সৈয়দপুরে যুবককে পিটিয়ে হত্যার ঘটনায় মামলা দায়ের

 
 

সিসি নিউজ, ৯ নভেম্বর।। নীলফামারীর সৈয়দপুর শহরে একটি বাইসাইকেল চুরির ঘটনাকে কেন্দ্র করে এক যুবককে পিটিয়ে হত্যার ঘটনায় থানায় মামলা করা হয়েছে। নিহত যুবক মো. সোহেলের (২৫) বাবা মো. সহিদুল ইসলাম বাদী হয়ে গত বৃহস্পতিবার (৭ নভেম্বর) রাতে সৈয়দপুর থানায় ওই মামলাটি দায়ের করেন। এতে চারজনের নাম উল্লেখপূর্বক অজ্ঞাত আরো ১৫/২০ জনকে আসামী করা হয়েছে। মামলার যে সব আসামীর নাম উল্লেখ করা হয়েছে, তারা হচ্ছে শহরের মুন্সিপাড়া খেঁজুরবাগ এলাকার ইলেকট্রিক মিস্ত্রী মো. কাল্লুর ছেলে রকি (২৩), সনু (২৫), জনি (২৭) এবং ফয়সাল (২৮)। আজ শনিবার পর্যন্ত এ মামলার কোন আসামীকেই গ্রেপ্তার করতে পারেনি পুলিশ। তবে আসামীদের গ্রেপ্তারে পুলিশের তৎপরতা অব্যাহত রয়েছে বলে জানা গেছে।
এদিকে,নিহতের বাড়িতে এখনো চলছে শোকের মাতম। নিহত সোহেলের স্ত্রী মোছা. সানা স্বামীর জন্য দিনরাত অনরত কান্নাকাটি করছেন। গত তিন ধরে তিনি কিছুই মুখে নিচ্ছেন না। নিহত সোহেলের দেড় বছরে শিশু পুত্র রয়েছে। বাবা যে চিরতরের জন্য তাদের ছেড়ে না ফেরার দেশে চলে গেছেন তা বুঝে উঠার জ্ঞান হয়নি এখনো তাঁর। সোহেলের স্ত্রী সানার এখন একটিই দুশ্চিন্তা দেড় বছরের শিশুটিকে কে মানুষ করবেন ? আর কে বা তাকে ও তাঁর কোলের শিশুপুত্রের ভরণ পোষন দেবে?
উল্লেখ্য, নীলফামারীর সৈয়দপুর শহরের চাঁদনগর মহ্ল্লার মো. সহিদুল ইসলামের ছেলে মো. সোহেল (২৫)। সে সৈয়দপুর বিসিক শিল্প নগরীতে আলম তাঁরকাটা ফ্যাক্টরিতে শ্রমিকের কাজ করতো। ঘটনার দিন গত ৬ নভেম্বর সন্ধ্যায় তাঁর চুরি যাওয়া বাইসাইকেলের খোঁজে বের হয় সে (সোহেল)। এর এক পর্যায়ে শহরের খেঁজুরবাগ এলাকার জনৈক কাল্লুর চার ছেলে সনু, ফয়সাল, জনি ও রকিসহ অজ্ঞাত ১৫/২০ জন বখাটে যুবক মিলে তাকে এলোপাতারি বেদম মারপিট করে। এতে সে গুরুতর আহত হয়। এরপর প্রথমে তাকে সৈয়দপুর ১০০ শয্যা বিশিষ্ট হাসপাতালে এবং পরে রংপুর মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে স্থানান্তর করা হয়। সেখানে চিকিৎসাধীন অবস্থায় গত ৭ নভেম্বর ভোর সাড়ে ৫টায় সোহেলের মৃত্যু হয়।
সৈয়দপুর থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মো. শাহাজাহান পাশা জানান, এ ঘটনায় নিহতের বাবা বাদী হয়ে থানায় একটি মামলা করেছেন। এ মামলাটি তদন্ত করছেন থানার পরিদর্শক (তদন্ত) মো. আবুল হাসনাত খান। মামলার আসামীদের গ্রেপ্তারে পুলিশী তৎপরতা অব্যাহত রয়েছে বলে জানান তিনি।

Print Friendly, PDF & Email