পাঁঠার দুধ নিয়ে ব্যাপক চাঞ্চল্য

 
 

মোমেন মুনি, জয়পুরহাট, ২৪ অক্টোবর: সৃষ্টির রহস্য ঘেড়া পৃথিবীতে নানা বিরল ঘটনা ঘটছে কখনো কখনো, যা অবাক করে সাধারন মানুষদের। এমন এক অস্বাভাবিক হলেও সত্য ঘটনা, জয়পুরহাটের পাঁচবিবি উপজেলার মোলান রশিদপুর গ্রামে এক ছাগল প্রজনন খামারের ছাগি নয় পাঁঠা দুধ দিচ্ছে। দুধ দানকারী ওই পাঁঠাকে কেন্দ্র করে সৃষ্টি হয়েছ ব্যাপক চাঞ্চল্য। এই পাঁঠার দুধের স্বাদও গরু বা ছাগীর দুধের মতই। ব্যাতিক্রমী এ ঘটনার খবর দ্রুত ছড়িয়ে পরলে দূর-দুরান্তের দর্শকদের উপচেপড়া ভীড় দেখা গেছে ওই গ্রামে।

জানা গেছে, জয়পুরহাটের পাঁচবিবি উপজেলার মোলান রশিদপুর গ্রামের ছাগল প্রজনন খামারী বাবু লাল। তার খামারে আছে বিভিন্ন প্রজাতীর প্রায় ছাগলের ১৬টি পাঁঠা। বানিজ্যিক ভাবে ছাগল-বকরী প্রজননের উদ্দেশ্যে বাবু লাল দীর্ঘ দিন ধরে পাঁঠাগুলো পালন করে আসছেন তার খামারে।

পাঁঠা খামারী বাবু লাল জানান, বছর খানেক আগে ওই খামারের একটি পাঁঠার তলপেটে ছাগীর মত দুধের বাঁট লক্ষ করেন খামারী, যেখানে ব্যথার কারনে অস্থিরসহ ছটফট করত পাঁঠাটি। স্থানীয় পশু চিকিৎসা কেন্দ্রে নিয়ে গেলে পশু চিকিৎসক জানান পাঁঠাটির ওই বাঁটগুলো দিয়ে যে দুধ নিশ^রন করা হচ্ছে এর স্বাদ ও গুনগত মান গরু বা ছাগীর দুধের মতই। এরপর থেকে চিকিৎসকের পরামর্শে নিয়মিত দুধ দোহানোর পর তা নিজেও খান আবার পাড়া-পড়শিদেরও দেন বাবু লাল। তিনি জানান প্রতি দিন আধা লিটার থেকে এক লিটার দুধ দেয় প্রজনন ক্ষমতা সম্পন্ন এই পাঁঠা।

বাবু লাল আরো জানান, ঘটনাটি জানাজানি হওয়ায় বিভিন্ন পর্যটন ও বিনোদন কেন্দ্র এবং সার্কাস মালিকরা পাঁঠাটির দাম ৭০ হাজার টাকা মূল্য দিতে চাইলেও তিনি বিক্রি করবেন না বলে জানিয়ে দিয়েছেন।

ঘটনাটি ছড়িয়ে পড়লে আশ-পাশের গ্রামগুলো ছাড়াও দুর-দুরান্তের উৎসুক জনতা ভীর করতে থাকেন বাবু লালের পাঁঠার খামারে। জেলাসহ দেশের কোথাও এমন বিরল ঘটনা ঘটেনি বলে জানান আগত দর্শনার্থীরা। এ ছাড়া এই দুধের স্বাদ গরু বা ছাগীর দুধের মতই বলেও জানান পাঁঠার দুধ পানকারী এলাকাবাসী।

একই গ্রামের আব্দুল ওয়াহাব, বাদশা মিয়া, নিবারন চন্দ্র, পাশর্^বর্তী সরাইল গ্রামের লাবন মন্ডলসহ এলাকাবাসীরা জানান- বাবু লাল এখানে ১৫/১৬টি পাঁঠা পালন করেন, এই পাঁঠাগুলো দিয়ে তিনি বানিজ্যিক ভাবে ছাগল-বকরী প্রজনন করেন। এরমধ্যে একট পাঁঠা দুধ দেয়, এমন খবর ছড়িয়ে পরলে অনেক দুর-দুরান্তের লোক প্রতি দিনই দেখতে আসেন। এলাকাবাসীরা আরো জানান, এলাকার অনেকেই এই দুধ পান করেছেন, গরুর দুধের মতই এর স্বাদ।

ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে স্থানীয় প্রানিসম্পদ কর্তৃপক্ষ জানান, পাঁঠাটির হরমন জনিত পরিবর্তনের কারনে এমনটি ঘটেছে বলে পরীক্ষা-নিরীক্ষায় জানা গেছে।

পাঁচবিবি উপজেলা প্রাানিসম্পদ কর্মকর্তা আব্দুল হাকিম ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে জানান, ‘ পাঁঠা খামারী বাবু লালের প্রজনন ক্ষমতা সম্পন্ন একটি পাঠা প্রতি দিন আধা লিটার থেকে ১ এক লিটার পরিমান দুধ দেয়, যা স্বাভাবিক দুধের মতই, এটা অস্বাভাবিক ঘটনা হলেও সায়েন্টিফিক ব্যাপার, এক ধরনের হরমন সিক্রেশন যখন খুব বেশী হয়ে যায় তখন পুরুষ ছাগলও দুধ দিতে পারে।’

Print Friendly, PDF & Email