• সোমবার, ১৬ মে ২০২২, ০৯:০৩ অপরাহ্ন |

যুবলীগ নেতাদের বয়স ৫৫ বছরের বেশি নয়

সিসি নিউজ, ২১ অক্টোবর।। অবশেষে সংগঠন থেকে অব্যাহতি দেওয়া হয়েছে যুবলীগের দাপুটে চেয়ারম্যান ওমর ফারুক চৌধুরীকে। রবিবার রাতে যুবলীগ নেতাদের সঙ্গে আওয়ামী লীগ সভাপতি শেখ হাসিনার এক বৈঠকে এ সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়। প্রধানমন্ত্রীর সরকারি বাসভবন গণভবনে অনুষ্ঠিত বৈঠকে যুবলীগের আগামী কমিটিতে সংগঠনটির নেতাদের বয়সসীমা ৫৫ বছর বেঁধে দেওয়া হয়। এ ছাড়া যুবলীগের সপ্তম জাতীয় কংগ্রেস সফল করার লক্ষ্যে গঠন করা হয় সম্মেলন প্রস্তুতি কমিটি। যুবলীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য চয়ন ইসলামকে আহ্বায়ক ও সাধারণ সম্পাদক হারুনুর রশীদকে সদস্যসচিব করা হয়েছে সম্মেলন প্রস্তুতি কমিটির।

সূত্রগুলো জানায়, যুবলীগের সপ্তম জাতীয় কংগ্রেস সামনে রেখে সংগঠনটির প্রেসিডিয়াম সদস্য, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ও সাংগঠনিক সম্পাদকদের নিয়ে বৈঠকে বসেন আওয়ামী লীগ সভাপতি শেখ হাসিনা। তবে বৈঠকে যুবলীগের চেয়ারম্যান ওমর ফারুক চৌধুরী, প্রেসিডিয়াম সদস্য শেখ ফজলুর রহমান মারুফ ও নুরুন্নবী চৌধুরী শাওনকে উপস্থিত থাকার অনুমতি দেওয়া হয়নি।

বৈঠকের শুরুতে আওয়ামী লীগ সভাপতি স্বাগত ভাষণ দেন। এরপর তিনি সাংগঠনিক বিষয়ে আলোচনা শুরু করেন। এ সময় আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের, উপদেষ্টা পরিষদের সদস্য আমির হোসেন আমু ও তোফায়েল আহমেদ উপস্থিত ছিলেন।

বৈঠকে আওয়ামী লীগের উপদেষ্টা পরিষদের সদস্য তোফায়েল আহমেদ, সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের এবং যুবলীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য মুজিবুর রহমান চৌধুরী, আনোয়ারুল ইসলাম, বেলাল হোসাইন, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মহিউদ্দিন আহমেদ মহী, সুব্রত পাল প্রমুখ বক্তব্য দেন।

বৈঠকে যুবলীগ চেয়ারম্যানের অনুপস্থিতিতে কাউকে ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যানের দায়িত্ব দেওয়ার প্রসঙ্গ উঠলে শেখ হাসিনা বলেন, এখন আর কাউকে ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান করার দরকার নেই। সম্মেলন প্রস্তুতি কমিটির আহ্বায়কই কংগ্রেসে সভাপতিত্ব করবেন। যুবলীগের বিতর্কিতদের যেন কোনো কাজে সম্পৃক্ত করা না হয়।

বৈঠকে যুবলীগের বয়সসীমা এবারের কংগ্রেসে নির্ধারণ না করে আগামী কংগ্রেস থেকে নির্ধারণের অনুরোধ জানান প্রেসিডিয়াম সদস্য মুজিবুর রহমান চৌধুরী ও ফারুক হোসেন। তখন শেখ হাসিনা ফারুক হোসেনকে বলেন, ‘জেলায় গিয়ে আওয়ামী লীগ কর। জেলাগুলোতে আওয়ামী লীগের তরুণ নেতৃত্ব দরকার।’ তোফায়েল আহমেদ বলেন, যুবকদের বয়স নিয়ে মানুষের মধ্যে একটা ধারণা আছে। ৬০-৭০ বছরে যুবলীগ করলে সেটা ভালো দেখায় না। পরে যুবলীগের নেতৃত্বের বয়সসীমা ৫৫ বছর নির্ধারণ করে দেন শেখ হাসিনা। এ বয়স বেঁধে দেওয়ার কারণে যুবলীগের কেন্দ্রীয় গুরুত্বপূর্ণ অনেক নেতাই আগামী কাউন্সিলে আর প্রার্থী হতে পারবেন না।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ