• শনিবার, ২১ মে ২০২২, ১২:০২ পূর্বাহ্ন |

হাকিমপুর থানার ১২ পুলিশ কর্মকর্তাকে বদলী

সিসি ডেস্ক, ২ নভেম্বর।। দিনাজপুরের হাকিমপুর থানার ওসিসহ ১২জন পুলিশ কর্মকর্তাকে একযোগে অন্যত্র বদলি করা হয়েছে। ফলে জনবল স্বল্পতায় পুলিশের কার্যক্রম পরিচালনা করতে অসুবিধা হচ্ছে। এতে চিহ্নিত অনেক মাদকব্যবসায়ীদের দীর্ঘদিন এলাকায় দেখা না গেলেও আবারও অনেক মাদকব্যবসায়ীদের হাকিমপুর থানায় আনাগোনা লক্ষ্য করা যাচ্ছে। মাদকের বিরুদ্ধে পুলিশের নানা অভিযানের ফলে মাদক বিক্রয় প্রবনতা কমলেও তাদের বদলির কারণে আবারও হিলিতে মাদকের সহজলভ্যতা বাড়বে বলে মনে করছেন স্থানীয়রা।

হাকিমপুর থানা সূত্রে জানা গেছে, দেশের সবচেয়ে নিকটবর্তী সীমান্ত এলাকা দিনাজপুরের হাকিমপুর (হিলি) থানা, যার কারনে আগে থেকেই এখানে মাদকের সহজলভ্যতা ছিল, থানার বিভিন্ন এলাকায় বাসাবাড়িতে মাদক বিক্রি হতো ও দেশের বিভিন্ন এলাকা থেকে মানুষজন আসতো সেই মাদক সেবন করতে।

হাকিমপুর থানাতে আনোয়ার হোসেন ওসি হিসেবে যোগদানের পর থেকেই তিনি মাদকের বিরুদ্ধে যুদ্ধ ঘোষনা করেন। মাদক ছাড় নইলে হিলি ছাড় এই শ্লোগানকে সামনে রেখে তিনি স্থানীয় নানা শ্রেনী পেশার মানুষদের সাথে নিয়ে মাদকবিরোধী অভিযান পরিচালনা করতেন। এছাড়াও কমিউনিটি বেস স্কুল কমিটি গঠন করে স্কুল কলেজের ছাত্র-ছাত্রীদের নিয়ে মাদকের বিরুদ্ধে সচেতনতামুলক র‌্যালি সভা সমাবেশ করতেন। এসবের ফলে হিলির চিরচেনা আগের সেই রুপ থেকে অনেকটা পরিবর্তন হয়, বিভিন্ন স্থান থেকে মাদকসেবীদের আসা যেমন কমেছে তেমনি অনেক মাদকব্যবসায়ী এলাকা ছেড়ে অন্যত্র চলে যায়।

এক পরিসংখ্যানে দেখা গেছে, গত ১ সেপ্টেম্বর ২০১৮ থেকে ২৫ সেপ্টেম্বর ২০১৯ সাল পর্যন্ত হাকিমপুর থানা পুলিশ মাদকবিরোধী বিভিন্ন অভিযান পরিচালনা করেন। এর মধ্যে মাদকের মামলা দায়ের করেন ৩৯৭টি, আসামীর সংখ্যা ছিল ৫৮৩জন, গ্রেফতার করা হয় ৪৯৮জনকে, ফেনসিডিল উদ্ধার করা হয় ১২ হাজার ২১৯ বোতল, ইয়াবা উদ্ধার করা হয় ২২ হাজার ১৬৭পিস, গাঁজা উদ্ধার করা হয় ১৩কেজি ৭৬৮গ্রাম, হেরোইন ৯৩.৬১গ্রাম, বিদেশী মদ উদ্ধার করা হয় ৪৭ প্যাকেট ও ১৪ বোতল, নেশাজাতীয় ইনজেকশন ২ হাজার ৪৮৩পিস, চোলাই মদ ৪১০লিটার এছাড়াও পরিত্যাক্ত অবস্থায় উদ্ধার করা হয় ৮শ পিচ ইয়াবা, ফেনসিডিল ২৫ বোতল, প্যারাসিটামল ট্যাবলেট উদ্ধার করা হয় ১ লাখ ৪৪ হাজার পিস।

স্টুডেন্ট বেস কমিউনিটি পুলিশং ইউনিটের সাধারণ সম্পাদক মুহিত আহম্মেদ জানান, হাকিমপুর থানা হিলি সীমান্ত এলাকা হওয়ার কারনে এখানে মাদকের প্রকটটা অন্যান্য এলাকার চেয়ে অনেক বেশি ছিল। আমরা দেখেছিলাম মাদকের কারনে যুবসমাজ ধ্বংসের দিকে যাচ্ছে, এমনকি আমাদের বন্ধু বান্ধবসহপাঠী রয়েছেন তারাও অনেকে মাদকের প্রতি আসক্ত হয়ে পড়ছিল। তাদেরকে সেই পথ থেকে ফিরিয়ে আনতে আমরা স্কুল কলেজের ছাত্র-ছাত্রীরা থানা পুলিশের সহযোগিতায় স্টুডেন্ট বেস কমিউনিটি পুলিশিং ইউনিট গঠন করি। এর মাধ্যমে আমরা হিলি সীমান্তের বিভিন্ন পাড়া, মহল্লায় গিয়ে আমাদের যারা বন্ধু বান্ধব, এমনকি যারা মাদকসেবী ও মাদক ব্যবসার সাথে যুক্ত রয়েছেন তাদেরকে বিভিন্নভাবে মাদকের কুফল সম্পর্কে বোঝানোর চেষ্টা করি ও সেই পথ থেকে দূরে আনার চেষ্টা করি। কিন্তু বর্তমানে ওসিসহ বেশ কয়েকজন কর্মকর্তার বদলী হওয়ার কারনে সেই কার্যক্রম অনেকটাই মুখ থুবড়ে পড়বে।

হাকিমপুর উপজেলা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক সোহরাব হোসেন বলেন, হিলি সীমান্ত এলাকা হওয়ার কারণে এখানে মাদকের তৎপরতা অত্যান্ত বেশি ছিল। যার কারনে আশেপাশের জেলাগুলো এমনকি ঢাকা থেকেও মাদকসেবীরা হিলিতে আসতো মাদকসেবন করতে। হাকিমপুর থানা পুলিশ বিভিন্ন সামাজিক সংগঠন, স্কুল কলেজের ছাত্র-ছাত্রীদের নিয়ে মাদকের বিরুদ্ধে বিভিন্ন সভা সেমিনার করে মাদক প্রতিরোধে সচেতন করে তুলছেন। যার কারনে বর্তমানে পূর্বের তুলনায় মাদকের প্রবনতা ছিল সেটি অনেকাংশে কমে গিয়েছিল। কিন্তু মাদক বন্ধে কাজ করা এই টিমকে হিলি থেকে অন্যত্র বদলি করে দেওয়ায় হিলি আবারও আগের চেহারায় ফিরে আসবে বলেও আমরা মনে করছি।

হাকিমপুর থানার ওসি (তদন্ত) রেজাউল করিম জানান, হঠাৎ করে প্রশাসনিক কারণে গত ২৯ ও ৩১ অক্টোবর দুই দফায় হাকিমপুর থানার ওসিসহ এক সাথে ১২ অফিসারের অন্যত্র বদলি হওয়ায় থানায় সাময়িকভাবে জনবল সল্পতা দেখা দিয়েছে। তবে আগামী দু’এক দিনের মধ্যেই সব পূরণ হয়ে যাবে।

হাকিমপুর উপজেলা চেয়ারম্যান হারুন উর রশীদ হারুন জানান, আনোয়ার হোসেন ওসি হিসেবে হাকিমপুর থানায় যোগদানের পর থেকেই তিনি হাকিমপুরকে মাদকমুক্ত করতে নানামুখী পদক্ষেপ নিয়েছেন যার কারনে আমরা ইতোমধ্যেই হিলিকে একটা মাদক নিয়ন্ত্রিত এলাকা হিসেবে দেখতে পেয়েছিলাম। কিন্তু হঠাৎ করে তিনিসহ থানার ১২জন কর্মকর্তার বদলি চলমান মাদক বিরোধী অভিযান ঝিমিয়ে পড়ার আশঙ্কা রয়েছে।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ