বিশ্ব শিশু পরিস্থিতি ও বাংলাদেশ

 
 

।। ইমরান মিঞা ।। শিশুরা ভোরের সূর্য এবং জাতির ভবিষ্যৎ। একই সাথে সমাজের সবচেয়ে দুর্বল অংশ। শিশুর প্রতি ব্যবহারে সতর্কতা গ্রহনের প্রয়োজনীয়তা অনস্বীকার্য। বিশ্ব শিশু পরিস্থিতিতে পরস্পর বিরোধী একটি অবস্থা বিরাজমান থাকা সত্ত্বেও বর্তমান বিশ্ববাসীদের মধ্যে এক জায়গায় একটি অভিন্ন দৃষ্টিভঙ্গি লক্ষ্য করা যায় তা হচ্ছে শিশু অধিকার সম্পর্কে পূর্বেকার যে কোন সময়ের চেয়ে আরো অনেক বেশি সচেতনতা। শিশুর প্রতি দায়িত্ববোধ এখন আর শুধু নীতিবোধের মধ্যেই সীমাবদ্ধ নয় বরং তা ক্রমবর্ধমান হারে বৃহত্তর সামাজিক ও আইনানুগ বাধ্যবাধবাতার আওতায় চলে আসছে।
প্রথম বিশ্বযুদ্ধের অব্যবহিত পরেই শিশুদের নিয়ে বিশ্ব পরিমন্ডলে নানান জল্পনা কল্পনা শুরু হয়েছিল। দেখা গেছে যে সারা পৃথিবীতে যত হানাহানি হয়েছে সেখানে সবচেয়ে বেশি ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে শিশুরা এবং আজও তা অব্যাহত রয়েছে।
১৯২৩ সালের Save the children এর প্রতিষ্ঠাতা ইগল্যানটাইন জেব শিশুদের অধিকারের জন্য সাতটি বক্তব্য তৈরি করেছিল যা পরবর্তীকালে Save the children গ্রহণ করে। ১৯২৪ সালে প্রতিষ্ঠিত Convention of League of Nation যাকে আমরা জেনেভা ঘোষনা বলে থাকি, সেখানে বলা হয়েছিল মানব জগতে সর্বোত্তম যা কিছু দেয়ার আছে তা শিশুরাই পাওয়ার যোগ্য। ১৯৪৮ সালের ১০ ডিসেম্বর তারিখে মানবাধিকার ঘোষণা পত্র গৃহীত হয়। এর মধ্যে ৩০টি অনুচ্ছেদ আছে। এই ঘোষণাপত্রে অতি সামান্য ভাবে ২৫ এর (খ) ও ২৬ এর (ক) অনুচ্ছেদ শিশু অধিকার বিষয়ক কথা বলা হয়েছে। ১৯৫৩ সালের অক্টোবর মাসে UNICEF এবং আন্তর্জাতিক শিশু কল্যাণ ইউনিয়ন এর উদ্যোগে শিশুদের বিশেষ বিবেচনায় আনার লক্ষ্যে প্রথম বিশ^ শিশু দিবস উদযাপিত হয়। বর্তমানে প্রতিবছর অক্টোবর মাসে প্রথম সোমবার বিশ্বশিশু দিবস উৎযাপিত হয়। ঐ দিবসকে ঘিরে সপ্তাহব্যাপী শিশু অধিকার সপ্তাহ পালিত হয়।
১৯৫৯ সালে জাতিসংঘের সাধারণ পরিষদে শিশুদের জন্য ১০টি অধিকার ঘোষিত হয়। এরপর জাতিসংঘের সাধারণ সভায় ১৯৭৯ থেকে ১৯৮৯ সালকে শিশু দশক হিসেবে ঘোষণা করা হয়। এ দশকের শেষ দিকে ১৯৮৯ সালের ২০ শে নভেম্বর জাতিসংঘের সাধারণ পরিষদে শিশু অধিকার সনদ গৃহীত হয়।
১৯৫৯ সালে গৃহীত ১০টি অধিকার বা ধারা পরিমার্জন ও পরিবর্ধন হয়ে ১৯৮৯ সালে বিশেষ ৪টি মূলনীতির উপর ভিত্তি করে ৫৪টি ধারা সম্বলিত এই শিশু অধিকার সনদ সর্বসম্মতভাবে গৃহীত।
সনদে বর্ণিত অধিকার সমূহ সাধারণ ঃ চারটি গুচ্ছে ভাগ করা হয়।
বেঁচে থাকার অধিকার: এর মধ্যে রয়েছে জীবন ধারণে সহায়ক মৌলিক বিষয়াদির অধিকার, যেমন-স্বাস্থ্য সেবা, পুষ্টিকর খাদ্য, বিশুদ্ধ পানি এবং স্বাস্থ্যসম্মত পরিবেশ। বিকাশের অধিকার: এর মধ্যে রয়েছে শিক্ষার অধিকার শিশুর গড়ে ওঠার জন্য উপযুক্ত একটি জীবন যাত্রার মান ভোগের অধিকার এবং অবকাশ যাপন বিনোদন ও সাংকৃতিক কর্মকান্ডে অংশগ্রহণের অধিকার। সুরক্ষার অধিকার: এই শ্রেণিতে রয়েছে উচ্চ ঝুঁকির পরিস্থিতিতে শিশুদের অধিকারসমূহ, যেমন উদ্বাস্তু শিশু পরিবার থেকে বিচ্ছিন্ন শিশু এবং শোষণ নির্যাতন ও অবহেলার শিকার হবার সম্ভাবনা রয়েছে এমন শিশু। অংশগ্রহণের অধিকার: এর মধ্যে রয়েছে শিশুদের তাদের কথা শোনার অধিকার, অন্যদের সাথে অবাধে সম্পর্ক গড়ে তোলার অধিকার এবং তথ্য ও ধারণা চাওয়া পাওয়া ও প্রকাশের অধিকার।

এ পর্যন্ত একটি দেশ ছাড়া বাকী সদস্য রাষ্ট্রগুলো সকলেই এই সনদে স্বাক্ষর করেছে। ১৯৯০ সালের ৩রা আগষ্ট বিশে^র প্রথম যে ২২টি দেশ এই সনদে স্বাক্ষর করে তার মধ্যে বাংলাদেশ অন্যতম।
সার্বজনীন মানবাধিকার ঘোষণাপত্র প্রণয়ন সত্ত্বেও পুণরায় শিশুদের অধিকার নিয়ে ভাবতে হয়েছে কারণ
শিশু অবস্থায় মানুষ তুলনামুলকভাবে দুর্বল তাই তাদের চাহিদা থেকে পৃথক। সমাজে শিশুরা নানা ধরনের নির্যাতনের শিকার হন। অনেক সময় শিশুদের সম্পূর্ণ মানুষ হিসেবে ভাবা হয় না। শিশুরা অন্যের উপর নির্ভরশীল। শিশুদের প্রয়োজন বিশেষ নিরাপত্তা। সকল মানবাধিকারই শিশুদের জন্য প্রযোজ্য। কিন্তু যেহেতু শিশুদের অতিরিক্ত মনোযোগ ও নিরাপত্তা প্রয়োজন তাই তাদের জন্য একটি পৃথক সনদ প্রনয়ণের প্রয়োজন অনুভূত হয়।
বাংলাদেশের মোট জনসংখ্যার প্রায় ৪৫% ভাগই শিশু। শিশুরা মানবসম্পদের মূল ভিত্তিভূমি এবং অযূত অমিত সম্ভাবনাময়। এই শিশুদের সম্ভাবনার বিকাশে যদি পরিপূর্ণভাবে সাহায্য করা যায় এবং তাদের সুষ্ঠুভাবে প্রতিপালন করা যায় তাহলে এ দেশের ভাগ্য খুব সময়ের মধ্যে বদলে যেতে পারে। সকল শিশু যাতে পরিপূর্ণ বিশ^াস ও মর্যাদা নিয়ে বাঁচতে পারে এবং উপযুক্ত যতœ ও নিরাপত্তা লাভ করতে পারে তা সুনিশ্চিত করার জন্য ব্যক্তি রাষ্ট্র সামাজিক গোষ্ঠী ও সংগঠন সকলেরই দায় দায়িত্ব রয়েছে। জাতি, ধর্ম, বর্ণ ভাষা ছেলে মেয়ে এবং সামাজিক মর্যাদা নির্বিশেষে সকল শিশুর অধিকার সমান।
দেশের মোট জনসংখ্যার ৪৫ শতাংশই যেমন শিশু আবার এর অর্ধেক অংশ কন্যা শিশু। বৈজ্ঞানিকভাবে ছেলেমেয়ে উভয়ই সমান মেধা সম্পন্ন হওয়া সত্ত্বেও সামাজিক এবং পারিবারিকভাবে মেয়েরা জেন্ডার বৈষমের শিকার। মেয়ে শিশু এবং ছেলে শিশু উভয়েই সমান। সম অধিকার এবং সম মর্যাদার অধিকারী। কিন্তু অত্যন্ত পরিতাপের বিষয় যে, সমাজেও পরিবারে মেয়ে শিশুরা মানবিক ও বস্তুগত বৈষম্য ও বঞ্চনার শিকার। বিদ্যমান বৈষম্য বঞ্চনা লাঘব মেয়ে শিশুদের অধিকার প্রতিষ্ঠা সনাতনী দৃষ্টিভঙ্গির পরিবর্তন এবং কন্যা শিশুদের মৌলিক অধিকার প্রতিষ্ঠার প্রত্যয়ে বৈষম্যটির তাৎপর্য নিহিত। এবারের কন্যা শিশু দিবসের প্রতিপাদ্য ছিলো- কন্যা শিশুর অগ্রযাত্রা, দেশের জন্য নতুন মাত্রা।
স্বাধীনতার পর পরই জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান শিশুদের কল্যাণ ও উন্নয়নে দেশের সংবিধানে অনুচ্ছেদ সংযোজন করেছিলেন। জাতির জনক ১৯৭২ সালের সংবিধানের ২৮ (৪) অনুচ্ছেদে শিশুদের উন্নয়নে বিশেষ বিধানের ব্যবস্থা সংযোজন করেন। এছাড়া তিনি ১৯৭৪ সালে শিশু আইন প্রনয়ন করেন। বাংলাদেশ সরকার জাতিসংঘ শিশু অধিকার সনদে স্বাক্ষর করার পর শিশু অধিকার রক্ষায় অনেক প্রশংসনীয় উদ্যোগ নিয়েছে। সময়ের প্রয়োজনে শিশুর অধিকার নিশ্চিত করার জন্য প্রণীতহয়েছে জাতীয় শিশুশ্রম নিরোধ নীতিমালা ২০১০, জাতীয় শিশু নীতিমালা ২০১১ এবং শিশু আইন ২০১৩। এছাড়া শিশুদের রাজনৈতিকভাবে ব্যবহারে নিষিদ্ধ করা হয়েছে। স্কুলে, শারীরিক শাস্তি অবৈধ করা হয়েছে। নারী ও শিশু নির্যাতন মূলক অপরাধসমূহ কঠোরভাবে দমনে প্রণীত হয়েছ। নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইন ২০০০। সম্প্রতি পাস হয়েছে বাল্য বিবাহ নিরোধ আইন ২০১৮।
এছাড়া মাতৃৃদুগ্ধ পান কার্যক্রমকে জোরদার করার জন্য বাংলাদেশ ব্রেষ্ট ফিডিং ফাউন্ডেশনকে শক্তিশালী করা হয়েছে। গ্রামাঞ্চলে শিশু ও প্রজনন স্বাস্থ্য নিশ্চিত করার জন্য ইতোমধ্যে প্রায় ১১ হাজার কমিউনিটি ক্লিনিক নির্মাণ করা হয়েছে। এছাড়া ইউনিয়ন পর্যায়ে মা ও শিশু কল্যাণ কেন্দ্র এবং স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ কেন্দ্র নির্মাণ করা হয়েছে। স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ কেন্দ্রের মাধ্যমে গ্রামাঞ্চলে পরিধি সম্প্রসারণ করা হয়েছে। মাতৃত্বকালীন ছুটি ৬ মাসে উন্নীত করেছেন এবং দরিদ্র মার জন্য মাতৃত্বকালীন ছুটি ভাতা দিচ্ছেন সরকার।
প্রাথমিক পর্যায়ে ভর্তির হার শতভাগ নিশ্চিত এবং ঝরে পড়া শিশুর সংখ্যা কমিয়ে আনতে বর্তমানে সরকার স্কুলে ফিডিং কার্যক্রম গ্রহন করেছে। প্রতিবন্ধী ও অটিস্টিক শিশুর (বিশেষ চাহিদা সম্পন্ন শিশু) প্রতি নজর দিচ্ছেন বর্তমান সরকার। তাদেরকে সমাজের মুল ধারায় ফিরিয়ে আনতে সরকার বদ্ধ পরিকর। প্রতিবন্ধি ও অটিস্টিক শিশুর জন্য বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ^বিদ্যালয়ে সেন্টার ফর নিউরো ডেভলোপমেন্ট এন্ড অর্টিজম চালু করা হয়েছে ।

শিশুর মৃত্যুর হার কমানোর ক্ষেত্রে সাফল্যের জন্য জাতিসংঘের এসডিজি পদক ২০১০, মহিলা ও শিশু স্বাস্থ্য উন্নয়নে অবদানের জন্য জাতিসংঘ ইকনোমিক কমিশন ফর আফ্রিকা-২০১১ দেশে আইটি ব্যবহারের মাধ্যমে মহিলা ও শিমুদের স্বাস্থ্য উন্নয়নে অবদান রাখার স্বীকৃতি স্বরূপ সাউথ সাউথ অ্যাওয়ার্ড লাভ করেন ।

জাতীয় বাজেটে শিশু অধিকার বাস্তবায়নে সরকারের সদিচ্ছার প্রকাশ ইতিমধ্যে আমরা লক্ষ্য করেছি । প্রতিবছর শিশু বাজেট পেশ করা হয় ।

শিশু অধিকার পরিস্থিতি বিষয়ে দায়িত্ববাহকদের সাথে জেলা পর্যায়ে মতবিনিময় সভা আরো জোরদার করতে হবে । শিশু স্বাস্থ্যে যেমন হাসপাতালে শিশু ওয়ার্ড বৃদ্ধি করা, বেডের সংখ্যা বৃদ্ধি, বহিরাগত শিশু রোগীদের জন্য বিশ্রামাগার, শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে স্যানিটারি ন্যাপকিন সরবরাহ, সরকারি শিশু সদনে স্যানিটারি ন্যাপকিন সরবরাহ, শ্রেণিকক্ষে মোবাইল ফোন ব্যবহারের উপর নিষেধাজ্ঞা। শিশুদের সুষ্ঠু বিকাশের জন্য চিড়িয়াখানা ও পার্কগুলোতে শিশু উপযোগি পরিবেশ সৃষ্টি করা এবং খেলাধূলার জন্য উন্মুক্ত মাঠের বন্দোবস্ত করা ।
শিশুদের অধিকার সুরক্ষায় মহিলা ও শিশু বিষয়ক মন্ত্রনালয়ের অধীন বাংলাদেশ শিশু একাডেমি ব্যাপক ভাবে কাজ করে চলেছে। শিশুদের জন্য সাংস্কৃতিক কার্যক্রম বিভিন্ন দিবস উৎযাপন শিশুতোষ বই ও পত্রিকা প্রকাশনা, শিশু আনন্দমেলার আয়োজন, সাংস্কৃতিক উৎসব, আন্তর্জাতিক শিশু সাংস্কৃতিক দল বিনিময় কার্যক্রম সহ বিবিধ কার্যক্রম পরিচালনা করে থাকে। এক্ষেত্রে শহরের শিশুরাই এই সুযোগ গ্রহন করে থাকে । কারন এখনও পর্যন্ত গ্রামীন শিশুদের এই সব কর্মকান্ডে সম্পৃক্ত করার জন্য উপজেলা পর্যায়ে বাংলাদেশ শিশু একাডেমির দ্বার উম্মোচিত হয় নি । সুতরাং শিশুদের অধিকার সুরক্ষায় এই প্রতিষ্ঠানের জনবল বৃদ্ধি এবং প্রাতিষ্ঠানিক ও অবকাঠামোগত উন্নয়ন প্রয়োজন । পৃথিবীর সকল শিশুই সুন্দর থাকুক ।

লেখক: ইমরান মিঞা; বিএসএস, এমএসএস (ঢাবি); জেলা শিশু বিষয়ক অফিসার, নীলফামারী।

Print Friendly, PDF & Email