাবী হওয়াটা নিশ্চয়ই গুণ কিন্তু ২১ বছর বয়সে ৫ ওয়াক্ত নামাজ পড়াটা তো গুণ নয়, বরং দোষ। বিজ্ঞানের ছাত্র হয়ে ব্রহ্মাণ্ডের উৎপত্তি , বিবর্তনের প্রক্রিয়া সম্পর্কে কোনো ধারণা নেই!

সাত আকাশের ওপর এক সর্বশক্তিমান বসে আছে, সে ৬ দিনে আসমান জমিন বানিয়েছে, আদম হাওয়াকেও মাটি দিয়ে বানিয়েছে, কথা শোনেনি বলে জমিনে ফেলে দিয়েছে, কেউ একজন ডানাওয়ালা ঘোড়ায় চড়ে তাকে এবং তার বানানো স্বর্গ নরক দেখে এসেছে — এসব আজগুবি অবিজ্ঞান আর হাস্যকর গাল গপ্প কোনো বুদ্ধিমান কেউ বিশ্বাস করতে পারে?

আবরার পড়তো হয়তো বিজ্ঞানের বই, পরীক্ষা পাশের জন্য পড়তো। তার বিজ্ঞান মনস্কতা ছিল না। নিজস্ব চিন্তার শক্তি ছিল না। একে আমি পড়ুয়া বলতে পারি, মেধাবী বলবো না। আবরার ছিল নিব্রাস ইসলামদের মতো। একবিংশ শতাব্দির আধুনিক বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়তো, কিন্তু মাথায় চোদ্দশ বছর আগের অবিজ্ঞান আর অনাধুনিকতা।

আবরার অফিসিয়ালি শিবির না করলেও শিবিরের মতো চাল চলন আর চিন্তা ভাবনা বানিয়েছিল । তাতে কী! শিবিরদেরও বাঁচার অধিকার আছে। তাকে যারা পিটিয়েছিল, আমার বিশ্বাস, মেরে ফেলার উদ্দেশে পেটায়নি। কিন্তু মাথায় আঘাত লেগেছে, মরে গেছে। যারা পিটিয়েছিল, তাদের শাস্তি অবশ্যই হতে হবে। এর মধ্যেই কয়েকটাকে গ্রেফতার করা হয়েছে।’

উৎস: কালেরকন্ঠ

Print Friendly, PDF & Email

 
 
 
 

মন্তব্য

আপনিই এখানে মতামত দিতে পারেন.

 
 

আপনার মতামত দিন